Connect with us

শিল্প-বাণিজ্য

৭ হাজার টাকার নীচে ৪টি সেরা স্মার্টফোন

ওয়েবডেস্ক: ৭ হাজার টাকা বাজেটের মধ্যে ভালো স্মার্টফোন খুঁজে পাচ্ছেন না! আগে অবশ্য এটা একটা কঠিন কাজ ছিল। গত কয়েক বছরে স্মার্টফোনটির বাজার উন্নত হয়েছে, তবে এখনও এ ধরনের ফোন কেনার ক্ষেত্রে বেশ কয়েকটি বিষয়ে ভালো ভাবে যাচাই করে নিতে হয়। বিশেষত যদি আপনি কয়েকটি ভালো বিকল্পের থেকে আরও বেশি জমকালো ফিচার চান তবে পরবর্তী ক্ষেত্রে হতাশার সৃষ্টিও হতে পারে। ফলে তুলনায় কয়েকটি ভাল বিকল্প ফোনের সন্ধান করা যেতে পারে।

শাওমি, রিয়েলমি, ইনফিনিক্স এবং লেনোভোর বেশ কয়েকটি ফোন দামের দিক থেকে যেমন বেশ সাশ্রয়কর,তেমনই ফিচারও যথেষ্ট শক্তিশালী। আপনার স্মার্টফোন কেনার সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় আপনি এই ৭ হাজারের নীচের দামের ফোনগুলির কথা বিবেচনা করতে পারেন।

৭ হাজার টাকার নীচে পাওয়া যায় এমন কয়েকটি স্মার্টফোনের সংক্ষিপ্ত বিবরণই আমরা দেখে নিতে চাইছি।

১. রিয়েলমি সি২

দাম: ৬,৯৯৯ টাকা

২. রেডমি ৭এ

দাম: ৬,১৯৯ টাকা

৩. ইনফিনিক্স নোট৫

দাম: ৬,৯৯৯ টাকা

৪. লেনোভো কে৯

দাম: ৬,৯৯৯ টাকা

তবে আপনার বাজেট যদি আরও কিছুটা বাড়িয়ে নিতে পারেন, তা হলে ৮ হাজার অথবা ১০ হাজারের মধ্যেও বেশ কিছু সেরা ফোন বাজারে রয়েছে।

বিজ্ঞাপন প্রতিবেদন

এই কঠিন সময়ে এলআইসি পলিসি কতটা জরুরি?

কী কারণে প্রয়োজন এলআইসি পলিসির?

প্রতিকুলতার সময়েও নিশ্চিন্ত থাকুন। ছবি এলআইসি-র ইউটিউব ভিডিও থেকে নেওয়া।

ওয়েবডেস্ক: সময়ের থেকেও দ্রুত গতিতে বদলে যাচ্ছে জীবনযাপনের পদ্ধতি। করোনাভাইরাস মহামারি (Coronavirus pandemic) আর্থ-সামাজিক অবস্থানকে এক ঝটকায় আমূল বদলে দিয়েছে। স্বাভাবিক ভাবেই উঠে আসছে এলআইসির মতো জীবন বিমা পলিসির (Life insurance policy) প্রয়োজনীয়তা।

স্বাভাবিক জীবনে সাধারণ মানুষের জীবনের লক্ষ্য বা চাহিদা বলতে যা বোঝায়, সেগুলি পূরণেরও ফুরসত মিলছে না এই ‘নিউ নর্মাল লাইফে’-এ। এখন সম্পদবৃদ্ধির আকাঙ্ক্ষার থেকে অনেক বেশি বড়ো হয়ে উঠেছে আমাদের দৈনন্দিন জীবনের সাধারণ চাহিদাগুলো। কিন্তু পরিবারের নির্ভরশীল ব্যক্তির যদি তেমন কিছু হয়ে যায়?

স্বাভাবিক জীবনের চাহিদা

এমনিতে যে কোনো মানুষেরই দীর্ঘমেয়াদি চাহিদার তালিকায় থাকে সময় মতো বিয়ে, একটা বাড়ি, গাড়ি কেনা, সন্তানসন্ততির পড়াশোনা ইত্যাদি। কিন্তু এই বিষয়গুলিকে যতটা অগ্রাধিকার দেওয়া হয়, ততটা বোধহয় গুরুত্ব পায় না জীবনের জন্য নিরাপত্তা বা জীবনবিমা করানোর প্রবণতা।

সাধারণ কথায়, জীবনবিমা এমন একটি বিনিয়োগ পদ্ধতি, যা আর্থিক ভাবে আপনার এবং আপনার পরিবারকে অনিশ্চয়তার বিরুদ্ধে সুরক্ষিত করে। এটি এমন একটি সুরক্ষা বলয়, যা আপনার উপর নির্ভরশীল ব্যক্তিদের আর্থিক চাহিদাগুলির যত্ন নেয়, ভবিষ্যতে যদি তেমন কিছু ঘটে যায়।

জীবন বিমা কেন?

জীবন বিমা আদতে একটি বিনিয়োগের মৌলিক মাধ্যম। যেটির মালিক বিনিয়োগকারী নিজেই। তবে মেয়াদ পূরণের টাকা ব্যক্তিগত ভাবে ভোগ করার নিশ্চয়তা অনেক ক্ষেত্রেই না মিললেও নির্ভরশীলদের জন্য তা যথেষ্ট সহায়ক। যদিও বিমায় বিনিয়োগ করে বিশাল অঙ্কের নগদ টাকা ফেরত পাওয়ার তেমন কোনো সম্ভাবনা কম। কিন্তু বিমায় বিনিয়োগ করেও সম্পদশালী হয়ে ওঠার নজির অংসখ্য রয়েছে।

ফলে এক দিকে নিরাপত্তা অন্য দিকে সম্পদশালী হয়ে ওঠার উভয় সুযোগই রয়েছে জীবন বিমায়। মৃত্যু নির্দিষ্ট কোনো দিনক্ষণ দেখে আসে না। আবার কোনো দুর্ঘটনাজনিত পলিসির মেয়াদ পূরণের পর, সেই টাকায় নতুন করে কোনো ব্যবসা শুরু করছেন কোনো পলিসি হোল্ডার, এমন নজিরও কম নয়। সেটা সম্ভব না হলেও নিজের অবর্তমানে পরিবারের নির্ভরশীল সদস্যদের জন্য জীবন বিমার মতো ভবিষ্যৎ নিশ্চয়তা আর কোথায় আছে?

এলআইসি কেন?

এ প্রশ্নের উত্তর দীর্ঘায়িত। তবে সংক্ষেপে বলা যায়, বিশ্বাস, আস্থা, ভরসা যাই বলা হোক না কেন, লাইফ ইন্সুরেন্স কর্পোরেশন অব ইন্ডিয়া (Life Insurance Corporation of India) বা এলআইসি (LICIndia)-র একমাত্র বিকল্প এই সংস্থা নিজেই।

অন্য দিকে রয়েছে ক্লেম সেটলমেন্টের ইতিবাচর অনুপাত। বিমা নিয়ন্ত্রক সংস্থা ইন্সুরেন্স রেগুলেটরি অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অথরিটি অব ইন্ডিয়া (IRDAI)-এর ২০১৮-১৯ সালে প্রতিবেদন অনুযায়ী, এলআইসিতে ডেথ ক্লেম সেটলমেন্ট রেশিও ৯৭.৭৯ শতাংশ। যা চমকে দেয় অন্য়ান্য সরকারি-বেসরকারি বিমা সংস্থার সেটলমেন্ট রেশিও-কে।

করোনায় এলআইসির ব্যতিক্রমী উদ্যোগ

করোনা সংকটে সমস্ত সংস্থায় নিজের মতো করে এগিয়ে এসেছে দুর্গতদের সাহায্যে। তবে এলআইসি যখন জীবন বিমা সংস্থা, সে ক্ষেত্রে সমাজের প্রতি তাদের দায়িত্ব থেকেই যায়।

এলআইসির ম্যানেজিং ডিরেক্টর টিসি সুশীল কুমার সম্প্রতি জানান, “কোভিড-১৯ (Covid-19) মৃত পলিসি হোল্ডারের পরিবার ক্লেম করার আগেই আমরা স্বত:প্রণোদিত হয়ে সেটলমেন্টের উদ্যোগ নিচ্ছি। সরকারি উৎস থেকে আমরা করোনায় মৃতদের তালিকা পেয়েছি। যখন দেখছি, এই রোগে কোনো মৃত ব্যক্তির এলআইসি পলিসি রয়েছে, তখন আমরা তাঁদের শনাক্ত করার পদক্ষেপ নিচ্ছি। আমাদের তথ্য যাচাই করতে মৃত ব্যক্তির পরিবারের সঙ্গে দেখা করছি। আমরা এখনও পর্যন্ত কয়েক হাজার পরিবারের সঙ্গে এ ভাবেই যোগাযোগ করে দাবিগুলি নিষ্পত্তি করছি”।

শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে

করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখেই কাজ চলছে এলআইসির সমস্ত অফিসে। একই সঙ্গে প্রিমিয়াম জমা নেওয়ার জন্য স্থায়ী ক্যাশ কাউন্টার ছাড়াও প্রিমিয়াম পয়েন্ট খোলা হয়েছে।

সংস্থার একটি পরিসংখ্যান বলছে, চলতি ২০২০-২১ আর্থিক বছরের প্রথম ত্রৈমাসিকে অনলাইন লেনদেন বেড়েছে ৫০ শতাংশ। অন্য দিকে সংস্থার ৭০ শতাংশের বেশি প্রিমিয়াম জমা নেওয়া হয়েছে ব্রাঞ্চের বাইরে ওই প্রিমিয়াম পয়েন্টের মাধ্যমে।

সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে সংস্থার তরফে ইতিমধ্যেই নেওয়া হয়েছে, ‘সবসে পহলে লাইফ ইন্সুরেন্স প্রচার অভিযান’। অন্য দিকে উদ্ভাবনী উদ্যোগের মাধ্যমে গ্রাহকের কাছে পৌঁছানোর ক্ষেত্রটিকেও প্রসারিত করা হয়েছে। একাধিক পলিসি বিক্রি করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে অনলাইনে। ব্যবহৃত হচ্ছে ভিডিও কল এবং ভিডিও কনফারেন্সিং।

হতে পারে কেরিয়ার

বর্তমান পরিস্থিতিতে যখন কর্মীছাঁটাই প্রকট হয়ে উঠেছে, তখন তরুণ সম্প্রদায়ের কাছে আশার আলো দেখাচ্ছে এলআইসি।

গত এপ্রিল-মে মাসে দেশ ব্যাপী লকডাউনের সময়েও এলআইসিতে যুক্ত করা হয়েছে ১৩,৭৪০ জন এজেন্ট। ঠিক একই সময়ে বেসরকারি বিমা সংস্থা থেকে ৬,৩১৬ জন এজেন্টকে বসিয়ে দেওয়া হয়।

একই সঙ্গে চলতি বছরের শেষ ত্রৈমাসিকে ৩০ হাজারের বেশি এজেন্ট নিয়োগের লক্ষ্যমাত্রা রেখেছিল সংস্থা। তরুণরা এই কঠিন সময়ে নিজেদের কেরিয়ার হিসাবে এলআইসিকেও যাতে বেছে নিতে পারেন, সেই সুযোগ ব্যতিক্রমী ভাবে দিচ্ছে এই রাষ্ট্রায়ত্ত বিমা সংস্থা।

Continue Reading

শিল্প-বাণিজ্য

সোনার দাম দৌড়চ্ছে ৭০ হাজারের দিকে, বিনিয়োগ করবেন না কি?

আগামী দীপাবলিতে এ ভাবেই নতুন চুড়ো ছুঁয়ে ফেলবে সোনার দাম।

প্রতীকী ছবি।

ওয়েবডেস্ক: প্রতিদিনই একটার পর একটা রেকর্ড গড়ছে সোনার দাম। করোনাভাইরাস (Coronavirus) সংকট যতই থাক, এই ধারাবাহিকতা হয়তো আগামী কয়েক দিনেও অব্যাহত থাকবে। তা হলে কি সোনায় বিনিয়োগ করবেন?

শেষ ১৭টি কেনাবেচার দিনে সমানে বাড়ছে সোনার দাম (Gold price)। গত শুক্রবার জাতীয় রাজধানী দিল্লিতে সোনার দাম নতুন রেকর্ড গড়ে স্পর্শ করে ৫৭,০০৮ টাকা প্রতি ১০ গ্রাম। ষোড়শতম দিনের সেই রেকর্ড ভেঙে যায় চলতি সপ্তাহের প্রথম দিনেও। সোমবার আরও অনেকটাই বেড়ে দিল্লিতে সোনার দাম হয় ৫৭,১৬০ টাকা প্রতি ১০ গ্রাম (২৪ ক্যারাট)।

গত মার্চে যখন ভারতে করোনা সংক্রমণ সবে ছড়াতে শুরু করেছে তখন এই দাম ছিল ৩৩ হাজার টাকার আশেপাশে।

বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন, আগামী দীপাবলিতে এ ভাবেই নতুন চুড়ো ছুঁয়ে ফেলবে সোনার দাম। যদি শেষ কয়েক দিনের গতিতে এগোতে থাকে তা হলে এই দাম ঠেকতে পারে ৭০ হাজার টাকায়। অন্য দিকে আগামী বছর দুয়েকের মধ্যে সোনার দাম আকাশছোঁয়া উচ্চতায় পৌঁছে যাবে।

[প্রতীকী ছবি]

শুধু এ দেশ নয়, সারা বিশ্বের শেয়ার বাজার চরম অস্থিরতার মধ্যে দিয়ে অতিক্রান্ত হচ্ছে। করোনার কাঁটায় অর্থনীতি ধুঁকছে। রিজার্ভ ব্যাঙ্ক (RBI) অথবা কেন্দ্রীয় সরকারের বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়ে তৈরি হওয়া সম্ভাবনা বাজারকে কিছুটা এগিয়ে দিয়ে অনেকটাই পিছিয়ে নিয়ে আসছে। তবে বাজার বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দীর্ঘ মেয়াদি বিনিয়োগকারীগের এ নিয়ে দুশ্চিন্তার কোনো কারণ নেই। ভ্যাকসিন বাজারে এসে পড়লেই পরিস্থিতি এক ধাক্কায় অনেকটাই বদলে যাবে।

তার মানে কি এমন কথা বলা যায়, সোনায় বিনিয়োগ করার জন্য আপনাকে গ্যারান্টি দেওয়া হচ্ছে। না, কোনো ক্ষেত্রেই বিনিয়োগেই কোনো প্রকারের গ্যারান্টি যে নেই, তা তো হাড়ে হাড়ে টের পেয়েছেন সাম্প্রতিক কালের পিপিএফ-এ সুদ কমানোর সরকারি সিদ্ধান্তে।

কিন্তু যে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে নিয়মতান্ত্রিক ও দীর্ঘমেয়াদি লাভের আশা রয়েছে, সেখানে বিনিয়োগ কখনোই বিনিয়োগকারীকে হতাশ করে না।

*যে কোনো ধরনের বিনিয়োগ করার আগে শর্তগুলি ভালো করে বুঝে নেওয়া প্রয়োজন। এটা বিনিয়োগকারীর ব্যক্তিগত সিদ্ধান্তের উপর নির্ভরশীল।

Continue Reading

শিল্প-বাণিজ্য

করোনায় প্রভাবিত পোশাক শিল্প, হাতে কাজ নেই সেলাই দিদিমণিদের

প্রতীকী ছবি।

ওয়েবডেস্ক: উত্তর কলকাতার বাসিন্দা শ্যামলী জানা। স্বামী দৈনিক চুক্তিতে অন্য একজনের অটো রিকশা চালাতেন। নিজে সেলাই করতেন চুড়িদার-ব্লাউজ, ইত্যাদি। করোনার থাবায় দু’টোকেই গ্রাস করেছে অস্বাভাবিকত্ব। শুধু শ্যামলী নন, তারই মতো পোশাক শিল্পে জড়িত ভারতের প্রায় ১.২ কোটি মানুষ প্রতিনিয়ত সংকট কাটিয়ে ওঠার

শ্যামলী সোদপুরের এক পোশাক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে চুড়িদার অথবা ব্লাউজের কাপড় (কাটিং করা) বাড়িতে নিয়ে এসে সেলাই করতেন। হপ্তায় পেমেন্ট। পাড়ার লোকের ছোটোখাটো প্রয়োজন মিটিয়েও খুচরো কিছু আয় হতো। বাজারে এখন নতুন পোশাকের চাহিদা ততটা নেই। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য়ের চাহিদা কিছুটা থাকলেও পোশাক-আশাক নিয়ে ততটা আগ্রহ দেখাচ্ছেন না কেউ। ফলে পুরনো স্টকেই কোনো রকম কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন পোশাক বিক্রেতারা।

১২ সপ্তাহ আগেই পোশাক শিল্পের জন্য করোনাভাইরাস লকডাউনের নিয়ম শিথিল করেছে সরকার। তবুও ছোটো-বড়ো পোশাক শিল্পগুলো এখনও সে ভাবে আগের অবস্থায় ফিরে আসেনি। কারণ এই একটাই। চাহিদা নেই। সে ক্ষেত্রে কারখানায় গিয়ে পোশাক শিল্পের কর্মীদের (বেশির ভাগই মহিলা) মতোই সংকটে পড়েছেন শ্যামলীর মতো বাড়িতে বসে সেলাইয়ের কাজ করা মহিলারাও।

শ্যামলী বলেন, “এখন কাজ নেই, সেটা যেমন সমস্যা, তেমনই আগামী দিনেও কী যে হবে, তা বুঝতে পারছি না। অন্য বছর এই সময়টা রাত ২-৩টে পর্যন্ত কাজ করি। পুজোর বাজারের জন্য হাতে প্রচুর চাপ থাকে। এ বার সে সবের বালাই নেই”।

বৃহৎ শিল্পেও বড়ো সংকট!

ভারতের কয়েক কোটি টাকার পোশাক শিল্প হাতে কাজ জোগায় কমপক্ষে ১.২ কোটি মানুষের। এই কাজে তুলনামূলক ভাবে কাজে দক্ষতা, একাগ্রতা এবং ধৈর্য্যের কারণে মহিলাদের অংশগ্রহণই অধিক। বাড়ির কাজ সামলেও একটা বড়ো অংশের মহিলা এই ক্ষেত্রের সঙ্গে যুক্ত। কিন্তু মহামারির প্রভাবে বিশ্বমানের ব্র্যান্ডের পোশাকের বিক্রি প্রায় বন্ধ। আর্থিক সংকটে পড়ে বাতিল হয়েছে আগের অর্ডার। এমন পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কারখানা খোলার অনুমতি মিললেও পুরোদমে কাজ শুরু করতে পারছেন না কর্তৃপক্ষ।

ভারত-সহ এশিয়ার বিভিন্ন দেশেই পোশাক শিল্পে একটা বড়ো অংশের অসংগঠিত ক্ষেত্রের কর্মী জড়িত। মহামারির সংকটে পড়ে নিয়োগকারীরাও এখন শ্রম আইনের ততটা ধার ধারতে চাইছেন না কোথাও কোথাও। কাজ থেকে ছাঁটাই অথবা পুরনো বকেয়া বেতন না মেটানোর ঘটনাও ঘটছে।

