Connect with us

বাংলাদেশ

উন্নয়নশীল বাংলাদেশের পাশে থাকতে চাইছে যুক্তরাষ্ট্র, ভারত ও চিন, বললেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন হচ্ছে বলেই উন্নত বিশ্বের দেশগুলো আজ বাংলাদেশের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে।

Published

on

বাচসাস-এর সেমিনারে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী বক্তৃতা করছেন।

ঋদি হক: ঢাকা

বাংলাদেশের (Bangladesh) জাতির পিতা গণমানুষের নেতা বঙ্গবন্ধু (Bangabandhu) শেখ মুজিবুর রহমান (Sheikh Mujibur Rahman) স্বপ্ন দেখেছিলেন, ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত বাংলাদেশের। বীরের জাতি বাঙালি মাথা নত করে নয়, শিরদাঁড়া উচু করে বাঁচবে। বঙ্গবন্ধুর সেই স্বপ্ন ধারাবাহিক ভাবে বাস্তবায়ন হচ্ছে বলেই আজ বাংলাদেশ উন্নয়নের রোল মডেল। স্বাধীন কোনো দেশে এতটা স্বল্প সময়ে এমন অভাবনীয় উন্নয়ন সম্ভব হয়েছে বলে জানা নেই। আধুনিক সভ্যতার প্রতীক যোগাযোগ, খাদ্য উৎপাদনে রেকর্ড, উন্মত্ত পদ্মায় স্বপ্নের পদ্মাসেতু আজ বাস্তব রূপ লাভ করেছে। আন্তর্জাতিক ভাবে যোগাযোগের ক্ষেত্রেও অগ্রসরমান ভূমিকায় বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন হচ্ছে বলেই উন্নত বিশ্বের দেশগুলো আজ বাংলাদেশের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে। তারা বাংলাদেশের উন্নয়নের অংশীদার হতে চাইছে।

ঢাকায় মুজিব শতবর্ষ (Mujib Birth Centenary) উপলক্ষ্যে ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশের চলচ্চিত্র’ শীর্ষক সেমিনারে যোগ দিয়ে এ সব কথা তুলে ধরেন বাংলাদেশের নৌপরিবহন মন্ত্রী (State Minister of Shipping) খালিদ মাহমুদ চৌধুরী (Khalid Mahmud Chowdhury)। তিনি এ-ও বলেন, বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধকে ধারণ করে বাংলাদেশ পরিচালিত হচ্ছে। পৃথিবীর অনেক দেশই যুগ যুগ ধরে তাদের জাতির পিতাকে সামনে রেখে কাজ করে চলেছে। এটা একটা পবিত্র কাজ বলেও উল্লেখ করেন খালিদ মাহমুদ। আর বাংলাদেশের ক্ষেত্রেও এমনটিই হয়েছে।

Loading videos...

খালিদ মাহমুদের কথায়, “আমরা জাতির পিতাকে সামনে রেখেই কাজ করে চলেছি। বাংলাদেশের সকল ক্ষেত্রে উন্নয়ন হয়েছে বলেই আজ যুক্তরাষ্ট্র, ভারত ও চিন সবাই বাংলাদেশের পাশে থাকতে চাইছে।” বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতি (বাচসাস, Bangladesh Cine Journalist Association) শনিবার এই সেমিনারের আয়োজন করে।  

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, বাংলাদেশ আজ সেই জায়গাটাতে পৌঁছে গিয়েছে বলেই এমনটি হচ্ছে। উন্নয়নের আলোকবর্তিকা জ্বালিয়ে বাঙালিকে যিনি পথ দেখাচ্ছেন, তাঁর নাম শেখ হাসিনা (Sheikh Hasina)। বাঙালির ভাগ্য পরিবর্তনের জাদুকাঠি হাতে নিয়ে তিনি দেশের এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে ঘুরে বেড়িয়েছেন।

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী জানান, বঙ্গবন্ধুর পরিবার বিশ্বে বহুমাত্রিক প্রতিভাধর একটি পরিবার। পৃথিবীর বহু রাষ্ট্রনায়কের কিছু না কিছু আকর্ষণীয় স্মৃতি থাকে। তেমনি বঙ্গবন্ধুরও চলচ্চিত্রে অভিনয় করার ঘটনা রয়েছে। তাঁর জ্যেষ্ঠপুত্র শেখ কামাল একজন সংস্কৃতিকর্মী ছিলেন। বাংলাদেশকে ধরে রাখতে হলে বঙ্গবন্ধুকে ধরে রাখতে হবে। এর কোনো বিকল্প নেই।

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, “আমরা বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধকে ধারণ করে আছি বলেই বাংলাদেশ দারিদ্র্যের সীমা পেরিয়ে উন্নয়নশীল দেশের তালিকায় পৌঁছে গিয়েছে। আমাদের মনে রাখতে হবে শেখ হাসিনা হারার নেতা নন, তিনি সকল দুর্যোগ এবং কঠিন পরিস্থিতিকে হার মানিয়ে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখার নেতা। বাংলাদেশের উন্নয়নের কথা দুনিয়ার অনেক মানুষ স্বীকার করে গর্ব করে। তারা আমাদের অনুসরণ করে। কিন্তু দু:খ হয়, যখন আমাদের দেশের কিছু মানুষ উন্নয়নকে ভিন্ন ভাবে দেখতে চান।”

খালিদ মাহমুদ বলেন, ৭৫’-এ জাতির পিতাকে সপরিবার হত্যা করে বাংলাদেশের সংস্কৃতিকেই কেবল হত্যা করা হয়নি, বাঙালির অস্তিত্বকে সরাসরি আঘাত করা হয়েছিল। দেশকে ভঙ্গুর দশা  থেকে বের করে এনে শিল্পসংস্কৃতি-সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে কী করে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে হয়, তার মন্ত্র শিখিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বাঙালির অস্তিত্ব প্রমাণ করেছেন তিনি। বাংলাদেশের নাম উচ্চারণের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর নামটিও চলে আসে। এটিই হচ্ছে একটি জাতির চেতনা। আর এই চেতনায় যিনি উদ্বুদ্ধ করেছেন, তাঁর নাম শেখ হাসিনা। ফলে বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ। শুধু চলচ্চিত্রের অঙ্গনেই নয়, বাংলাদেশের ধুলিকণার সঙ্গে বঙ্গবন্ধু জড়িয়ে থাকবেন, যত দিন বাংলাদেশ থাকবে।

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী বলেন, “সত্তরের নির্বাচনে বাংলার মানুষ বঙ্গবন্ধুকেই তাদের ভাগ্যদেবতা মেনে নিয়ে নেতা বানিয়েছিলেন। সেই ম্যান্ডেট নিয়েই বজ্রকন্ঠে দুনিয়া কাঁপানো স্বরে উচ্চারণ করেছিলেন, “রক্ত যখন দিয়েছি, রক্ত আরও দেব, তবুও এ দেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়ব ইনশাল্লাহ।” সেই মহান নেতা বঙ্গবন্ধু বাঙলার মানুষকে শোষকদের কবল থেকে রক্ষা করেছিলেন। যারা একদিন বাংলাদেশকে ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’ বলতে দ্বিধা করেনি, আজ তারাই বাংলাদেশের পাশে থাকতে চাইছে। এটা আমাদের অর্জন। এই অর্জন বাঙালির, যা এসেছে শেখ হাসিনার হাত ধরেই।”

খালিদ মাহমুদ মনে করিয়ে দেন, দেশে সুস্থ ধারার চলচ্চিত্রের প্রচলনও হয়েছিল বঙ্গবন্ধুর হাত ধরেই। কিন্তু বাঙালি জাতির দুর্ভাগ্য, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট তাকে সপরিবার হত্যা করা হয়। সেই নারকীয় হত্যাকাণ্ড থেকে শিশু এবং গর্ভবতী মায়েরাও রক্ষা পাননি। সেই হত্যাকাণ্ডে একজন অভিনেতাকে হত্যা করা হয়ে। একজন সাংস্কৃতিক কর্মীকে হত্যা করা হয়ে। একজন খেলোয়াড়কে হত্যা করা হয়ে। একজন গৃহবধুকে হত্যা করা হয়। এ রকম পৈশাচিক হত্যাকাণ্ড পৃথিবীর ইতিহাসে ঘটেনি। এ হত্যাকাণ্ড মূলত একটি ব্যক্তি বা পরিবারকে হত্যা করা নয়, এটা মূলত বাংলাদেশকেই হত্যা করার অপচেষ্টা বলে উল্লেখ করেন খালিদ মাহমুদ।

তিনি বলেন, পঁচাত্তরের পরে প্রথম নকল ছবি দোস্ত-দুশমন নির্মাণ করা হয়। কী ভাবে দোস্ত দুশমন হয়ে যায়, আমরা দেখেছি-পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টের পর। এ ধারাবাহিকতায় আমরা দেখেছি ছবির নাম হয়েছে, বারো গুণ্ডা তেরো পাণ্ডা।  আসলে বাংলাদেশের সংস্কৃতিকে পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টেই হত্যা করা হয়েছিল।

বিএনপির সময়ে সিনেমায় অশ্লীলতা ও সে সময়ের সেন্সর বোর্ডের সমালোচনা করে খালিদ মাহমুদ বলেন, এ সবের চেয়েও বড়ো অপরাধ হয়েছে, যখন মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে বিকৃত করা হয়েছে। তার চেয়ে বড়ো অপরাধ হচ্ছে যখন চলচ্চিত্রে বঙ্গবন্ধুকে খাটো করে দেখানো হয়েছিল।

খবরঅনলাইনে আরও পড়ুন

দুর্গোৎসব বাংলাদেশে: এ বার ‘উৎসব’ নয়, শুধুই ‘পুজো’

দেশ

‘মুম্বই হামলা কোনো দিনই ভুলব না’: ভারতীয় হাই কমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী

২০০৮ সালের ২৬ নভেম্বর মুম্বইয়ের তাজ হোটেলে সন্ত্রাসী হামলায় ১৬৪ জন নাগরিক নিহত হন।

Published

on

ঋদি হক: ঢাকা

মুম্বই হামলা (Mumbai attack) কোনো দিনই ভুলে যাবেন না ভারতীয় কূটনীতিক তথা বাংলাদেশে ভারতের হাই কমিশনার (Indian High Commissioner) বিক্রম দোরাইস্বামী (Vikram Doraiswami)। টুইটারে তিনি লিখেছেন, “২৬/১১ কখনোই ভুলব না। কখনোই ক্ষমা করা হবে না। আমরা সব সময় স্মরণ করব।”

২০০৮ সালের ২৬ নভেম্বর (26/11 Mumbai attack) মুম্বইয়ের তাজ হোটেলে সন্ত্রাসী হামলায় ১৬৪ জন নাগরিক নিহত হন। হামলার পর পেরিয়ে গেছে এক যুগ। ভয়াবহ সেই হামলার ক্ষত, সেই রক্ত, সেই শোক আজও মুছে যায়নি ভারতীয়দের তথা সন্ত্রাসবিরোধী শান্তিপ্রিয় মানুষের মন থেকে।

Loading videos...

প্রতি বছর এ দিনটিতে গভীর শোক ও শ্রদ্ধায় হতাহতদের স্মরণ করে বিশ্ববাসী। সবারই এক কথা, বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠিত হোক, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ পদদলিত করে এগিয়ে যাক মানবতা। সেই মুম্বই হামলার ১২তম বার্ষিকীতে বৃহস্পতিবার টুইটারে বার্তা দিলেন ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী।

তিনি মুম্বই হামলা নিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিদেশ দফতরের দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়া বিভাগের একটি টুইট রিটুইট করেছেন।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিদেশ দফতর টুইটারে জানিয়েছে, মুম্বই হামলার ১২তম বার্ষিকীতে ৬ মার্কিন নাগরিক-সহ ক্ষতিগ্রস্তদের বিচারে যুক্তরাষ্ট্র প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র-ভারত এক যোগে কাজ করবে।

প্রতি বছর ২৬ নভেম্বর হোটেল তাজ ও মুম্বইয়ের অন্যান্য জায়গায় হামলায় নিহতদের শ্রদ্ধা জানাতে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। চোখের জলে নিকটজনদের স্মরণ করেন স্বজনেরা।

Continue Reading

বাংলাদেশ

‘মারাদোনার ক্রীড়া নৈপুণ্য যুগে যুগে ফুটবলারদের অনুপ্রেরণা জোগাবে’, শোকপ্রকাশ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার

বিশ্বের ফুটবলপ্রেমীদের হৃদয়ে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেন মারাদোনা, বললেন শেখ হাসিনা।

Published

on

শেখ হাসিনা এবং দিয়েগো মারাদোনা। প্রতিনিধিত্বমূলক ছবি

ঋদি হক, ঢাকা: ফুটবলের রাজপুত্র দিয়েগো মারাদোনার চিরবিদায়ের খবর গোটা বিশ্বে আছড়ে পড়তেই ফুটবলপ্রেমীদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। যা থেকে বাদ যাননি রাষ্ট্রপ্রধানরাও।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফুটবল কিংবদন্তি মারাদোনার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। শোকবার্তায় তিনি বলেন, “ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম সেরা এই আর্জেন্টাইন খেলোয়াড় বিশ্বের ফুটবলপ্রেমীদের হৃদয়ে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেন। যুগে যুগে তাঁর ক্রীড়া নৈপুণ্য ভবিষ্যৎ ফুটবল খেলোয়াড়দের অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করবে”।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী প্রয়াত ফুটবল মহানায়কের আত্মার শান্তি কামনা করেন এবং তাঁর শোক-সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

Loading videos...

দিয়েগো মারাদোনাকে শুধু আর্জেন্টিনা নয়, বিশ্বফুটবল জগতের নক্ষত্র আখ্যায়িত করে বাংলাদেশের সুপরিচিত ক্রীড়া সংগঠক উদয় হাকিম।

তিনি বলেন, “যত দিন বাঁচব তত দিন আমার হৃদয়ে তথা ফুটবলপ্রেমীদের হৃদয়ে স্মরণীয় হয়ে থাকবে ২৫ নভেম্বর দিনটি। বহু দিন, মাস, বছর এবং যুগ পেরিয়ে এক-একটি ইতিহাস সৃষ্টি হয়। সেটা বিভিন্ন ক্ষেত্রে হতে পারে। ভারতবর্ষের দিকে যদি চোখ রাখি তা হলেও বহু কিংবদন্তি মুখ ভেসে উঠবে। তেমনই বিশ্বফুটবলে মারাদোনার মুখ ভেসে ওঠাটা স্বাভাবিক। যা শুধু আর্জেন্টিনা নয়, সারা বিশ্বের ফুটবলপ্রেমীদের শোকের সাগরে ভাসিয়ে মহারাজের বিদায়”।

[উদয় হাকিম]

বিশ্বের খুব কমসংখ্যক খেলার মাঠ রয়েছে যেখানে উদয় হাকিম পা রাখেননি। পরিব্রাজকের মতো মাঠে মাঠে ঘুরে বেড়িয়েছেন। বাংলাদেশ ক্রিকেট টিমকে স্পনসর করেছে তাঁদের প্রতিষ্ঠান। আর মুখপাত্র হিসেবে যেতে হয়েছে তাঁকে। তা ছাড়া স্থানীয় ভাবে নিজেদের দলও রয়েছে। তিনি বলেন, “২৫ নভেম্বর কালো হরফের ইতিহাস লেখার দিন”।

