অবিবাহিতরা কি স্বাস্থ্য বিমার আওতায় ‘মাতৃত্বকালীন সুবিধা’ দাবি করতে পারেন?

0
Maternity benefit
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: মাতৃত্ব কোনো মহিলার জীবনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটা মোড়। তবে গর্ভাবস্থা শুধুমাত্র কোনো মহিলাকে আবেগগত এবং মানসিক ভাবে রূপান্তরই করে না, এটা তাঁর এবং তাঁর পরিবারের কাছে আর্থিক ভাবেও চিন্তার বিষয় হতে পারে। সে কারণেই গর্ভাবস্থাকালীন এবং তার পরে যদি কোনো সমস্যা দেখা দেয়, তার জন্য আর্থিক ভাবে প্রস্তুত থাকাটাও জরুরি। ম্যাটারনিটি বেনিফিট কভার-সহ একটি স্বাস্থ্য বিমা এই প্রস্তুতিতে সহায়তা করতে পারে।

বিমাকারী সংস্থাগুলির পরিষেবা প্রদানের ধরন অনুযায়ী, পুরুষ এবং মহিলা উভয়েই ম্যাটারনিটি বেনিফিটের কভার পেতে পারেন। যদিও প্রশ্নটা হল, আপনি কি শুধু বিয়ের পরেই মাতৃত্বকালীন সুবিধা দাবি করতে পারবেন?

স্বাস্থ্য বিমায় মাতৃত্বকালীন সুবিধা কী?

এটি এক ধরনের বিমা পরিকল্পনা, যা একটি নির্দিষ্ট সময়কালে (গর্ভধারণের আগে এবং পরে) প্রসবের সঙ্গে সম্পর্কিত সমস্ত ব্যয়কে অন্তর্ভুক্ত করে। আপনি একটি স্বতন্ত্র নীতি বেছে নিতে পারেন বা অতিরিক্ত প্রিমিয়াম জমা করে ম্যাটারনিটি কভার-সহ অ্যাড-অন স্বাস্থ্য বিমা হিসাবে এটিকে অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন।

কোনো অবিবাহিতা মহিলা কি মাতৃত্বকালীন বেনিফিট কভার পাওয়ার দাবিদার ?

সমস্ত স্বাস্থ্য বিমা পরিকল্পনা একক মহিলাদের মাতৃত্বকালীন বেনিফিট কভার দেয় না। তবে কয়েকটি পরিকল্পনা রয়েছে, যেখানে অপেক্ষার মেয়াদ শেষ করে একক মহিলা এবং মায়েদের বৈবাহিক অবস্থা নির্বিশেষে প্রয়োজনীয় সুবিধা সরবরাহ কর হয়। অর্থাৎ, অপেক্ষার মেয়াদটি শেষ করে এবং সমস্ত প্রিমিয়াম জমা করার পরে, একজন মহিলা তাঁর বৈবাহিক অবস্থা নির্বিশেষে পরিকল্পনায় উল্লিখিত সমস্ত সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করতে পারেন।

মনে রাখতে হবে, প্রিমিয়াম সঠিক ভাবে জমা এবং অপেক্ষাকালীন মেয়াদ শেষ করার পরই যদি কেউ মাতৃত্বকালীন সুবিধা দাবি করতে চান, তবে তিনি তাঁর বৈবাহিক অবস্থান নির্বিশেষে এই দাবি করতে পারবেন।

সুতরাং, এর থেকে বোঝা যাচ্ছে যে, একজন অবিবাহিত মহিলা, যিনি নিজের নামে পলিসি করাবেন, তাঁর বিবাহকালীন অবস্থা নির্বিশেষে মাতৃত্বকালীন সুবিধার জন্য দাবি করতে পারবেন। তবে যদি অপেক্ষাকালীন শর্ত পূরণ হয়। সুতরাং, বিয়ের আগেই তিনি মাতৃত্বকালীন সুবিধার পলিসিটি কিনতে পারবেন।

কোনো অবিবাহিত পুরুষ কি মাতৃত্বকালীন বেনিফিট কভার পাওয়ার দাবিদার ?

বিমা বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পুরুষরা মাতৃত্বকালীন বেনিফিট কভার-সহ একটি স্বাস্থ্য বিমা পরিকল্পনা কিনতেই পারেন। তবে যতক্ষণ না নিজের স্ত্রীকে তাঁর বিদ্যমান স্বাস্থ্য বিমার সঙ্গে যোগ না করছেন, ততক্ষণ মাতৃত্বকালীন সুবিধা পেতে পারবেন না। স্ত্রী আনুষ্ঠানিক ভাবে তাঁর স্বাস্থ্য বিমা পলিসির সদস্য হওয়ার পরেই অপেক্ষার মেয়াদ শুরু হবে।

এটাও মনে রাখার বিষয়, সংস্থা বিশেষে এই অপেক্ষার মেয়াদ ২-৪ বছর পর্যন্ত হতে পারে। মাতৃত্বকালীন সুবিধার অ্যাড-অনের ক্ষেত্রে এটি আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

বিমায় বিনিয়োগ ব্যক্তিগত বিষয়। বিশদ খোঁজ নিয়ে বিনিয়োগ করুন

আরও পড়ুন: সহজে ওজন কমাবেন? জেনে নিন ৩টি পদ্ধতি

------------------------------------------------
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.