খালেদা জিয়া।

ঢাকা: সময়টা কিছুতেই ভালো যাচ্ছে না বাংলাদেশের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার। সোমবার দুর্নীতির একটি মামলায় তাঁকে সাত বছরের সাজা শুনিয়েছে আদালত। এ বার পুরনো একটি মামলায় তাঁর কারাবাসের মেয়াদ পাঁচ থেকে বাড়িয়ে ১০ বছর করে দিল ঢাকা হাইকোর্ট।

গত ফেব্রুয়ারি মাসে এই মামলায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ড পেয়েছেন খালেদা। মঙ্গলবার সকালে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মহম্মদ মুস্তাফিজুর রহমানের গঠিত বেঞ্চ খালেদার কারাবাসের মেয়াদ বাড়িয়ে দেয়।

ফেব্রুয়ারিতে এই সাজা শোনানোর পরে খালেদা জামিন পেলেও আইনি জটিলতায় মুক্তি পাননি। নতুন কারাদণ্ড পাওয়ার পরে ডিসেম্বরে ভোটের আগে তাঁর মুক্তি এক রকম অসম্ভব হয়ে পড়ল বলেই মনে করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন দুর্নীতির অন্য মামলায় ৭ বছরের জেল খালেদা জিয়ার

প্রায় ১১ বছর আগে তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে দুটি দুর্নীতির মামলা শুরু হয়েছিল। জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের নামে ‘অবৈধ উৎস থেকে’ অর্থ সংগ্রহ, সুরাইয়া খান নামের এক জনের কাছে থেকে ৪২ কাঠা জমি কেনায় অনিয়মের অভিযোগ আনা হয়েছিল এই মামলার আসামিদের বিরুদ্ধে। ২০০১-০৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার সময় তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া ‘শহিদ জিয়াউর রহমান চ্যারিটেবল ট্রাস্ট’ নামে ওই সংগঠন তৈরি করেন। ওই সময়ে খালেদার সেনানিবাসের বাড়ির ঠিকানাই এই ট্রাস্টের ঠিকানা হিসেবে উল্লেখ করা হয়। ট্রাস্টের প্রথম ট্রাস্টি খালেদা জিয়া নিজে ও ট্রাস্টের সদস্য তাঁর দুই ছেলে তারেক এবং আরাফাত রহমান।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here