প্রসঙ্গত, বুধবার হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন মারাদোনা। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬০ বছর। সপ্তাহ দুয়েক আগেই মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচার হয় মারাদোনার। মস্তিষ্কে রক্ত জমাট বেঁধেছিল। সেটি পরিষ্কার করতেই অস্ত্রোপচার করা হয়।

ফুটবলের রাজপুত্র দিয়েগো আরমান্দো মারাদোনা সম্পর্কিত অন্যান্য প্রতিবেদন পড়তে পারেন এখানে ক্লিক করে: মারাদোনা

Continue Reading

দেশ

আখাউড়া-আগরতলা আন্তর্জাতিক রেলসংযোগ কলকাতার দূরত্ব কমাবে ১০০০ কিলোমিটার

কলকতা-আগরতলার দূরত্ব দাঁড়াবে মাত্র ৫৫০ কিলোমিটার। ই রেলপথ ব্যবহার করে ৮ থেকে ১০ ঘণ্টায় কলকাতা পৌঁছোনো সম্ভব হবে।

Published

on

গত সেপ্টেম্বরে প্রকল্প কাজের অগ্রগতি দেখতে এসে কর্মী ও সাধারণ মানুষের সঙ্গে রেলপথ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন।

ঋদি হক: চট্টগ্রাম থেকে ফিরে

কলকাতা (Kolkata) থেকে রেলপথে আগরতলার (Agartala) দূরত্ব প্রায় ১৫৫০ কিলোমিটার। শিয়ালদহ থেকে কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসে আগরতলা পৌঁছোতে সময় লাগে ৩৮ ঘণ্টা। আখাউড়া-আগরতলা রেলপথটি (Akhaura-Agartala rail link) চালু হলে কলকতা-আগরতলার দূরত্ব ১০০০ কিলোমিটার কমে গিয়ে দাঁড়াবে মাত্র ৫৫০ কিলোমিটার। সে ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক এই রেলপথ ব্যবহার করে ৮ থেকে ১০ ঘণ্টায় কলকাতা পৌঁছোনো সম্ভব হবে। এর ফলে সময় ও অর্থ দু’টোই সাশ্রয় হবে।

২০১৮ সালের শেষাশেষি সম্ভাবনাময় আখাউড়া-আগরতলা রেলপথে হুইসেল বাজার কথা ছিল। যে কোনো শুভ কাজের সঙ্গে ওৎ পেতে থাকে আশঙ্কাও। তেমনটিই ঘটেছে এই রেলপথটির বেলায়ও। নানা জটিলতায় প্রকল্প কাজ পিছিয়ে যায় বছর দু’য়েক। শেষ পর্যন্ত সব বাধা কাটিয়ে ২০২১ সালের জুন মাসেই আসছে সেই মাহেন্দ্রক্ষণ। বাংলাদেশ ও ভারতের পতাকা উড়িয়ে দু’ দেশের মধ্যে রেল সংযোগের সূচনা হবে, যার সুফলভোগী হবেন উভয় দেশের মানুষ।

Loading videos...
আখাউড়া-আগরতলা রেলপথের কাজ দ্রুত এগিয়ে চলেছে।

২০১৬ সালে ত্রিপুরার (Tripura) রাজধানী আগরতলায় দু’ দেশের রেলপথ মন্ত্রকের মধ্যে আখাউড়া-আগরতলা রেলপথ নির্মাণচুক্তি সম্পন্ন হয়। ওই বছরেরই ৩১ জুলাই প্রকল্পের কাজ শুরু হয়ে ২০১৮ সালেই তা শেষ হওয়ার কথা ছিল।

ভারতের প্রন্তিক রাজ্য ত্রিপুরা তথা উত্তরপূর্ব ভারতের সঙ্গে সহজ সংযোগের কথা ভাবনায় ছিল নয়াদিল্লির। সেই ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে কলকাতা থেকে বাংলাদেশ (Bangladesh) হয়ে ত্রিপুরার আগরতলা পর্যন্ত আন্তর্জাতিক রেলসংযোগে আগ্রহী হয় ভারত (India)। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরকালে আখাউড়া-আগরতলা রেলপথ নির্মাণ চুক্তি সই হয়।

৯ কিলোমিটার দীর্ঘ এই রেলপথটি নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ২৪০ কোটি ৯০ লাখ ৬৩ হাজার ৫০১ টাকা। ব্যয়ের পুরোটাই বহন করছে ভারত। ডুয়েলগেজের রেলপথটির বাংলাদেশ অংশের দূরত্ব প্রথম দিকে কিছুটা বাড়তি থাকলেও তা ছেঁটে  দিয়ে দাঁড়িয়েছে ৭ কিলোমিটার।

বাংলাদেশ রেলওয়ের পুর্ব ও পশ্চিম দু’টো অঞ্চল রয়েছে। পশ্চিমাঞ্চলের কার্যালয় রাজশাহী এবং পুর্বাঞ্চলের কার্যালয় চট্টগ্রাম। আখাউড়া-আগরতলা রেলসংযোগের তত্ত্বাবধানে রয়েছে পুর্বাঞ্চল। বাংলাদেশ রেলপথ মন্ত্রকের পূর্বাঞ্চল রেলের মহাব্যবস্থাপক সরদার সাহাদত আলী ‘খবর অনলাইন’কেবলেন, আখাউড়া-আগরতলা রেলসংযোগটি চালু হলে উভয় দেশের মানুষ যেমন সুফল ভোগ করবে, তেমনি দু’ দেশের বাণিজ্যে নতুন মাত্রা যোগ হবে। চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ভারতের উত্তরপূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলোতে সাশ্রয়ী মূল্যে পণ্য পরিবহন সহজ হবে।

রেলপথ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন সেপ্টেম্বরে আখাউড়া-আগরতলা রেলপথের নির্মাণ কাজের অগ্রগতি পরিদর্শন করেন। এ সময় তাঁর সঙ্গে অন্য যাঁরা ছিলেন তাঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য প্রকল্প পরিচালক সুবক্তগীন, ভারতীয় নির্মাণ প্রতিষ্ঠান টেক্সম্যাকো রেলওয়ে প্রজেক্টের এজিএম ভাস্কর বকশি।

আখাউড়া-আগরতলা ডুয়েলগেজ রেলপথ প্রকল্পের পরিচালক মো. সুবক্তগীন ‘খবর অনলাইন’কে বলেন, আগামী বছরের জুন মাসের মধ্যে তাঁদের কাজ সম্পন্ন হবে। করোনাভাইরাস ও বর্ষার জটিলতায় নির্মাণকাজ প্রায় কয়েক মাস পিছিয়ে যায়। ভারতের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান টেক্সম্যাকো রেল অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড প্রকল্প কাজে নিয়োজিত রয়েছে।

করোনার প্রাদুর্ভাবের সময় প্রকল্প-সংশ্লিষ্ট অনেকেই কর্মস্থল থেকে চলে যান। সেই সঙ্গে স্বাভাবিক ভাবেই বন্ধ থাকে প্রকল্পের কাজ। যদিও চলতি বছরেই প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হওয়ার কথা ছিল। এখন ২০২১ সালের মে মাসের মধ্যে কাজ শেষ করার সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছে। মো. সুবক্তগীন আশা করেন, আগামী বছরের জুন মাসেই আন্তর্জাতিক রেলসংযোগটি চালু হবে।

চট্টগ্রাম বন্দর উন্নয়ন ও গবেষণা পরিষদের সভাপতি কমোডর (অব) জুবায়ের আহমদ বলেন, সড়ক, রেলপথ এবং জলপথে ভারতের উত্তরপূর্বাঞ্চলের সঙ্গে বাংলাদেশের যোগাযোগ নতুন মাত্রা পেয়েছে। সব চেয়ে বড়ো কথা হচ্ছে, যোগাযোগ সংস্কৃতির উত্থানের কারণে বাণিজ্যের সুবিধাভোগী হচ্ছে উভয় দেশ।

তিনি বলেন, “আমরা সব সময় একটি কথা স্মরণ করিয়ে আসছি, তা হল সকল সম্ভাবনার সঙ্গে কিন্তু সমস্যাও মাথা উচু করে দাঁড়াতে চায়। আজ দু’ দেশের সম্পর্কে, বিশেষ করে যোগাযোগ ক্ষেত্রে যে উত্থান ঘটেছে তা ধরে রাখতে হলে নিরাপদ যোগাযোগ ব্যবস্থার ওপরে জোর দিতে হবে।”

খবরঅনলাইনে আরও পড়ুন

ফেনী-বিলোনিয়া রেলপথের কাজ শুরু হচ্ছে শিগগিরই, দাউদকান্দি-সোনামুড়া জলপথ খননে হাত লাগাবে বাংলাদেশ

Continue Reading
Advertisement
Advertisement
রাজ্য2 hours ago

রাজ্যে আরও কমল নতুন সংক্রমণ, কমল তার হারও, তবে কলকাতা-উত্তর ২৪ পরগণায় সংক্রমণ কমল না

শিল্প-বাণিজ্য2 hours ago

স্থায়ী ভাবে বাড়ি থেকে কাজের সুবিধার বিনিময়ে আপনি কি বেতন ছাঁটাইয়েও রাজি? সমীক্ষায় উঠে এল চমকপ্রদ তথ্য

প্রবন্ধ3 hours ago

মারাদোনা – গোল করা আর ভুল করা যাঁর কাছে দু’টোই সমান!

দঃ ২৪ পরগনা3 hours ago

দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিস্তীর্ণ এলাকায় কার্যত বন্‌ধের আকার নিল সাধারণ ধর্মঘট

bank strike
শিল্প-বাণিজ্য3 hours ago

ডিসেম্বর মাসে কোন কোন দিন ব্যাঙ্ক বন্ধ থাকবে, এখানে দেখে নিন সম্পূর্ণ তালিকা

ক্রিকেট5 hours ago

ক্রিকেট ও ফুটবলে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের লড়াই, বাঙালি ক্রীড়াপ্রেমীদের ব্লকবাস্টার শুক্রবার

ক্রিকেট5 hours ago

অধিনায়ক হিসেবে দুর্দান্ত এই রেকর্ডের সামনে দাঁড়িয়ে বিরাট কোহলি

দেশ5 hours ago

ধর্মঘট সফল, দাবি বামফ্রন্টের, নীতিগত ভাবে সমর্থন মমতার

দেশ13 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৪৪৪৮৯, সুস্থ ৩৬৩৬৭

দেশ5 hours ago

ধর্মঘট সফল, দাবি বামফ্রন্টের, নীতিগত ভাবে সমর্থন মমতার

শিক্ষা ও কেরিয়ার2 days ago

টেট-২০১৪ পাশ যোগ্য প্রার্থীদের শিক্ষকপদে নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি জারি

দেশ1 day ago

সংক্রমণে লাগাম টানতে ১ ডিসেম্বর থেকে নতুন বিধিনিষেধ, নির্দেশিকা জারি কেন্দ্রের

ফুটবল2 days ago

পিকে-চুণী স্মরণে ডার্বি শুরুর আগে নীরবতা পালন হোক, আইএসএল কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ জানাল ইস্টবেঙ্গল

ফুটবল3 days ago

পেনাল্টি কাজে লাগিয়ে প্রথম ম্যাচে ৩ পয়েন্ট ঘরে তুলল হায়দরাবাদ

শরীরস্বাস্থ্য1 day ago

২৪ ঘণ্টা ব্রা পরার ফল মারাত্মক হতে পারে

শরীরস্বাস্থ্য1 day ago

কেন খাবেন মৌরি? জেনে নিন ১ ডজন উপকারিতা

কেনাকাটা

কেনাকাটা12 hours ago

শীতের নতুন কিছু আইটেম, দাম নাগালের মধ্যে

খবর অনলাইন ডেস্ক: শীত এসে গিয়েছে। সোয়েটার জ্যাকেট কেনার দরকার। কিন্তু বাইরে বেরিয়ে কিনতে যাওয়া মানেই বাড়ি এসে এই ঠান্ডায়...

