ওয়েবডেস্ক: দেশভাগের আগে কলকাতা থেকে উত্তরবঙ্গে যাওয়া হত অধুনা বাংলাদেশের ভেতর দিয়ে। কিন্তু দেশভাগের পরে এই রেললাইনে ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এখন ট্রেনে যে ভাবে উত্তরবঙ্গ যাওয়া, সে লাইন দীর্ঘ। সময় লাগেও বেশি। তাই কলকাতা এবং শিলিগুড়ির মধ্যে ট্রেন যাত্রার সময় কমানোর জন্য বাংলাদেশের ভেতর দিয়ে পুরোনো সেই ট্রেনলাইনটি আবার চালু করার ব্যাপারে সম্মত হয়েছে দুই দেশ। সব কিছু ঠিকঠাক চললে ২০২১-এর মধ্যেই এই লাইনে ট্রান চালু হয়ে যাবে।

বর্তমানে ট্রেনে কলকাতা থেকে শিলিগুড়ির দূরত্ব ৫৭৩ কিমি। কিন্তু বাংলাদেশের মধ্যে দিয়ে লাইনটি চালু হয়ে গেলে সেই দূরত্বটা অন্তত ২০০ কিমি কমে যাবে বলে জানিয়েছেন রেলের আধিকারিকরা।

আরও পড়ুন কলকাতায় পারদ নামল পনেরোর নীচে, জবুথবু রাঢ়বঙ্গ

এই পরিষেবা চালু হলে ট্রেনগুলি পেট্রাপোল-বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করবে আর চিলাহাটি-হলদিবাড়ি সীমান্ত নিয়ে ভারতে ঢুকে যাবে। বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে ঢুকে ট্রেনগুলি পার্বতীপুর, দর্শনা, সঈদপুর, নিলফামারি, তোরণবাড়ি, দোমার হয়ে চিলাহাটি সীমান্তে পৌঁছবে।

এর জন্য হলদিবাড়ি স্টেশন থেকে আন্তর্জাতিক সীমান্ত পর্যন্ত তিন কিমি রাস্তায় নতুন করে রেললাইন পাততে হবে। এর জন্য মোট ৪২ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে রেল। এই বিষয়ে নিউ জলপাইগুড়ির এডিআরএম প্রতীম রায় বলেন, “২০২১-এর মধ্যে এই কাজ শেষ করার লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে।”

উল্লেখ্য, ২০১১ সালে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরে পুরোনো রেললাইনগুলি চালু করার ব্যাপারে সম্মত হয়েছিল দুই দেশ।

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here