ঢাকার থানায় বিস্ফোরণে জখম ৫, জঙ্গিযোগের প্রমাণ পাওয়া যায়নি

0

ঋদি হক: ঢাকা

বুধবার ভোরে রাজধানী ঢাকার (Dhaka) পল্লবী থানায় (Pallabi ps) বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটল। এতে চার পুলিশ সদস্য-সহ পাঁচ জন আহত হন। বিস্ফোরণে আহতদের মধ্যে রয়েছেন পল্লবী থানার ইনস্পেকটর ইমরান (৪৮), এসআই সজীব (৩০), পিএসআই অঙ্কুশ (২৮) এবং পিএসআই রুমি (২৮)। রিয়াজ (২৮) নামের এক পুলিশের সোর্স আহত হয়েছেন। তাঁর বাম হাতের কবজি ও ডান হাতের একটি আঙুল কাটা গেছে। এই ঘটনায় তিন জনকে আটক করা হয়েছে।

পুলিশের এক কর্মকর্তা জানান, বিস্ফোরণে থানার ডিউটি অফিসারের ঘরের জানালা ও বিভিন্ন আসবাবপত্র তছনছ হয়েছে। বিস্ফোরণের পরপরই থানায় দায়িত্বরত পুলিশসদস্য ও কর্মকর্তাদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে পুলিশের বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা, র‌্যাব ও জঙ্গি কর্মকাণ্ডের তদন্তকাজে সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে ছুটে যান। পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডি ঘটনাস্থল থেকে নমুনা সংগ্রহ করে।

আরও পড়ুন: বাংলাদেশে জঙ্গিবাদ সমূলে উৎপাটিত হয়নি, বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল

রাজধানীর মিরপুরের (MIrpur) পল্লবী থানায় বিস্ফোরণের সঙ্গে জঙ্গিযোগ নেই বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার কৃষ্ণপদ রায়। তিনি বলেন, মঙ্গলবার রাত ২টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মিরপুরের কালশি কবরস্থান এলাকা থেকে তিন সন্ত্রাসীকে আটক করা হয়। যাদের কাছ থেকে আগ্নেয়াস্ত্র ও গুলি এবং ওয়েটমেশিনের মতো একটি বস্তু উদ্ধার করা হয়। এই বস্তুটি পরীক্ষার জন্য সিটিটিসির স্পেশাল অ্যাকশন গ্রুপকে ডাকা হয়। এরই মধ্যে থানার পুলিশ সেটি পরীক্ষার জন্য নিয়ে গেলে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে চার জন পুলিশ সদস্য এবং থানার একজন সিভিল কর্মচারী আহত হন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল মঙ্গলবার বলেছিলেন, জঙ্গি হামলার আশঙ্কায় আইনশৃঙ্খলাবাহিনীকে সতর্ক রাখা হয়েছে। তাঁর এমন বক্তব্যের পরদিন ভোরেই থানায় ঘটল এই বিস্ফোরণকাণ্ড। এ ব্যাপারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল জানিয়েছেন, থানায় বোমা বিস্ফোরণের ঘটনার সঙ্গে জঙ্গিযোগ নেই। যাদের আটক করা হয়েছে তারা ডাকাত দলের সদস্য। তাদের কাছে থাকা কিছু একটা থেকে বিস্ফোরণ ঘটেছে। 

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার (মিডিয়া) ওয়ালিদ হোসেন জানিয়েছেন, পল্লবী থানার পুলিশ দু’টি আগ্নেয়াস্ত্র-সহ তিন সন্ত্রাসীকে মঙ্গলবার রাতে আটক করে। তাদের কাছে থাকা ওজন মাপার মেশিনের মতো একটি বস্তু ছিল।  সেটি ডিউটি অফিসারের কক্ষে রাখার পর তা থেকেই বিস্ফোরণ ঘটে। আটক সন্ত্রাসীরা ভাড়াটে খুনি।

পুলিশের উপকমিশনার কৃষ্ণপদ রায় পল্লবী থানা পরিদর্শনে এসে জানিয়েছেন, এই ঘটনার সঙ্গে জঙ্গিযোগের কোনো প্রমাণ মেলেনি।

বর্তমানে রুমি ও রিয়াজ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।  ওসি (তদন্ত) ইমরান ও এসআই সজীবকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। অঙ্কুশ আশঙ্কামুক্ত।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন