গাড়িশিল্পে মন্দার নেপথ্যে দুই বহুজাতিক সংস্থাকে দুষলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী!

0

ওয়েবডেস্ক: দেশীয় গাড়িশিল্পে সংকট ক্রমশ ঘনীভূত হচ্ছে। গত সোমবারই সোসাইটি অব ইন্ডিয়ান অটোমোবাইল ম্যানুফ্যাকচারার বা সিয়াম নামের একটি সংস্থার প্রকাশিত পরিসংখ্যানে সেই মন্দার ছবি স্পষ্ট হয়ে ধরা পড়েছে। মঙ্গলবার গাড়ি শিল্পের মন্দার জের কাটাতে সরকারি দৃষ্টিভঙ্গির কথা জানিয়ে আদতে ওলা এবং উবেরের মতো বহুজাতিক গণপরিবহণ সংস্থাকেই কাঠগড়ায় তুললেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন।

সীতারমন এ দিন বলেন, গাড়ি নির্মাতা সংস্থাগুলির দাবিদাওয়ায় সাড়া দিতে প্রস্তুতি নিচ্ছে কেন্দ্র। এ ব্যাপারে ওই সংস্থাগুলিকে একাধিক পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। অদূর ভবিষ্যতে সরকারেও আরও বেশ কিছু পরিকল্পনা রয়েছে।

সিয়ামের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২১ বছরের তুলনায় এ বছর আগস্টে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে গাড়িশিল্পে। কারণ সবচেয়ে কম গাড়ি বিক্রি হয়েছে। তাদের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, যাত্রিবাহী গাড়ির বিক্রিই সবচেয়ে কম হয়েছে। ২০১৮ সালের আগস্টে যত সংখ্যক যাত্রিবাহী গাড়ি বিক্রি হয়েছিল, তার থেকে ৩১.৫৭ শতাংশ কম বিক্রি হয়েছে ২০১৯ সালের অগস্টে। ২০১৮-র অগস্টে ২ লক্ষ ৮৭ হাজার ১৯৮টি যাত্রীবাহী গাড়ি বিক্রি হয়েছিল। চলতি বছরের অগস্টে ১ লক্ষ ৯৬ হাজার ৫২৪টি বিক্রি হয়েছে। অর্থাৎ গত বছরের তুলনায় প্রায় অর্ধেক হয়ে গিয়েছে বিক্রি।

ঠিক তেমনই ইউটিলিটি ভেহিকলের বিক্রি গত বছরের অগস্টের তুলনায় ২২.২৪ শতাংশ। ২২ শতাংশ কমেছে বাইক, স্কুটার, মপেড বিক্রিও। সমস্ত বড়ো গাড়ি সংস্থার ক্ষেত্রেই একই অবস্থা। এই খবরে নতুন মাত্রা যোগ করেছে সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের একটি খবর। সেখানে বলা হয়েছে, টয়োটা এবং হুন্ডাই মোটরস কর্মী কাটছাঁটের পথে হাঁটতে পারে।

[ আরও পড়ুন: এই প্রথম, বিমান চালকের আসনে কোনো আদিবাসী মহিলা ]

নির্মলা বলেন, “অটোমোবাইল ইন্ডাস্ট্রি এখন বিএস সিক্সের ফলে মন্দার শিকার হয়েছে। একই সঙ্গে সচ্ছ্বল ব্যক্তিরা যে ভাবে ওলা, উবেরের মতো সংস্থার পরিবহণ পরিষেবায় আগ্রহী হয়ে উঠেছেন, সেটার প্রভাবও পড়ছে গাড়িশিল্পে”। তিনি বলেন, “দু’বছর আগে গাড়িশিল্পে জোয়ার এসেছিল। কিন্তু কিছু অভ্যন্তরীণ কারণে এই মন্দাদশার শিকার হয়েছে গাড়িশিল্প”।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here