কেনাকাটা2 days ago

ঘর সাজানোর জন্য সস্তার নজরকাড়া আইটেম

খবর অনলাইন ডেস্ক: ঘরকে একঘেয়ে দেখতে অনেকেরই ভালো লাগে না। তাই আসবারপত্র ঘুরিয়ে ফিরে রেখে ঘরের ভোলবদলের চেষ্টা অনেকেই করেন।...

কেনাকাটা5 days ago

লিভিংরুমকে নতুন করে দেবে এই দ্রব্যগুলি

খবর অনলাইন ডেস্ক: ঘরের একঘেয়েমি কাটাতে ও সৌন্দর্য বাড়াতে ডিজাইনার আলোর জুড়ি মেলা ভার। অ্যামাজন থেকে তেমনই কয়েকটি হাল ফ্যাশনের...

কেনাকাটা1 week ago

কয়েকটি প্রয়োজনীয় জিনিস, দাম একদম নাগালের মধ্যে

খবর অনলাইন ডেস্ক: কাজের সময় হাতের কাছে এই জিনিসগুলি থাকলে অনেক খাটুনি কমে যায়। কাজও অনেক কম সময়ের মধ্যে করে...

কেনাকাটা3 weeks ago

দীপাবলি-ভাইফোঁটাতে উপহার কী দেবেন? দেখতে পারেন এই নতুন আইটেমগুলি

খবর অনলাইন ডেস্ক : সামনেই কালীপুজো, ভাইফোঁটা। প্রিয় জন বা ভাইবোনকে উপহার দিতে হবে। কিন্তু কী দেবেন তা ভেবে পাচ্ছেন...

কেনাকাটা4 weeks ago

দীপাবলিতে ঘর সাজাতে লাইট কিনবেন? রইল ১০টি নতুন কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আসছে আলোর উৎসব। কালীপুজো। প্রত্যেকেই নিজের বাড়িকে সুন্দর করে সাজায় নানান রকমের আলো দিয়ে। চাহিদার কথা মাথায় রেখে...

কেনাকাটা2 months ago

মেয়েদের কুর্তার নতুন কালেকশন, দাম ২৯৯ থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক: পুজো উপলক্ষ্যে নতুন নতুন কুর্তির কালেকশন রয়েছে অ্যামাজনে। দাম মোটামুটি নাগালের মধ্যে। তেমনই কয়েকটি রইল এখানে। প্রতিবেদন...

কেনাকাটা2 months ago

‘এরশা’-র আরও ১০টি শাড়ি, পুজো কালেকশন

খবর অনলাইন ডেস্ক : সামনেই পুজো আর পুজোর জন্য নতুন নতুন শাড়ির সম্ভার নিয়ে হাজর রয়েছে এরশা। এরসার শাড়ি পাওয়া...

কেনাকাটা2 months ago

‘এরশা’-র পুজো কালেকশনের ১০টি সেরা শাড়ি

খবর অনলাইন ডেস্ক : পুজো কালেকশনে হ্যান্ডলুম শাড়ির সম্ভার রয়েছে ‘এরশা’-র। রইল তাদের বেশ কয়েকটি শাড়ির কালেকশন অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন...

কেনাকাটা2 months ago

পুজো কালেকশনের ৮টি ব্যাগ, দাম ২১৯ টাকা থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক : এই বছরের পুজো মানে শুধুই পুজো নয়। এ হল নিউ নর্মাল পুজো। অর্থাৎ খালি আনন্দ করলে...

নজরে