Connect with us

বাংলাদেশ

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে রাষ্ট্রপুঞ্জে ফের প্রস্তাব গৃহীত

চতুর্থ বারের এই প্রস্তাবটিতে মায়ানমারকে সুনির্দিষ্ট কিছু বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণের জন্যও আহ্বান জানানো হয়েছে।

Published

on

রাষ্ট্রপুঞ্জের সাধারণ পরিষদের অধিবেশন।

ঋদি হক: ঢাকা

এ বার নিয়ে টানা চার বার রাষ্ট্রপুঞ্জের সাধারণ পরিষদে (UN General Assembly) রোহিঙ্গাদের (Rohingya) বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের প্রস্তাব গৃহীত হল। রাষ্ট্রপুঞ্জে বাংলাদেশের (Bangladesh) স্থায়ী প্রতিনিধির কার্যালয় থেকে পাঠানো এক বার্তায় বলা হয়েছে, বুধবার সাধারণ পরিষদের তৃতীয় কমিটিতে বিপুল ভোটে চতুর্থ বারের মতো প্রস্তাবটি গৃহীত হয়।

মায়ানমারের (Myanmar) রোহিঙ্গা মুসলিম ও অন্যান্য সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানবাধিকার বিষয়ক প্রস্তাবটি রাষ্ট্রপুঞ্জ ধারাবাহিক ভাবে সমর্থন করায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে ধন্যবাদ জানিয়েছেন রাষ্ট্রপুঞ্জে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি (Permanent Representative) রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা (Rabab Fatima)।

Loading videos...
রাবাব ফাতিমা।

ওআইসি ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন যৌথ ভাবে প্রস্তাবটি উত্থাপন করে। আর এই প্রস্তাবে সমর্থন জানান ১০৪টি দেশ। প্রস্তাবের সমর্থনে বক্তৃতা করেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের পক্ষে জার্মানির স্থায়ী প্রতিনিধি এবং ওআইসি’র পক্ষে সৌদি আরবের স্থায়ী প্রতিনিধি। মায়ানমারে মানবাধিকার লঙ্ঘন-সহ নানা সহিংসতার শিকার হচ্ছেন রোহিঙ্গা মুসলিম ও অন্যান্য সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষজন। রাষ্ট্রপুঞ্জে গৃহীত প্রস্তাবটি বাংলাদেশের প্রতি বিপুল সংখ্যক সদস্য রাষ্ট্রের শক্তিশালী, ঐক্যবদ্ধ ও অকুণ্ঠ সমর্থনেরই বহিঃপ্রকাশ। আন্তর্জাতিক ন্যায়বিচার আদালতের সাময়িক আদেশ, আন্তর্জাতিক ফৌজদারি আদালতের তদন্ত শুরুর বিষয় এবং রোহিঙ্গা ও অন্য সংখ্যালঘুদের মায়ানমারের জাতীয় নির্বাচন-সহ অন্যান্য ক্ষেত্রে অব্যাহত ভাবে বঞ্চিত করার মতো নতুন বিষয়গুলো উঠে এল এ বারের প্রস্তাবে।

চতুর্থ বারের এই প্রস্তাবটিতে মায়ানমারকে সুনির্দিষ্ট কিছু বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণের জন্যও আহ্বান জানানো হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব প্রদান-সহ সমস্যাটির মূল কারণ খুঁজে বের করা, প্রত্যাবর্তনের উপযোগী পরিবেশ তৈরি করে রোহিঙ্গাদের নিরাপদ ও স্থায়ী প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করা, প্রত্যাবর্তনের ক্ষেত্রে আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধির পদক্ষেপ হিসেবে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সংঘটিত অপরাধের জন্য দায়ী ব্যক্তিদের জবাবদিহি নিশ্চিত করা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ সরকার বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের সুরক্ষা ও আশ্রয়দানের ক্ষেত্রে যে অনুকরণীয় মানবিক দৃষ্টান্ত প্রদর্শন করেছে তার ভূয়সী প্রশংসা করা হয়েছে প্রস্তাবে। কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মতো বিশ্বের সর্বাপেক্ষা বড়ো আশ্রয়শিবিরে কোভিড-১৯ মহামারির বিস্তার রোধে বাংলাদেশ সরকারের সফল প্রচেষ্টার স্বীকৃতিও দেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশে গৃহীত বিভিন্ন মানবিক প্রচেষ্টাকে সমর্থন করার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতিও আহ্বান জানানো হয়েছে ওই প্রস্তাবে।

রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা বলেন, এক মিলিয়নেরও বেশি বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাকে আশ্রয়দানকারী দেশ হিসেবে বাংলাদেশ অব্যাহত ভাবে এই সংকটের শান্তিপূর্ণ সমাধানের পথ খুঁজছে, যা নিহিত রয়েছে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের নিরাপদ ও মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবর্তনের মধ্যে। তিনি আশা প্রকাশ করেন, রোহিঙ্গা সংকটের জরুরি সমাধানের লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আহ্বানকে প্রস্তাবটি জোরদার করবে।

খবরঅনলাইনে আরও পড়ুন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী ধর্ষণকাণ্ডে আসামির যাবজ্জীবন

বাংলাদেশ

স্বীকৃতির দিনেই স্বাক্ষর হচ্ছে বাংলাদেশ-ভুটান পিটিএ, বাড়বে দু’ দেশের বাণিজ্য

বর্তমানের ১০০টির সঙ্গে আরও ১০টি যুক্ত হয়ে মোট ১১০টি পণ্য ভুটানে শুল্কমুক্ত সুবিধায় রফতানির সুযোগ থাকবে বাংলাদেশের। অন্য দিকে ১৮টির সঙ্গে নতুন আরও ১৬টি যুক্ত হয়ে ৩৪টি পণ্য শুল্কমুক্ত সুবিধায় বাংলাদেশে রফতানির সুযোগ পাবে ভুটান।

Published

on

দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী। ছবি সংগৃহীত।

ঋদি হক: ঢাকা

১৯৭১ সালের ৬ ডিসেম্বর স্বাধীন বাংলাদেশকে প্রথম স্বীকৃতি দিয়েছিল ভুটান। দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতেই বাংলাদেশ (Bangladesh) ও ভুটানের (Bhutan) মধ্যে ব্যবসা ও বাণিজ্য বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রেফারেনশিয়াল ট্রেড এগ্রিমেন্ট (পিটিএ, Preferential Trade Agreement, PTA) স্বাক্ষরিত হতে যাচ্ছে।

বর্তমানের ১০০টির সঙ্গে আরও ১০টি যুক্ত হয়ে মোট ১১০টি পণ্য ভুটানে শুল্কমুক্ত সুবিধায় রফতানির সুযোগ থাকবে বাংলাদেশের। অন্য দিকে ১৮টির সঙ্গে নতুন আরও ১৬টি যুক্ত হয়ে ৩৪টি পণ্য শুল্কমুক্ত সুবিধায় বাংলাদেশে রফতানির সুযোগ পাবে ভুটান। ওই দিন ভার্চুয়াল চুক্তি-স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে ভাষণ দেবেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী (Bangladesh PM) শেখ হাসিনা (Sheikh Hasina) এবং ভুটানের প্রধানমন্ত্রী (Bhutanese PM) ড. লোটে শেরিং (Dr. Lotay Tshering)।

Loading videos...

এর আগে ২৬ নভেম্বর বাংলাদেশে ভুটানের নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত রিনচেন কুয়েন্টসিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারি বাসভবন গণভবনে তাঁর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করে এই বিষয়টি তাঁকে অবগত করান। সেই সাক্ষাৎকালেই রাষ্ট্রদূত পিটিএ-র সকল প্রয়োজনীয় প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার কথা শেখ হাসিনাকে অবহিত করেন।  শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করে ভুটানের রাষ্ট্রদূত বলেন, তাঁর নেতৃত্বে বাংলাদেশের অর্থনীতি শক্তিশালী হচ্ছে। তিনি ভুটানের আর্থসামাজিক উন্নয়নের পাশাপাশি মানবসম্পদ উন্নয়নে বাংলাদেশের অবদানের প্রশংসা করেন।

বাংলাদেশে বিপুল সংখ্যক ভুটানি শিক্ষার্থী, বিশেষত মেডিক্যাল শিক্ষার্থী অধ্যয়ন করছে। ভুটান দ্বিপক্ষীয় স্বার্থে সৈয়দপুর বিমানবন্দর-সহ বাংলাদেশের বিমানবন্দরগুলোর পাশাপাশি চট্টগ্রাম ও মংলার মতো সমুদ্রবন্দরগুলোও ব্যবহার করার বিষয়টিও চূড়ান্ত করেছে।

৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশের বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি এবং ভুটানের অর্থনীতি-বিষয়ক মন্ত্রী লোকনাথ শর্মা নিজ নিজ দেশের পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করবেন। বাণিজ্য মন্ত্রক সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে। ২০১২-১৩ অর্থবছরে বাংলাদেশ ও ভুটানের মধ্যে মোট বাণিজ্যের পরিমাণ ছিল ২৬.৫২ মিলিয়ন তথা ২৬৫.২ লক্ষ ডলার। এর মধ্যে বাংলাদেশ ১.৮২ মিলিয়ন তথা ১৮.২ লক্ষ ডলার মূল্যের পণ্য ভুটানে রফতানি করেছে। ভুটান থেকে আমদানি হয়েছে ২৪.০৯ মিলিয়ন তথা ২৪০.৯ লক্ষ ডলার মূল্যের পণ্য। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে দু’ দেশের মধ্যে মোট বাণিজ্যের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৫৭.৯০ মিলিয়ন তথা ৫৭৯ লক্ষ ডলারে।

২০২৪ সালে উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হবে বাংলাদেশ। এতে করে এলডিসি হিসেবে পাওয়া সকল বাণিজ্যিক সুবিধা বন্ধ হয়ে যাবে। তখন থেকেই বাংলাদেশকে বাণিজ্য ও অর্থনীতিতে নেতিবাচক পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে হবে। তা সামাল দিয়ে ব্যবসা-বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির গতি ধরে রাখতে বিভিন্ন দেশের সঙ্গে পিটিএ বা ফ্রি ট্রেড এগ্রিমেন্ট (এফটিএ) স্বাক্ষর করা জরুরি। বাণিজ্য মন্ত্রকের একটি অনুবিভাগ এই বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে।

আন্তর্জাতিক বাণিজ্য সম্প্রসারণে বাংলাদেশের অবস্থান সুদূঢ় করার লক্ষ্যে অর্থনৈতিক ও বাণিজ্য কূটনীতির মাধ্যমে দ্বিপাক্ষিক, আঞ্চলিক ও বহুপাক্ষিক বাণিজ্য চুক্তি সম্পাদন-সহ মুক্ত বাণিজ্য অঞ্চল গঠন, শুল্ক সুবিধা নিশ্চিতকরণের মাধ্যমে বাংলাদেশের পণ্য ও সেবার জন্য আন্তর্জাতিক বাজার সম্প্রসারণ, অশুল্কবাধা দূরীকরণ ও বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ট্রেড ফোরামের আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক স্বার্থ সংরক্ষণে এফটিএ অনুবিভাগ কাজ করে আসছে।   সেই উদ্যোগের অঙ্গ হিসেবে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে এফটিএ বা পিটিও করার বিষয়ে আলাপ আলোচনা হচ্ছে। ইতিমধ্যে ভুটানের সঙ্গে আলোচনা শেষ করে পিটিএ স্বাক্ষরের দিনক্ষণ চূড়ান্ত করেছে বাংলাদেশ।

পিটিএ সুবিধা পাবে বাংলাদেশে ভুটানের রফতানি হওয়া দুধ, মধু, ফুল, জেলি, সয়াবিন, কচি ভুট্টা (সবজি হিসেবে খাওয়ার জন্য), সিমেন্ট, সাবান ও পার্টিকেল বোর্ড ইত্যাদি এবং বাংলাদেশ থেকে ভুটানে রফতানি হওয়া বিভিন্ন প্রকার ফলের রস, গ্রিন টি, মিনারেল ওয়াটার, প্লাইউড, শীতবস্ত্র, বস্ত্র শিল্পের কাঁচামাল ইত্যাদি। ভুটান বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার (ডব্লিউটিও) সদস্য নয়।

ইতিপূর্বে বাংলাদেশ ভুটানকে ১৮টি পণ্যের ক্ষেত্রে শুল্কমুক্ত সুবিধা দিয়েছিল। ডব্লিউটিও-র (ওয়ার্ল্ড ট্রেড অর্গানাইজেশন) ‘মোস্ট ফেভার্ড নেশন (এমএফএন) নীতি অনুসারে সব দেশকে দেওয়ার বাধ্যবাধকতা ছিল। কিন্তু পিটিএ স্বাক্ষর হওয়ার পর সেই বাধ্যবাধকতা আর থাকবে না। পরবর্তীতে আলোচনার মাধ্যমে আরও পণ্য দুই দেশের তালিকায় সংযুক্ত হওয়ার কথা রয়েছে।

খবরঅনলাইনে আরও পড়ুন

জলবিদ্যুৎ প্রকল্পের জন্য ব্রহ্মপুত্রে বিশাল বাঁধ দিচ্ছে চিন, জলসংকটের আশঙ্কা উত্তরপূর্ব ভারত ও বাংলাদেশে

Continue Reading

দেশ

জলবিদ্যুৎ প্রকল্পের জন্য ব্রহ্মপুত্রে বিশাল বাঁধ দিচ্ছে চিন, জলসংকটের আশঙ্কা উত্তরপূর্ব ভারত ও বাংলাদেশে

চিনের দাবি, জাতীয় নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখেই নতুন এই বাঁধ নির্মাণ করা হচ্ছে।

Published

on

খবরঅনলাইন ডেস্ক: চিনের একটি পদক্ষেপে গোটা উত্তরপূর্ব ভারত এবং বাংলাদেশে তীব্র জলসংকট দেখা দেওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। তিব্বতে ইয়ারলাং সাংপো (Yarlung Tsangpo) নদীর ওপরে বিশাল বাঁধ তৈরির পরিকল্পনা করেছে চিন। রবিবার এই খবর প্রকাশিত হয়েছে চিনের সরকার নিয়ন্ত্রণাধীন সংবাদমাধ্যমে।

স্বশাসিত তিব্বত অঞ্চলের উৎসস্থল থেকে সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে প্রবেশ করেছে ইয়ারলাং সাংপো নদী, অরুণাচলে পৌঁছে যার নাম হয়েছে সিয়াং। অসমে প্রবেশ করে এই নদীই ব্রহ্মপুত্র, যা বাংলাদেশে প্রবেশের পরে যমুনা হয়ে যায়।

চিনা সরকারি সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, অরুণাচল সীমান্তের কাছাকাছি তিব্বতের মেডগ কাউন্টিতে ব্রহ্মপুত্রের উপরে এই বাঁধ প্রকল্প তৈরির পরিকল্পনা করেছে চিন সরকার। নতুন এই প্রকল্পে যে পরিমাণ জলবিদ্যুৎ উৎপাদিত হবে, তা বিশ্বের বৃহত্তম জলবিদ্যুৎ উৎপাদনকারী প্রকল্প তথা মধ্য চিনের থ্রি গর্জেস ড্যাম-এর চেয়েও প্রায় তিন গুণ হতে পারে। 

Loading videos...

চিনের দাবি, জাতীয় নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখেই নতুন এই বাঁধ নির্মাণ করা হচ্ছে। গত সপ্তাহে এক সম্মেলনে চিনের বিদ্যুৎ উৎপাদন নিগমের চেয়ারম্যান ইয়্যান ঝিয়ং জানিয়েছেন, “ইতিহাসে এমন প্রকল্পের উল্লেখ নেই। চিনের জলবিদ্যুৎ শিল্পে এ এক ঐতিহাসিক সুযোগ।”

তিনি জানিয়েছেন, মূল উদ্দেশ্য বিদ্যুৎ উৎপাদন হলেও পরিবেশ সংরক্ষণ, জাতীয় নিরাপত্তা, জীবন যাপনের মানোন্নয়ন, শক্তি উৎপাদন এবং আন্তর্জাতিক সহযোগিতার লক্ষ্যেই এই প্রকল্প গড়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বাঁধ নির্মাণের জন্য গত ১৬ অক্টোবর তিব্বতের স্বশাসিত প্রশাসনের সঙ্গে চুক্তি করেছে নিগম।

ইয়্যান জানিয়েছেন, ইয়ারলাং জ্যাংবো নদীর উপরে প্রস্তাবিত বাঁধ প্রকল্প বছরে ৬০০ কোটি কিলোওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে পারবে।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে ভারত ও চিনের মধ্যে জলসম্পদ, নদীখাত উন্নয়ন এবং গঙ্গা পুনরুজ্জীবিত প্রকল্প সংক্রান্ত একটি মউ সাক্ষরিত হয়। তার শর্ত অনুযায়ী নদীখাতের জলস্তর বৃদ্ধি পেলে প্রতি বছর ভারতকে সে সম্পর্কে তথ্য দিতে বাধ্য চিন।

বর্তমানে দুই দেশের কূটনৈতিক ও সামরিক সম্পর্ক যে অবস্থায় পৌঁছেছে, তাতে চিন সেই চুক্তির শর্ত মানছে না বলেই দাবি করা হচ্ছে। প্রস্তাবিত এই প্রকল্পটি তৈরি হয়ে গেলে ভারতের পাশাপাশি বিপদে পড়বে বাংলাদেশও।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

কমছে সংক্রমণের হার, দেশে নতুন আক্রান্তের সংখ্যায় বড়ো পতন

Continue Reading

বাংলাদেশ

ইলিশের উৎপাদনে রেকর্ড বাংলাদেশে, পদ্মাপারের উৎসবে নানা স্বাদের পদ

চলতি বছরে ইলিশের প্রধান প্রজনন মরশুমে ৫১.২ শতাংশ মা-ইলিশ সম্পূর্ণ ভাবে ডিম দিয়েছে, যা অতীতের সব রেকর্ডকে ছাড়িয়ে গেছে।

Published

on

ঋদি হক: ঢাকা

ইলিশ উৎপাদনের (Hilsa production) সর্বশেষ তথ্যে বলা হয়েছে, জাতীয় মাছ উৎপাদনে অতীতের সকল রেকর্ড ছাড়িয়েছে বাংলাদেশ (Bangladesh)। আর হবে না-ই বা কেন? ইলিশ উৎপাদনে নজির গড়ার রেকর্ড তো আগেই রয়েছে বাংলাদেশের। এ বারে ইলিশ উৎপাদন আরও বাড়াতেই যার পর নাই নজর দিয়েছেন হাসিনা সরকার। বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী নিজেই এ সংক্রান্ত খোঁজখবর করেছেন এবং সময়োপযোগী দিকনির্দেশনা দিয়েছেন। মূলত তাঁর তাগিদ থেকেই ইলিশ উৎপাদনে করণীয় সকল বিষয়ে জোর দেওয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিএফআরআই, BFRI) প্রতিষ্ঠানের গবেষণায় বলা হয়েছে, চলতি বছরে ইলিশের প্রধান প্রজনন মরশুমে ৫১.২ শতাংশ মা-ইলিশ সম্পূর্ণ ভাবে ডিম দিয়েছে, যা অতীতের সব রেকর্ডকে ছাড়িয়ে গেছে।

Loading videos...

প্রজনন মরশুমকে সামনে রেখে গত ১৪ অক্টোবর থেকে ৪ নভেম্বর পর্যন্ত ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ ছিল। এ সময় নদীতে নদীতে কড়া প্রহরার ব্যবস্থায় ছিলেন, কোস্টগার্ড, নৌবাহিনী, র‌্যাব, পুলিশ এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রক ও মৎস্য অধিদফতরের কর্মকর্তারা। নিষিদ্ধকালে বহু মাছশিকারি চোরাগোপ্তা ইলিশ আহরণে নামলে তাদের জাল-সহ আটক করা হয়। বহু জনকেই জেলের ঘানি টানতে হচ্ছে। বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে কোটি টাকার ওপরে জাল।

ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ থাকার সময়ে মা-ইলিশের ডিম ছাড়ার পরিমাণ ৭ লাখ ৫৭ হাজার ৬৫ কেজি। এর শতকরা ৫০ ভাগ হ্যাচিং ধরে এবং তার শতকরা ১০ ভাগ বাঁচার হার ধরে এ বছর প্রায় ৩৮ হাজার কোটি জাটকা ইলিশ পরিবারে যুক্ত হয়েছে, যা গত বারের চেয়ে ১ হাজার কোটি বেশি।

গত বছর ইলিশের প্রজনন সফলতা ছিল ৪৮.৯২ শতাংশ। আর এ বারে বিএফআরআই’র তথ্য বলেছে, এ বছর ইলিশের প্রজনন সফলতা রেকর্ড গড়েছে। তাই স্বাভাবিক ভাবেই আগামী মরশুমে ইলিশের উৎপাদন আরও বাড়বে বলে আশা করছে সরকারের এই গবেষণা প্রতিষ্ঠানটি। প্রজনন মরশুমে কেবল যে ইলিশ ধরা বন্ধ ছিল তা নয়, ওই ২২ দিন সকল প্রকারের মাছ ধরা নিষিদ্ধ থাকায় প্রজনন অঞ্চলে স্ত্রী-ইলিশের শতকরা হার ৮৮ থেকে ১০০ ভাগ পর্যন্ত বেড়েছে।

মুন্সিগঞ্জের ইলিশ উৎসব।

মুন্সিগঞ্জের পদ্মাতীরে ইলিশ উৎসবে হরেক রেসিপি  

বাংলাদেশের জাতীয় মাছ ইলিশ। আর এই ইলিশ শব্দটি উচ্চারণের সঙ্গে সঙ্গে চোখের সামনে ভেসে ওঠে পদ্মার রুপালি ইলিশের চকচকে ছবি। রসনায় ও পুষ্টিগুণে ভরপুর ইলিশ বাংলাদেশের মৎস্যক্ষেত্রের অন্যতম ফসল। ইলিশের পাশাপাশি স্বাদু জলের মাছের উৎপাদনও বেড়েছে।

রবিবার থেকে শীত ফিরবে তার চেনা মেজাজে, এমন বার্তা দিয়ে আবহাওয়া দফতর জানিয়েছিল, এ দিন থেকে বলা যায় শীতের অভিষেক ঘটতে যাচ্ছে। ঢাকার শেষ প্রান্তের জেলাটির নাম মুন্সিগঞ্জ। এটি পদ্মার তীরে। জলের সঙ্গে মানুষের আত্মিকযোগ সে কারণেই গভীর। এ বারে এই পদ্মাতীরে আয়োজন করা হল ইলিশ উৎসবের। এ ধরনের উৎসব এই প্রথম হল এখানে।

মাছ বিক্রি থেকে শুরু করে প্রতিটি স্টলে ছিল ইলিশের নানা পদের রান্না। শীত শীত মেজাজে পদ্মাতীরের ইলিশ উৎসবে এক পাক ঘুরে আসাটাও ছিল বাড়তি হাওয়াকে সঙ্গী করেই। দিনভরই সূর্য্য অনেকটাই গোমড়ামুখো। শীতের হাওয়াও ঠেকাতে পারেনি উৎসব-প্রিয় বাঙালিকে। স্টলে স্টলে শোভা পাচ্ছিল সরষে ইলিশ, ভাপা ইলিশ, ইলিশ পাতুরি-সহ ইলিশের নানা রকম রেসিপি।

মাওয়া ফেরিঘাটের কাছাকাছি বিশাল চত্বর জুড়ে আয়োজিত ইলিশ উৎসবে ছিল ভিন্ন আমেজ। বাঙালির ইতিহাস-ঐতিহ্যের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে রুপালি ইলিশ। ইলিশ থেকে ঘরে আসছে বৈদেশিক মুদ্রা। জাতীয় সম্পদ ইলিশ-রক্ষায় ক্রেতা-বিক্রেতাদের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি করার লক্ষ্যেই এই ইলিশ উৎসবের আয়োজন করা হয়।

‘নিয়ম মেনে ইলিশ ধরি, সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে চলি’ – এই স্লোগানকে ধারণ করে মুন্সিগঞ্জের পদ্মাতীরে প্রথম বারের মতো ইলিশ উৎসব হল। ব্যাংক এশিয়ার স্পনসরে ‘প্রজন্ম বিক্রমপুর’ নামের সংগঠনটি বিআইডব্লিউটিএ-র মাঠে এই উৎসবের আয়োজন করে। সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শেষে হয় ইলিশ উৎসব। উৎসবে এক থেকে দেড় কেজি ওজনের ইলিশ বিক্রি হয়েছে ১১০০ টাকা কেজি দরে।

খবরঅনলাইনে আরও পড়ুন

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নপূরণের কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যের কাছাকাছি পৌঁছে গেছে বাংলাদেশ, বললেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

Continue Reading
Advertisement
Advertisement
ফুটবল8 hours ago

মরশুমের প্রথম জয় বেঙ্গালুরুর, প্রথম হার চেন্নাইয়ের

রাজ্য10 hours ago

দুয়ারে সরকার: চার দিনেই ৭৫৮টি ক্যাম্পে ১৪ লক্ষ উপস্থিতি

রাজ্য10 hours ago

কলকাতায় সক্রিয় রোগী ৬ হাজারের নীচে, রাজ্যে নতুন সংক্রমণে ব্যাপক পতন

Vijay Mallya
বিদেশ11 hours ago

ফ্রান্সে বিজয় মাল্যের ১৪ কোটি টাকার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করল ইডি

দেশ12 hours ago

হায়দরাবাদে উত্থান বিজেপির, ইস্তফা প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির!

দেশ12 hours ago

হায়দরাবাদ পুরভোটে টিআরএস বৃহত্তম দল হলেও পোক্ত বিজেপির ভিত!

দঃ ২৪ পরগনা13 hours ago

সুন্দরবনের মৎস্যজীবীদের বিকল্প কাজ-সহ একাধিক দাবিতে চিতুরি বন দফতরে ডেপুটেশন

দেশ13 hours ago

মঙ্গলবার ভারত বন্‌ধের ডাক দিলেন আন্দোলনরত কৃষকরা

কেনাকাটা

কেনাকাটা21 hours ago

পোর্টেবল গিজারের ওপর বিশেষ ছাড় বেশ কয়েকটি মডেলে

খবর অনলাইন ডেস্ক: শীতকাল মানেই কনকনে ঠান্ডায় উষ্ণ জলের প্রয়োজন। সেই গরম জলের প্রয়োজন মেটাতে পারে গিজার। অ্যামাজনে কয়েক ধরনের...

কেনাকাটা4 days ago

ব্র্যান্ডেড কোম্পানির ইমারশন রডে ২ বছর পর্যন্ত ওয়ার‍্যান্টি পাওয়া যাচ্ছে

খবর অনলাইন ডেস্ক: শীতকালে গরম জলে স্নান করার মজাই আলাদা। জল গরম করার জন্য কি ওয়াটার হিটার খুঁজছেন? কিনতে পারেন...

কেনাকাটা1 week ago

৫০০ টাকার মধ্যে অত্যাধুনিক হেডফোন

খবর অনলাইন ডেস্ক: হেডফোন খারাপ হয়ে গেছে? সস্তায় নতুন ধরনের হেডফোন খুঁজছেন? হেডফোনের কয়েকটি অত্যাধুনিক কালেকশন রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন...

কেনাকাটা1 week ago

শীতের নতুন কিছু আইটেম, দাম নাগালের মধ্যে

খবর অনলাইন ডেস্ক: শীত এসে গিয়েছে। সোয়েটার জ্যাকেট কেনার দরকার। কিন্তু বাইরে বেরিয়ে কিনতে যাওয়া মানেই বাড়ি এসে এই ঠান্ডায়...

কেনাকাটা1 week ago

ঘর সাজানোর জন্য সস্তার নজরকাড়া আইটেম

খবর অনলাইন ডেস্ক: ঘরকে একঘেয়ে দেখতে অনেকেরই ভালো লাগে না। তাই আসবারপত্র ঘুরিয়ে ফিরে রেখে ঘরের ভোলবদলের চেষ্টা অনেকেই করেন।...

কেনাকাটা2 weeks ago

লিভিংরুমকে নতুন করে দেবে এই দ্রব্যগুলি

খবর অনলাইন ডেস্ক: ঘরের একঘেয়েমি কাটাতে ও সৌন্দর্য বাড়াতে ডিজাইনার আলোর জুড়ি মেলা ভার। অ্যামাজন থেকে তেমনই কয়েকটি হাল ফ্যাশনের...

কেনাকাটা2 weeks ago

কয়েকটি প্রয়োজনীয় জিনিস, দাম একদম নাগালের মধ্যে

খবর অনলাইন ডেস্ক: কাজের সময় হাতের কাছে এই জিনিসগুলি থাকলে অনেক খাটুনি কমে যায়। কাজও অনেক কম সময়ের মধ্যে করে...

কেনাকাটা4 weeks ago

দীপাবলি-ভাইফোঁটাতে উপহার কী দেবেন? দেখতে পারেন এই নতুন আইটেমগুলি

খবর অনলাইন ডেস্ক : সামনেই কালীপুজো, ভাইফোঁটা। প্রিয় জন বা ভাইবোনকে উপহার দিতে হবে। কিন্তু কী দেবেন তা ভেবে পাচ্ছেন...

কেনাকাটা1 month ago

দীপাবলিতে ঘর সাজাতে লাইট কিনবেন? রইল ১০টি নতুন কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আসছে আলোর উৎসব। কালীপুজো। প্রত্যেকেই নিজের বাড়িকে সুন্দর করে সাজায় নানান রকমের আলো দিয়ে। চাহিদার কথা মাথায় রেখে...

কেনাকাটা2 months ago

মেয়েদের কুর্তার নতুন কালেকশন, দাম ২৯৯ থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক: পুজো উপলক্ষ্যে নতুন নতুন কুর্তির কালেকশন রয়েছে অ্যামাজনে। দাম মোটামুটি নাগালের মধ্যে। তেমনই কয়েকটি রইল এখানে। প্রতিবেদন...

নজরে