দাঁতের ডাক্তার, গায়ক, এমবিএ ছাত্র: আইসিস ভিডিও-তে তিন বাংলাদেশি যুবক

0

খবর অনলাইন: এক জন দাঁতের ডাক্তার, দ্বিতীয় জন গায়ক এবং আরেক জন এমবিএ-র ছাত্র। আইসিসের সর্বশেষ ভিডিও-তে যে তিন বাংলাদেশি যুবককে আরও সন্ত্রাসবাদী হামলার হুমকি দিতে দেখা গিয়েছে, এটাই হল তাদের পরিচয়। বৃহস্পতিবার ঢাকার সরকারি সূত্রে এই খবর জানা গিয়েছে। গত বুধবার আইসিস ওই ভিডিও প্রকাশ করে।

এদের মধ্যে এক জন মডেল নাইলা নায়িমের প্রাক্তন স্বামী তুষার। বিডিনিউজ২৪.কম জানিয়েছে, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রয়াত মেজর ওয়াশিকুর আজাদের ছেলে তুষারের সঙ্গে নায়িমের বিয়ে হয় ২০১১ সালে, পরে তাদের ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। পেশায় দাঁতের ডাক্তার তুষারের পড়াশোনা ঢাকার আদমজি ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এবং রাজুক উত্তরা মডেল কলেজে। গত দু’ বছর ধরে তুষার নিখোঁজ। আইসিসের ভিডিও-তে তাকে লম্বা দাঁড়ি সহ দেখা গিয়েছে।

আরবীয় স্টাইলে হেডড্রেসে মুখ ঢাকা অবস্থায় যে যুবকটিকে ভিডিও-তে দেখা গিয়েছে তার নাম তৌসিফ হোসেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন-এর প্রাক্তন ছাত্র তৌসিফ কোর্স সম্পূর্ণ না করেই বিশ্ববিদ্যালয় ছেড়ে দেয়। জামাতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশ-এর (জেএমবি) জড়িত থাকার অভিযোগে তৌসিফকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। মুক্তির পর তার পরিবার তাকে অস্ট্রিয়া পাঠিয়ে দেয়। কিন্তু ওখানে তার বন্ধুরা জানিয়েছেন, তৌসিফ অস্ট্রিয়ায় নেই।

ভিডিও-র তৃতীয় যুবকের নাম তাহমিদ রহমান শফি। ১৯৯৫-এর এনটিভি-র রিয়্যালিটি মিউজিক শো-এর দশ ফাইনালিস্টের অন্যতম। শফি দেশের প্রাক্তন নির্বাচন কমিশনার শফিউর রহমানের ছেলে। ২০১১ সালে সে গ্রামীণফোন থেকে ইস্তফা দেয়।

আইসিসের ভিডিও-তে তিন জনকেই বাংলায় বলতে দেখা গিয়েছে। এক মাত্র শফিই তার বক্তব্য ইংরিজিতে অনুবাদ করে দিয়েছে।

বাংলাদেশে হাজারের বেশি ছেলে নিখোঁজ। এই নিয়ে উদ্বিগ্ন প্রশাসন। এই নিখোঁজ ছেলেদের বেশির ভাগই অবস্থাপন্ন ঘরের ছেলে। বাংলাদেশ প্রশাসনের ধারণা, মাদ্রাসা পড়া ছেলেদের বদলে উচ্চবিত্ত পরিবারের ছেলেদেরই নিশানা বানাচ্ছে জঙ্গিরা। এই সব উচ্চশিক্ষিত যুবকদের মগজ ধোলাই করে জঙ্গি বানানো হচ্ছে। সেই কারণেই ইতিমধ্যে বাঙ্গালাদেশ পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, কারও ছেলে নিরুদ্দেশ থাকলে তা যেন দ্রুত প্রশাসনকে জানানো হয়। আর যারা নিরুদ্দেশ হয়ে গিয়েছে, তারা কোথায় আছে, কী করছে তা জানার জন্য ব্যাপক তদন্তে নামতে চলেছে বাংলাদেশ পুলিশ।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন