ঋদি হক: ঢাকা

এটিকে উৎসবই বলতে হবে। করোনার টিকা (Covid vaccine) নিয়ে বিভিন্ন দেশে অনেক উড়ো খবরের জন্ম হয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশ (Bangladesh) সব কিছুকে পিছু ফেলে মেতেছে টিকা-উৎসবে।

রবিবার থেকে এক যোগে দেশব্যাপী গণটিকা (mass vaccination) কার্যক্রমের ঘোষণা আগেই ছিল। এ দিন মহাখালি রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হসপিটালে টিকা কার্যক্রমের উদ্বোধন এলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, মৎস্য ও প্রাণীসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম-সহ মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীরা।

বাংলাদেশে যে কোনো ভালো আয়োজনই উৎসবের চেহারা নেয়। করোনা-টিকা প্রদানের বেলায়ও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি। তাই গণটিকা কার্যক্রম শুরুর প্রথম দিনেই সারা দেশে উৎসবমুখর পরিবেশে টিকা গ্রহণ করেছেন সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে ডাক্তার-নার্স ও জনপ্রতিনিধিরা। টিকা গ্রহণে এখন কোনো নিষেধাজ্ঞা থাকছে না। যে কেউ নির্ধারিত সেন্টারে এসেই টিকা নিতে পারবেন।

সস্ত্রীক টিকা নিলেন প্রধান বিচারপতি

এ দিন রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল হাসপাতালে সস্ত্রীক টিকা নিলেন বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। তিনি বলেন, “স্বল্প সময়ে অনেক দেশের আগে বাংলাদেশে টিকার ব্যবহার শুরু হওয়ার কৃতিত্বটা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। আমার স্ত্রী ও আমি টিকা নিয়েছি। আমার এ পর্যন্ত কোনো অসুবিধা হয়নি।”

টিকা নিয়েছেন সস্ত্রীক প্রধান বিচারপতি।

তিনি আরও বলেন, দেশের সর্বোচ্চ আদালতের আপিল বিভাগের তিনি-সহ ৭ বিচারপতি এবং হাইকোর্ট বিভাগের ৪০ জন বিচারপতি টিকা নিয়েছেন। দেশবাসীর প্রতি তাঁর আবেদন, সবাই যেন তাড়াতাড়ি নিবন্ধন করেন এবং টিকা নেন।  

অক্সফোর্ডের টিকা শতভাগ নিরাপদ

ভারতের উপহারের ২০ লাখ এবং বাংলাদেশের আমদানির ৫০ লাখ-সহ ৭০ লাখ টিকা মজুদ রয়েছে। ভারত থেকে ৩ কোটি ডোজ টিকা কিনছে বাংলাদেশ। বাকি আড়াই কোটি ডোজ টিকা পর্যায়ক্রমে আসবে। অক্সফোর্ডের টিকা শতভাগ নিরাপদ। এর কোনো পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নেই বলে মন্তব্য করলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী-সহ বেশ কয়েক জন মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রী।

দেশব্যাপী উৎসব শুরুর প্রথম দিনেই করোনা ভাইরাসের টিকা নেন একাধিক মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী। টিকা নেওয়ার পর সাংবাদিকদের কাছে তাঁদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন।

এ দিন সকালে মহাখালির রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতালে নিজে টিকা নেওয়ার মাধ্যমে দেশব্যাপী টিকাদান কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। পরে একই হাসপাতালে টিকা নেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক, মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান ও জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহম্মদ খুরশীদ আলম, অতিরিক্ত মহাপরিচালক মীরজাদি সেব্রিনা ফ্লোরা প্রমুখ।

মন্ত্রীরা যা বললেন

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, “আমরা যারা এখনও পর্যন্ত টিকা নিয়েছি কারও কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয়নি। প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শে টিকাদান কার্যক্রম সুন্দর ভাবে সম্পন্ন করা হচ্ছে। ৭০ হাজার টিকা আমাদের কাছে মজুদ। ভারত থেকে বাকি টিকা পর্যায়ক্রমে এসে পৌঁছোবে। কেউ অ্যাপসের মাধ্যমে নিবন্ধন করতে না পারলে কেন্দ্রে এসে নিবন্ধন করে টিকা নিতে পারবেন।”

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান বলেন, “করোনার টিকা নিয়েছি আধ ঘণ্টা হয়ে গেছে। কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয়নি।”

টিকা নিচ্ছেন এক চিকিৎসক।

টিকা নেওয়ার পর কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, “টিকা নেওয়ার পর স্বাভাবিক রয়েছি। টিকা নিয়ে খুব আনন্দবোধ করছি।”

মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেন, “টিকা নিয়ে যাতে মানুষের মধ্যে কোনো আতঙ্ক না থাকে সে জন্য আমরা আগেই টিকা নিলাম। পৃথিবীর ১২০টি দেশ এখনও টিকা পায়নি। দেশের সব নাগরিক টিকা পাবে।”

টিকা নেওয়ার পর জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, অক্সফোর্ডের টিকা অত্যন্ত নিরাপদ টিকা। কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। কোনো শঙ্কা না করে নির্দ্বিধায় সবাইকে টিকা নেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

রাজধানী-সহ সারা দেশে করোনা টিকা কার্যক্রম শুরু হয়েছে। জেলা ও উপজেলার হাসপাতালগুলোতে একযোগে করোনার টিকার কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

আরও পড়ুন: স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে দু’ দিনের ঢাকা সফরে যাবেন নরেন্দ্র মোদী, যাত্রীবাহী ট্রেন যাচ্ছে শিলিগুড়িতে

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন