Connect with us

বাংলাদেশ

২৬ মার্চ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী, ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত মুজিববর্ষ উদযাপন করবে বাংলাদেশ

আসছে ২৬ মার্চ থেকে চলতি বছরের ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত সুবর্ণজয়ন্তী পালন করা হবে।

Published

on

ঋদি হক: ঢাকা

আগামী ২৬ মার্চ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালনের মহা আয়োজন নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে বাংলাদেশ। দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতে ৫০ জন বীর মুক্তিযোদ্ধা জাতীয় পতাকা নিয়ে ঘুরবেন সারা বাংলাদেশ। সেই শোভাযাত্রাটি যখন যে জেলায় যাবে, সেই জেলায় মহাসমাবেশে মিলিত হয়ে তাঁরা নতুন প্রজন্মের হাতে তুলে দেবেন লালসবুজে খচিত পতাকা। সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন মন্ত্রিসভা কমিটির প্রথম বৈঠক শেষে প্রস্তাবিত রূপরেখা নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী ও আহ্বায়ক আ ক ম মোজাম্মেল হক।

তিনি জানালেন, গত ১৪ ডিসেম্বর ৯ মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীকে নিয়ে গঠন করা হয় মন্ত্রিসভা কমিটি। রবিবার কমিটির প্রথম বৈঠক করেন তাঁরা। মোজাম্মেল হক সাংবাদিকদের জানান, আসছে ২৬ মার্চ থেকে চলতি বছরের ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত সুবর্ণজয়ন্তী পালন করা হবে।

Loading videos...

থিম সং, লোগো, ওয়েবসাইট

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী করোনাভাইরাসের কারণে যথাযথ ভাবে পালন করা সম্ভব হয়নি। সে জন্য সরকার মুজিববর্ষকে আগামী বছরের ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত সম্প্রসারিত করেছে। সে কারণে অনেকগুলো কর্মসূচি সুবর্ণজয়ন্তীর সঙ্গে সমন্বয় করে পালনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আরও জানান, সুবর্ণজয়ন্তীর থিম সং নির্বাচন করতে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদের নেতৃত্বে উপ-কমিটি, লোগোর জন্য শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি এবং ওয়েবসাইট খুলতে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পালকের নেতৃত্বে মোট তিনটি উপ-কমিটি করা গঠন করা হয়েছে। ওই তিন কমিটি ২১ ফেব্রুয়ারির মধ্যে ওয়েবসাইট এবং ফেব্রুয়ারির মধ্যে লোগো এবং চলতি জানুয়ারি মাসের মধ্যেই থিম সং নির্বাচন সম্পন্ন করবে। সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনে বছরব্যাপী কী কর্মসূচি নেওয়া যায় সে বিষয়ে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রকের সচিব তপন কান্তি ঘোষ সভায় প্রস্তাবিত রূপরেখা উপস্থাপন করেন।

অনেক পরামর্শই বৈঠকে উপস্থাপিত হয়েছে। এগুলো একত্রিত করে প্রধানমন্ত্রীর সম্মতি ও তাঁর নির্দেশনা নিয়ে তা চূড়ান্ত করা হবে। ২৬ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন কমিটি এবং সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন কমিটি যৌথ ভাবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করবে। এ কথা জানিয়ে মোজাম্মেল হক বলেন, সুবর্ণজয়ন্তীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে থাকবেন রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রী সভাপতিত্ব করবেন। বিদেশি রাষ্ট্রপ্রধান বা সরকার প্রধানরা সেখানে উপস্থিত থাকবেন।

কর্মসূচি চলবে ২৬ মার্চ থেকে ১৬ ডিসেম্বর

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সচিব তপন কান্তি ঘোষ জানান, ২৬ মার্চের জাতীয় কর্মসূচি যথারীতি চলবে। এর পাশাপাশি বিকেল ৪টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত সুবর্ণজয়ন্তীর বিশেষ উদ্বোধনী অনুষ্ঠান পরিকল্পনায় রয়েছে। কর্মসূচি চলবে ২৬ মার্চ থেকে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত। মানুষের মধ্যে, বিশেষ করে নতুন প্রজন্মের মধ্যে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও ঘটনাবলি, মুক্তিযোদ্ধা ও বীরাঙ্গনাদের অবদান, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠকদের অবদান, স্থানীয় প্রশাসন ও স্থানীয় সরকারের মাধ্যমে পৌঁছে দেওয়া হবে।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী ও আহ্বায়ক আ ক ম মোজাম্মেল হক।

তৈরি করা হবে টিভিসি (টেলিভিশন কমার্শিয়াল), ডকুমেন্টারি, স্বল্প ও পূর্ণদৈর্ঘ্যের চলচ্চিত্র। ৫০টি পতাকা নিয়ে ৫০ জন মুক্তিযোদ্ধা ২৬ মার্চ থেকে সুবর্ণজয়ন্তী শোভাযাত্রা শুরু করবেন। সেটি ৬৪ জেলা প্রদক্ষিণ করে ১৬ ডিসেম্বর ঢাকায় এসে শেষ হবে। রয়েছে অনলাইন কুইজ প্রতিযোগিতা। সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধের গল্প বলার অনুষ্ঠানে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা গল্প বলবেন। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে যাঁরা গণহত্যার বিষয় নিয়ে কাজ করেন তাঁদের নিয়ে সেমিনার করা হবে বলে সচিব জানান।

সচিব আরও জানান, বিভাগীয় ও জেলা পর্যায়ে ‘মুক্তির উৎসব’ বা ‘স্বাধীনতার উৎসব’ নামে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। তিনি বলেন, ১৯৭১ সাল থেকে ৫০ বছরে বাংলাদেশ যে উন্নয়নশীল দেশে রূপান্তরিত হয়েছে সেই সাফল্যগাথা তুলে ধরা হবে। সেটি যেমন চলচ্চিত্র বা ডকুমেন্টারির মাধ্যমে হবে, তেমনই এ বিষয়ে ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস শীর্ষ সম্মেলনেরও চিন্তা করা হচ্ছে। সাহিত্যিক, নোবেল লরিয়েট, অর্থনীতিবিদদের নিয়েও বিভিন্ন সম্মেলন আয়োজনেরও চিন্তা করা হয়েছে।

মুক্তিযোদ্ধারা শোনাবেন নিজেদের কাহিনি

মুক্তিযুদ্ধের ভ্রাম্যমাণ চলচ্চিত্র প্রদর্শনী হবে। আরেকটি প্রস্তাব এসেছে ‘বীরের কন্ঠে বীর গাথা’ কর্মসূচি রূপায়িত করার। যে ৯০ হাজার বা এক লাখ মুক্তিযোদ্ধা জীবিত আছেন তাঁদের সবার কাহিনি – কেন মুক্তিযুদ্ধে গেলেন, কী অবদান রাখলেন, তাঁদের জীবনদর্শন – সে সব ভিডিও করা হবে, যার আর্কাইভ করা হবে। মিত্রবাহিনীর যাঁরা ১৯৭১ সালের যুদ্ধে জীবন দিয়েছেন, তাঁদের স্মরণে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে একটি স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করা হবে বলে জানান মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রকের সচিব।

তিনি আরও বলেন, মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশের উন্নয়ন বিষয়ক পুস্তক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, মুক্তিযোদ্ধা কর্নার ও সব গ্রন্থাগারে ব্যাপক ভাবে ছড়িয়ে দেওয়া হবে। তিন ধরনের বই ছাপানোর চিন্তা করা হচ্ছে, এ কথা জানিয়ে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী বলেন, প্রাথমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের জন্য এক ধরনের, ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য অন্য এক ধরনের এবং কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আরেক ধরনের বই ছাপিয়ে সেগুলো ছেলেমেয়েদের কাছে বিনামূল্যে পৌঁছে দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের প্রেক্ষাপট ও মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানীদের নির্যাতন নিপীড়ন নিয়ে শর্টফিল্ম করে তা গ্রামেগঞ্জে, হাট-বাজারে প্রচার করা হবে বলেও জানান মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী।

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা

সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনের প্রস্তাবিত রূপরেখায় বলা হয়েছে, প্রত্যেক জীবিত বীর মুক্তিযোদ্ধাকে প্রধানমন্ত্রীর স্বাক্ষরিত চিঠি পাঠানো হবে। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বিশেষ উত্তরীয়/ টি-শার্ট/ক্যাপ এবং বীরাঙ্গনাদের শাড়ি/শাল উপহার দেওয়া হবে। মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক ভ্রাম্যমাণ চলচ্চিত্র প্রদর্শনী হবে। উপজেলা পর্যায়ে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সমাবেশ এবং কেন্দ্রীয় ভাবে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মহাসমাবেশ হবে। এ ছাড়া সুবিধাজনক সময়ে সুবর্ণজয়ন্তী সৌধ, মিনার বা কলাম নির্মাণ করা হবে। মুক্তিযুদ্ধ পদক প্রবর্তন করা হবে। মুক্তিযুদ্ধের ১১টি সেক্টরের হেড কোয়ার্টাসে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করার পরিকল্পনা প্রস্তারিত রূপরেখায় রয়েছে।

আরও পড়ুন: বিদেশি রাষ্ট্রদূতদের ভাসানচর পরিদর্শনে নিয়ে যাবে বাংলাদেশ সরকার

বাংলাদেশ

‘জয়িতা অন্বেষণে বাংলাদেশ’, জীবনযুদ্ধে জয়ী পাঁচ নারীর কথা

‘জয়িতা’ হচ্ছে সমাজের সকল বাধাবিপত্তি অতিক্রম করে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সফল নারীর একটি প্রতীকী নাম।

Published

on

ঋদি হক: ঢাকা

তাঁরা নিজেদের আলোয় আলোকিত করে সমাজের মলিনতা দূর করেছেন। শুভবোধের সারথি হয়ে পিছিয়ে পড়া নারীসমাজকে জাগিয়ে তোলার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। নারীই ঈশ্বর! হ্যাঁ, কেন নয়, বলুন তো? নারী আমার ‘মা’, দেশ আমার ‘মা’, সহোদরা, স্ত্রী এবং পথ চলার ‘শক্তি’ হচ্ছে নারী। সেই তিনিই তো ঈশ্বর। তাতে অবাক হওয়ার কী আছে? যুক্তি তুলে ধরার প্রয়োজন রয়েছে বলেও সমাজচিন্তকরা মনে করেন না। কারণ নারীজাতিই আমাদের সকল প্রেরণার মন্ত্র। তাই নারী-ই ঈশ্বর, তা বার বার প্রমাণিত। এই বিশ্বাসটি আরও মজবুত করলেন লাভলি ইয়াসমিন, ড. মুসলিমা মুন, রাবেয়া বেগম, সানজিদা রহমান আদরী এবং অঞ্জনাবালা বিশ্বাস।

হাসিনা সরকারের মহৎ উদ্যোগ

খুলনা বিভাগীয় মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের উপপরিচালক নার্গিস ফাতিমা জামিন ‘খবর অনলাইন’কে বলেন, বাংলাদেশের মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রক চলতি বছরে নানা বিভাগে দেশের পাঁচ জন আলোকিত নারীকে পুরস্কৃত করেছে। সমাজে নানা ক্ষেত্রে অসামান্য অবদানের জন্য খুলনা বিভাগের পাঁচ নারী নিজেদের প্রতিভায় শ্রেষ্ঠত্বের আসনে অধিষ্ঠিত হয়েছেন। হাসিনা সরকারের নানা উদ্যোগ ভিন্ন মাত্রা পেয়েছে।

Loading videos...

আগে শ্রেষ্ঠ জয়িতারা পেতেন ১০ হাজার টাকা, একটি ক্রেস্ট, সনদপত্র এবং উত্তরীয়। এ বার থেকে বিভাগীয় পর্যায়ে টাকার অঙ্কটা দাঁড়িয়েছে ২৫ হাজারে। আর জেলা পর্যায়ে ২ হাজার থেকে বেড়ে ৫ হাজারে উন্নীত করা হয়েছে। অবশ্য এটি এসেছে মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরার হাত ধরেই। তাঁর উদ্যোগে এ বার খুলনা বিভাগে যে পাঁচ জন নারী জয়িতার সম্মান অর্জন করেছেন, তাঁরা প্রত্যেকে পেয়েছেন ২৫ হাজার টাকার চেক, একটি ক্রেস্ট ও সনদপত্র। বিশাল আয়োজনের মধ্য মধ্য দিয়ে তাঁদের সম্মান জানানো হয়। 

সম্মুখে যুদ্ধে জয়ী লাভলি

এই আলোকিত নারীদের গল্প সমাজকে শুধু আলোকিতই করে না, নারীসমাজকে সকল বাধাবিপত্তি ডিঙিয়ে সামনে এগিয়ে যাওয়ার মন্ত্র শেখায়। তাঁরাই আমাদের সমাজে শুভবোধের সারথি। তাঁদের হাত ধরেই সমাজের মলিনতা দূর হয়। এমন পাঁচ নারীর একজন লাভলি ইয়াসমিন।

সময়টা ২০০১ সাল। অকস্মাৎ চাকরি হারান স্বামী। সংসারে স্কুলপড়ুয়া সন্তান। দু’ চোখের সামনে তখন ঘোর অন্ধকার!  কিন্তু হাত গুটিয়ে বসে থাকেননি তিনি। নিজের মানসিক শক্তি এবং নিজ উদ্যোগে মাছচাষে লেগে যান লাভলি ইয়াসমিন। এ পর্যায়ে মহিলা বিষয়ক অফিস এবং পরবর্তী কালে যুব উন্নয়ন অফিস থেকে ঋণ পান। এর পরই মৎস্য অফিস তাঁর পাশে দাঁড়ায়। সেখান থেকে লাখ টাকার ঋণ পাওয়ার পর পায়ের তলার মাটি আরও পোক্ত হয় লাভলির। এ ভাবেই ঝিনাইদহের গল্প হয়ে ওঠেন লাভলি ইয়াসমিন।

সেই লাভলি ইয়াসমিনই আজ ঝিনাইদহের উত্তরকাষ্ট সাগরা গ্রামের মাটিকে ধন্য করেছেন। গ্রামের সাধারণ এক গৃহিণী থেকে অর্থনৈতিক ভাবে সাফল্য অর্জনকারী লাভলি ইয়াসমিন এখন ঝিনাইদহের ঘরে ঘরে আলোচিত।

ড. শেখ মুসলিমা মুন

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে শহিদ হন বাবা। মায়ের স্বল্প আয়ের অর্থে চার ভাইবোনকে নিদারুণ কষ্টের মধ্যে লেখাপড়া করতে হয়েছে। বিয়ের পরও লেখাপড়ার ইচ্ছেটা বাতিল করতে পারেননি। বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডিভিএম (ডক্টর অব ভেটেরিনারি মেডিসিন) ডিগ্রি অর্জন করেন। সংসার ও সন্তান লালনপালনের পাশাপাশি সামনে এগিয়ে যাওয়ার মন্ত্র থেকে পিছু হঠেননি। ১৯তম বিসিএস পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে প্রাণীসম্পদ ক্যাডারে যোগ দেন।

২০০৭ সালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলাদেশের গ্রামীণ সমাজের প্রেক্ষাপটে প্রাণীসম্পদ উৎপাদন ব্যবস্থাপনায় লিঙ্গীয় সম্পর্ক ও নারী ক্ষমতায়ন বিষয়ে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন ড. মুন। ঢাকায় বাংলাদেশ মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের অতিরিক্ত পরিচালক হিসেবে কর্মরত।

শিক্ষা ও চাকরি ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জনকারী নারীর নাম ড. শেখ মুসলিমা মুন। নড়াইলের কালিয়া উপজেলার রামনগর এলাকার আলোকিত নারী তিনি।

সফল জননী রাবেয়া বেগম

রাবেয়া বেগমের বয়স ৬১ বছর। খুলনার পাইকগাছা উপজেলার শিবসা ব্রিজ রোড এলাকার বাতিখালির বাসিন্দা রাবেয়া একজন সফল জননী। স্বামী ছিলেন বেসরকারি কলেজের শিক্ষক। সংসারে আর্থিক অনটন পিছু ছাড়েনি।

এ অবস্থায় সন্তানদের লেখাপড়া এবং সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হত তাঁকে। সংসারের দৈন্যদশা ঘোচাতে বাড়িতে হাঁস-মুরগি পালনের পাশাপাশি বাড়ির আঙিনায় সবজি চাষ শুরু করেন। এর পর বাড়ির পাশের ছোটো পুকুরে মাছচাষে হাত লাগান।

সংসারের চাহিদা মিটিয়েও নিজের উৎপাদিত সবজি, মাছ, মাংস, ডিম বিক্রি শুরু করেন তিনি। সেই টাকা ব্যয় করেছেন সন্তানদের লেখাপড়ায়। রাবেয়া বেগমের যুদ্ধটা থেমেছে, তাঁর চার সন্তানকে সমাজে প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে। 

সানজিদা রহমান আদরী

২০০১ সালটি তাঁর জীবনের কালো অধ্যায়। সে বার কলেজ থেকে বাড়ি ফিরছিলেন আদরী। সেই সময় বখাটেদের অ্যাসিড সন্ত্রাসের শিকার হন তিনি। ঘাড় থেকে শরীরের বাম পাশ বেয়ে কোমর পর্যন্ত অ্যাসিডে ঝলসে যায়। দু’ চোখ বন্ধ হয়ে আসে। যন্ত্রণায় ছটফট করতে থাকে বাবার আদরের ফুটফুটে আদরী। বাবা মুজিবর রহমানের গগন বিদারী চিৎকার সে দিন জাগাতে পারেনি সমাজের বিবেক! বরং উলটে শাসিয়েছে সন্ত্রাসীরা।

টানা প্রায় ছ’ মাস চিকিৎসার শেষে চোখের জলে বুক ভাসিয়ে মেয়েকে নিয়ে বাড়ি ফিরেন বাবা। মামলা করায় জীবননাশের হুমকিতে পড়তে হয়। বাধ্য হয়ে মামলা তুলে নিলেন আদরীর অসহায় বাবা। নেপথ্যে হাসল সমাজপতিরা। কিন্তু হাল ছাড়েননি আদরী। পাষণ্ডদের মুখে লাথি মেরে ফের কলেজে ভর্তি হলেন সানজিদা রহমান আদরী।

তবে সানজিদার প্রতি সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেয় ব্র্যাকের সামাজিক কর্মসূচির আওতায় গঠিত পল্লীসমাজ। মূলত এই কর্মসূচির অনুপ্রেরণায়ই বিভীষিকাময় সব স্মৃতিকে মাড়িয়ে শিরদাঁড়া টান টান করে ফের কলেজের পথে পা বাড়ান আদরী। এর পর ২০১৪ সালে সবাইকে তাক লাগিয়ে স্নাতক পাশ করেন। নড়াইল পৌরসভার টিকাদান কর্মসূচিতে নড়াইল সদর হাসপাতালে কর্মরত রয়েছেন সানজিদা রহমান আদরী। সমাজপতিদের চোখরাঙানি এবং বখাটে পাষণ্ডদের সকল বাধা ডিঙিয়ে সানজিদা এখন সফল। কোথাও অ্যাসিডে সন্ত্রাসের খবর পেলেই ছুটে যান। যথাসম্ভব সহায়তা করেন নির্যাতিতাকে। নড়াইল সদরের সীমাখালী গ্রামের বাসিন্দা সানজিদা রহমান আদরী সমাজে এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত।

অঞ্জনা বালা বিশ্বাস

১৯৭১’র কালো দিনে পাকিস্তানি বাহিনীর জারজ সন্তান রাজাকার-আলবদররা বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায় স্বামী-সন্তানসহ অঞ্জনা বালা বিশ্বাসকে। এর পর ধারাবাহিক শারীরিক নির্যাতন। সেখান থেকে ছাড়া পেয়ে নির্যাতনের ক্ষতকে শক্তিতে পরিণত করেন। সংকল্প নিলেন, যত দিন বর্বর পাকিস্তানি এবং এ দেশীয় কুলাঙ্গারদের কবল থেকে দেশ মুক্ত না হবে, তত দিন মুক্তিযোদ্ধাদের সাহায্য করবেন। অঞ্জনা বালার নেওয়া ছিল সিভিল ডিফেন্সে প্রাথমিক চিকিৎসার প্রশিক্ষণ। এই প্রশিক্ষণ কাজে লাগল তাঁর। সকল বাধা ডিঙিয়ে ডিঙ্গিয়ে যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসায় ঝাঁপিয়ে পড়েন অঞ্জনা।

খুলনার ডুমুরিয়া রূপরামপুরের অঞ্জনার জন্ম ১৯৪৬ সালে। আমাদের সমাজে অঞ্জনা বালা হচ্ছে উদাহরণের এক বাতিঘর। মুক্তিযুদ্ধের শক্তি যত দিন থাকবে, তত দিন অঞ্জনা বালা বিশ্বাসের এই অসামান্য অবদান অমলিন থাকবে।

উল্লেখ্য, মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের নানামুখী কর্মকাণ্ডের মধ্যে একটি অন্যতম কার্যক্রম ‘জয়িতা অন্বেষণে বাংলাদেশ’। ‘জয়িতা’ হচ্ছে সমাজের সকল বাধাবিপত্তি অতিক্রম করে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সফল নারীর একটি প্রতীকী নাম। মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রকের দিক নির্দেশনায় ও মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের উদ্যোগে প্রতি বছর আর্ন্তজাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ (২৫ নভেম্বর হতে ১০ ডিসেম্বর) এবং বেগম রোকেয়া দিবস (৯ ডিসেম্বর) উদযাপন কালে দেশব্যাপী ‘জয়িতা অন্বেষণে বাংলাদেশ’ শীর্ষক একটি অভিনব প্রচারাভিযান চলে। সমগ্র সমাজ নারীবান্ধব হবে এবং এতে করে সমতাভিত্তিক সমাজ বিনির্মাণ ত্বরান্বিত করবে, এই লক্ষ্যকে সামনে রেখে কার্যক্রমটি শুরু করা হয়েছে। এর ফলে বিভিন্ন ক্ষেত্রে তৃণমূল বিভিন্ন নারী তথা জয়িতাদের অনুপ্রাণিত করে আসছে।

আরও পড়ুন: কোভিডে মৃতের পরিবারকে দশ লক্ষ টাকার সহায়তা দিল বাংলাদেশের ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড

Continue Reading

বাংলাদেশ

কোভিডে মৃতের পরিবারকে দশ লক্ষ টাকার সহায়তা দিল বাংলাদেশের ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড

ডা. নির্মলেন্দু চৌধুরীর পরিবারকে এই সহায়তা দেওয়া হল।

Published

on

প্রয়াত ডা. নির্মলেন্দু চৌধুরীর পরিবারকে দশ টাকার সহায়তা দিল ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড।

ঋদি হক: ঢাকা

বাংলাদেশের খ্যাতনামা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড (Diamond World)। প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার দিলীপ কুমার আগরওয়াল (Dilip Kumar Agarwal)। যে কোনো দুর্যোগে নীরবে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর মানুষিকতা তাঁকে অনুকরণযোগ্য করেছে। তিনিই আমাদের শুভবোধের সারথি। চলমান করোনাকালীন সময়েও থেমে নেই তাঁর কর্মকাণ্ড। কোভিডে ১৯-এ (Covid 19) প্রাণ হারানো ডা. নির্মলেন্দু চৌধুরীর (Dr. Nirmalendu Chowdhury) পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হল ১০ লক্ষ টাকার চেক।

বগুড়া জেলা জুয়েলার্স সমিতি আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বগুড়ার কৃতী সন্তান প্রয়াত নির্মলবাবুর স্ত্রী উষারানি চৌধুরীর হাতে ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ডের তরফে প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক দিলীপ কুমার আগরওয়াল এই চেক তুলে দেন। চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতির সভাপতি, বগুড়া চেম্বারের প্রেসিডেন্ট ও বগুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার-সহ সুধী সমাজের প্রতিনিধিরা এবং বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার মানুষ। 

Loading videos...

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) প্রাদুর্ভাব মোকাবিলায় দেশব্যাপী লকডাউনের শুরুতে অনেকেই যখন জীবন-মরণ ও লাভ-ক্ষতির হিসাব কষছিল, তখনই ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড যে কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতিতে তাদের দশ হাজার গ্রাহকের পাশে থাকতে তাঁদের জন্য ১০ লক্ষ টাকার ফ্রি জীবনবিমার কথা ঘোষণা করেছিল। এই দশ হাজার গ্রাহকের হয়ে পুরো প্রিমিয়ামই পরিশোধ করছে আইএসও স্বীকৃত প্রতিষ্ঠানটি। ডাঃ নির্মলেন্দু চৌধুরী ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ডের ক্রেতা হওয়ায় তাঁর পরিবার এই সহায়তা পেল।

এ সম্পর্কে ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক দিলীপ কুমার আগরওয়ালা বলেন, যে কোনো পরিস্থিতিতে গ্রাহকদের পাশে থাকাই তাঁর এবং তাঁর প্রতিষ্ঠানের ধর্ম। তিনি মনে করেন, তাঁদের প্রতিটি গ্রাহকই তাঁদের পরিবারের এক জন সদস্য। আর তাঁরা তাঁদের প্রতিটি গ্রাহকের পাশে থাকতে চান – কেবল সুখের দিনে নয়, দুঃখের দিনেও।

আরও পড়ুন: টাঙ্গাইলে জেলাশাসকের মানবিক উদ্যোগ, শীতবস্ত্র ও কম্বল বিতরণ

Continue Reading

বাংলাদেশ

টাঙ্গাইলে জেলাশাসকের মানবিক উদ্যোগ, শীতবস্ত্র ও কম্বল বিতরণ

শৈত্যপ্রবাহে মানুষ যখন ধুঁকছে, ঠিক সেই সময়টিতে টাঙ্গাইলে যৌনকর্মীদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করলেন তিনি।

Published

on

টাঙ্গাইলে যৌনকর্মী ও শিশুদের মধ্যে শীতবস্ত্র ও কম্বল বিতরণ।

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা: এই বিশ্ব মানুষের। বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠা থেকে শুরু করে যত রকম কল্যাণকর কাজ হয়ে চলেছে তা সবই মানবজাতিকে কেন্দ্র করেই। ‘সবার উপরে মানুষ সত্য, তাহার উপরে নাই’, এটি অনেক আগেই বলা হয়েছে। কোনো কোনো লেখকও তাঁদের পুরষ্কারের অর্থ অসহায় মানুষের কল্যাণে দান করতে দ্বিধা করেননি।

করোনা-আক্রান্ত বর্তমান বিশ্বে মানবিক নজির গড়েছেন, এমন অসংখ্য উদাহরণ তুলে ধরা যায়। এমনিই মানবিক উদ্যোগে হাত লাগালেন বাংলাদেশের টাঙ্গাইলের জেলাশাসক। শৈত্যপ্রবাহে মানুষ যখন ধুঁকছে, ঠিক সেই সময়টিতে টাঙ্গাইলে যৌনকর্মীদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করলেন তিনি। 

জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে প্রায় পাঁচ শতাধিক যৌনকর্মী শীতবস্ত্র তো পেয়েছেন, তবে সেটাই সব নয়। দুই শতাধিক শিশুও পেয়েছে শীতবস্ত্র। পাশাপাশি দেওয়া হয়েছে কম্বলও।

Loading videos...

বৃহস্পতিবার টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শহরের কান্দাপাড়া এলাকার যৌনপল্লিতে যৌনকর্মী ও শিশুদের মাঝে শীতবস্ত্র ও কম্বল বিতরণ করা হয়।

টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত জেলাপ্রশাসক (সার্বিক) মো. আমিনুল ইসলাম, টাঙ্গাইল সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. সাইদুল ইসলাম, সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. খায়রুল ইসলাম-সহ বিভিন্ন পর্যায়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন: ভারত থেকে পৌঁছোল টিকা-উপহার, নরেন্দ্র মোদীকে অভিনন্দন শেখ হাসিনার

Continue Reading
Advertisement
Advertisement
পূর্ব মেদিনীপুর42 mins ago

আরও বিধায়ক তৃণমূল ছাড়বেন, তাঁদের আসনেও কি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় লড়বেন, প্রশ্ন শুভেন্দু অধিকারীর

রাজ্য47 mins ago

রাজ্যে দৈনিক সংক্রমণের হার নেমে এল ১.১৬ শতাংশে

দেশ2 hours ago

১০ দিনে করোনা টিকা নিলেন ২০ লক্ষের বেশি স্বাস্থ্যকর্মী! কোন রাজ্যে কত

দেশ3 hours ago

কৃষক বিক্ষোভে উত্তাল দিল্লি, পরিস্থিতি মোকাবিলায় অতিরিক্ত আধা সেনা

প্রযুক্তি4 hours ago

টিকটক-সহ ৫৯টি চিনা অ্যাপ চিরতরে বন্ধ করে দিল কেন্দ্র

marchpast of black cat commando
দেশ5 hours ago

দিল্লিতে সাধারণতন্ত্র দিবসে নজিরবিহীন প্যারেড, প্রদর্শনীতে এই প্রথম রাফাল, নজর কাড়ল পশ্চিমবঙ্গের ‘সবুজসাথী’