অন্য দিকে বাড়িতে শিশুসন্তান থাকায় অনেক মহিলা কাজে যোগ দিতে পারছেন না। আবার স্কুল বন্ধ থাকায় বাড়িতে থাকা সন্তানকে সময় দিতে হচ্ছে সর্বক্ষণ। অন্য দিকে শিল্পোদ্যোগীরাও বলছেন, যাঁরা কমপক্ষে তিন দশক এই শিল্পের সঙ্গে জড়িত রয়েছেন, এমন দুর্ভাগ্যজনক সময় তাঁরা একটি বারের জন্যও দেখেননি। অনেকে তো পরিস্থিতির চাপে পড়ে ব্যবসায় ঝাঁপ ফেলে দেওয়ার কথা ভাবছেন!

সামগ্রিক ক্ষেত্র

এশিয়ার মধ্যে পোশাক শিল্পে সব থেকে বেশি প্রভাব পড়েছে বাংলাদেশ, ভিয়েতনাম এবং মায়ানমারের মতো দেশগুলিতে। কারণ, শেষ কয়েক মাসে মহামারি সংকটে পড়ে শ্রমিকরা নিজেদের গ্রামে ফিরে গিয়েছেন, খাদ্যের সন্ধানে হন্যে হয়ে দৌড়চ্ছেন তাঁরা। কাজ হারিয়ে বেঁচে থাকার জন্য টাকাও ধার করেছেন।

তবে অতি মন্থরগতিতে হলেও হাল কিছুটা ফিরছে। করোনার প্রাদুর্ভাব কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে পোশাক শিল্প। ধাক্কা কাটিয়ে আশায় বুক বাঁধছেন সংশ্লিষ্টরা।

ফিরে আসা যাক শ্যামলীর কথায়। স্বামী অটো চালাতেন সিঁথি মোড় থেকে। মালিককে দেওয়ার মতোই ভাড়া রোজগার হয় না। অন্য দিকে রয়েছে করোনার আতঙ্ক। ফলে চাকা বন্ধ। আর শ্যামলী? স্বপ্ন দেখছেন, এ বারের পুজোর ‘ইনকাম’ মাটি হলেও শীত এলে অন্তত হাল কিছুটা ফিরবে!

Continue Reading
Advertisement

বিশেষ প্রতিবেদন

Advertisement
দেশ1 hour ago

প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের শারীরিক অবস্থা সংকটজনক

রাজ্য2 hours ago

আক্রান্তের সংখ্যা লাখ পেরোলেও আরও একবার রাজ্যে এক দিনে সুস্থ তিন হাজারের বেশি

বিদেশ2 hours ago

বাজারে আসার আগেই ২০টি দেশ থেকে একশো কোটি ডোজ ভ্যাকসিনের অর্ডার পেয়েছে রাশিয়া

দিবস3 hours ago

২০২০-র স্বাধীনতা দিবস কী ভাবে পালন হবে

ক্রিকেট3 hours ago

রামদেব বলেছিলেন আইপিএল ‘কালো টাকার খেলা, বেইমানির খেলা’, এখন কেন দৌড়াচ্ছেন?

দিবস3 hours ago

স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে ভারত সম্পর্কে অবাক করা এই তথ্যগুলি জেনে নিন

দিবস3 hours ago

স্বাধীনতা দিবসের প্রাককালে স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাস জানতে এই বইগুলি পড়তে পারেন

দিবস4 hours ago

যারা বোমা মেরে তন্দ্রালু ভারতের ঘুম ভাঙিয়েছিল

কেনাকাটা

কেনাকাটা5 days ago

ঘর ও রান্নাঘরের সরঞ্জাম কিনতে চান? অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ৫০% পর্যন্ত ছাড়

খবরঅনলাইন ডেস্ক : অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ঘর আর রান্না ঘরের একাধিক সামগ্রিতে প্রচুর ছাড়। এই সেলে পাওয়া যাচ্ছে ওয়াটার...

কেনাকাটা5 days ago

এই ১০টির মধ্যে আপনার প্রয়োজনীয় প্রোডাক্টটি প্রাইম ডে সেলে কিনতে পারেন

খবরঅনলাইন ডেস্ক : চলছে অ্যামাজনের প্রাইমডে সেল। প্রচুর সামগ্রীর ওপর রয়েছে অনেক ছাড়। ৬ ও ৭  তারিখ চলবে এই সেল।...

কেনাকাটা6 days ago

শুরু হল অ্যামাজন প্রাইম ডে সেল, জেনে নিন কোন জিনিসে কত ছাড়

খবরঅনলাইন ডেস্: শুরু হল অ্যামাজন প্রাইম ডে সেল। চলবে ২ দিন। চলতি মাসের ৬ ও ৭ তারিখ থাকছে এই অফার।...

things things
কেনাকাটা2 weeks ago

করোনা আতঙ্ক? ঘরে বাইরে এই ১০টি জিনিস আপনাকে সুবিধে দেবেই দেবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনা পরিস্থিতিতে ঘরে এবং বাইরে নানাবিধ সাবধানতা অবলম্বন করতেই হচ্ছে। আগামী বেশ কয়েক মাস এই নিয়মই অব্যাহত...

কেনাকাটা2 weeks ago

মশার জ্বালায় জেরবার? এই ১৪টি যন্ত্র রুখে দিতে পারে মশাকে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: একে করোনা তায় আবার ডেঙ্গুর প্রকোপ শুরু হয়েছে। এই সময় প্রতি বারই মশার উৎপাত খুবই বাড়ে। এই বারেও...

rakhi rakhi
কেনাকাটা3 weeks ago

লকডাউন! রাখির দারুণ এই উপহারগুলি কিন্তু বাড়ি বসেই কিনতে পারেন

সামনেই রাখি। কিন্তু লকডাউনের মধ্যে মনের মতো উপহার কেনা একটা বড়ো ঝক্কি। কিন্তু সেই সমস্যা সমাধান করতে পারে অ্যামাজন। অ্যামাজনের...

কেনাকাটা3 weeks ago

অনলাইনে পড়াশুনা চলছে? ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ৪০ হাজার টাকার নীচে ৬টি ল্যাপটপ

ইনটেল প্রসেসর সহ কোন ল্যাপটপ আপনার অনলাইন পড়াশুনার কাজে লাগবে জেনে নিন।

কেনাকাটা3 weeks ago

করোনা-কালে ঘরে রাখতে পারেন ডিজিটাল অক্সিমিটার, এই ১০টির মধ্যে থেকে একটি বেছে নিতে পারেন

শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা বুঝতে সাহায্য করে এই অক্সিমিটার।

কেনাকাটা4 weeks ago

লকডাউনে সামনেই রাখি, কোথা থেকে কিনবেন? অ্যামাজন দিচ্ছে দারুণ গিফট কম্বো অফার

খবরঅনলাইন ডেস্ক : সামনেই রাখি। কিন্তু লকডাউনের মধ্যে দোকানে গিয়ে রাখি, উপহার কেনা খুবই সমস্যার কথা। কিন্তু তা হলে উপায়...

laptop laptop
কেনাকাটা4 weeks ago

ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ২৫ হাজার টাকার মধ্যে এই ৫টি ল্যাপটপ

খবরঅনলাইন ডেস্ক : কোভিভ ১৯ অতিমারির প্রকোপে বিশ্ব জুড়ে চলছে লকডাউন ও ওয়ার্ক ফ্রম হোম। অনেকেই অফিস থেকে ল্যাপটপ পেয়েছেন।...

নজরে

Click To Expand