hasina at UNGA

নিউ ইয়র্ক: রাষ্ট্রপুঞ্জের তত্ত্বাবধানে রোহিঙ্গাদের জন্য ‘নিরাপদ অঞ্চল’ তৈরি করুক মায়ানমার। রাষ্ট্রপুঞ্জের সাধারণ সভায় এমনই প্রস্তাব দিলেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গত ২৫ আগস্টের পরে এখনও পর্যন্ত প্রায় চার লক্ষ কুড়ি হাজার রোহিঙ্গা মুসলিম মায়ানমার থেকে পালিয়ে এসে বাংলাদেশের শরণার্থী শিবিরে রয়েছে। এই বিপুল সংখ্যক মানুষের চাপ সহ্য করা যে খুব কষ্টকর সে কথা আগেও বলেছেন হাসিনা। এই হাসিনা বলেন, “এই মানুষগুলোর শান্তিতে, নিরাপদে এবং সসম্মানে নিজেদের দেশে ফিরে যাওয়া উচিত।”

রোহিঙ্গা সমস্যার স্থায়ী সমাধানের জন্য আন্তর্জাতিক মহলকে আরও বেশি করে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান হাসিনা। তথ্য সন্ধানে মায়ানমার যাওয়ার জন্য রাষ্ট্রপুঞ্জের একটি বিশেষ দল তৈরি করার কথাও বলেন তিনি। সেই সঙ্গে তাঁর আবেদন, মায়ানমার যেন কোফি আন্নান কমিটির সুপারিশ মেনে নেয়। উল্লেখ্য, রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব দেওয়ার জন্য মায়ানমারকে সুপারিশ করেছিল কোফি আন্নান কমিটি।

“কক্সবাজারের শরণার্থী শিবিরে আশ্রয় নেওয়া অভুক্ত, পীড়িত মানুষগুলোর দুর্দশা দেখেই এখানে এসেছি। নিজেদের দেশ থেকেই বিতাড়ন করা হচ্ছে তাদের। জাত হিসেবেই তাদের মুছে ফেলতে চাইছে সে দেশের সরকার।” নিজেদের দেশে রোহিঙ্গারা যাতে ফিরতে না পারে সে জন্য সীমান্তবর্তী এলাকায় মায়ানমার সরকারের বিরুদ্ধে ল্যান্ডমাইন পুঁতে রাখারও অভিযোগ করেন হাসিনা। সেই সঙ্গে মায়ানমারের প্রতি তাঁর আবেদন রাখাইন প্রদেশের হিংসা যেন চিরতরে বন্ধ করে দেওয়া হয়।

সন্ত্রাসবাদের প্রতি বাংলাদেশের ‘জিরো টলারেন্স’ নীতির প্রসঙ্গ উল্লেখ করে হাসিনা বলেন, “আমরা যুদ্ধ চাই না, শান্তি চাই। আমরা চাই সমস্ত মানুষ যাতে সুখে এবং শান্তিতে থাকতে পারে।”

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here