কলকাতা5 hours ago

উত্তর কলকাতার অলিতেগলিতে লুকিয়ে রয়েছে ইতিহাস, সাধারণতন্ত্র দিবসে হেঁটে দেখা

সাংবাদিক বৈঠকে প্রবীর ঘোষাল
রাজ্য6 hours ago

দলের সমস্ত পদ ছেড়ে বিস্ফোরক তৃণমূল বিধায়ক প্রবীর ঘোষাল

শরীরস্বাস্থ্য3 days ago

থাইরয়েড ধরা পড়েছে? এই খাবারগুলি সম্পর্কে সচেতন হন

রাজ্য2 days ago

তৃণমূলে যোগ দিলেন অভিনেত্রী কৌশানী মুখোপাধ্যায়, প্রিয়া সেনগুপ্ত

ফুটবল1 day ago

বিমান দুর্ঘটনায় মৃত্যু ব্রাজিলের ফুটবল ক্লাবের প্রেসিডেন্ট ও চার ফুটবলারের

প্রযুক্তি3 days ago

৪২ শতাংশ কিশোরী দিনে এক ঘণ্টারও কম সময় মোবাইল ফোন ব্যবহারের সুযোগ পায়: সমীক্ষা

রাজ্য2 days ago

উন্নয়ন দেখাতে ‘ছানিশ্রী’ প্রকল্প করবে সরকার, বিজেপিকে কটাক্ষ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের

election
রাজ্য2 days ago

রাজ্যে আসতে পারে এক লক্ষ আধা সেনা

ladakh standoff
দেশ2 days ago

সীমান্ত বিতর্কে নবম দফার বৈঠকে ভারত, চিন

কলকাতা1 day ago

নারকেলডাঙার ছাগলপট্টিতে আগুন, হতাহতের খবর নেই

কেনাকাটা

কেনাকাটা3 days ago

বাসন্তী রঙের পোশাক খুঁজছেন?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই আসছে সরস্বতী পুজো। সেই দিন হলুদ বা বাসন্তী রঙের পোশাক পরার একটা চল রয়েছে অনেকের মধ্যেই। ওই...

কেনাকাটা3 days ago

ঘরদোরের মেকওভার করতে চান? এগুলি খুবই উপযুক্ত

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘরদোর সব একঘেয়ে লাগছে? মেকওভার করুন সাধ্যের মধ্যে। নাগালের মধ্যে থাকা কয়েকটি আইটেম রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার...

কেনাকাটা4 days ago

সিলিকন প্রোডাক্ট রোজের ব্যবহারের জন্য খুবই সুবিধেজনক

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন সামগ্রী এখন সিলিকনের। এগুলির ব্যবহার যেমন সুবিধের তেমনই পরিষ্কার করাও সহজ। তেমনই কয়েকটি কাজের সামগ্রীর খোঁজ...

কেনাকাটা5 days ago

আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আজ রইল আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার সময় যে দাম ছিল...

কেনাকাটা5 days ago

রান্নাঘরের এই সামগ্রীগুলি কি আপনার সংগ্রহে আছে?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরে বাসনপত্রের এমন অনেক সুবিধেজনক কালেকশন আছে যেগুলি থাকলে কাজ অনেক সহজ হয়ে যেতে পারে। এমনকি দেখতেও সুন্দর।...

কেনাকাটা6 days ago

৫০% পর্যন্ত ছাড় রয়েছে এই প্যান্ট্রি আইটেমগুলিতে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: দৈনন্দিন জীবনের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসগুলির মধ্যে বেশ কিছু এখন পাওয়া যাচ্ছে প্রায় ৫০% বা তার বেশি ছাড়ে। তার মধ্যে...

কেনাকাটা1 week ago

ঘরের জন্য কয়েকটি খুবই প্রয়োজনীয় সামগ্রী

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যদিনের প্রয়োজনীয় ও সুবিধাজনক বেশ কয়েকটি সামগ্রীর খোঁজ রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদনটি লেখার সময় যে দাম ছিল তা-ই...

কেনাকাটা2 weeks ago

৯৯ টাকার মধ্যে ব্র্যান্ডেড মেকআপের সামগ্রী

খবর অনলাইন ডেস্ক : ব্র্যান্ডেড সামগ্রী যদি নাগালের মধ্যে এসে যায় তা হলে তো কোনো কথাই নেই। তেমনই বেশ কিছু...

কেনাকাটা3 weeks ago

কয়েকটি ফোল্ডিং আইটেম খুবই কাজের

খবরঅনলাইন ডেস্ক: এমন অনেক কিছুই থাকে যেগুলি সঙ্গে থাকলে অনেক সুবিধে হত বলে মনে হয়, কিন্তু সব সময় তা পাওয়া...

কেনাকাটা3 weeks ago

রান্নাঘরের কাজ এগুলি সহজ করে দেবেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরের কাজ অনেক বেশি সহজ করে দিতে পারে যে সমস্ত জিনিস, তারই কয়েকটির খোঁজ রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন...

নজরে