অবৈধ খনন এবং কয়লা চুরি রুখতে অভিনব পরিকল্পনা কোল ইন্ডিয়ার

0
Coal
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: অবৈধ খনন এবং চুরি রুখতে অভিনব পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে রাষ্ট্রায়ত্ত কোল ইন্ডিয়া লিমিডেট। সংস্থা সূত্রে খবর, ড্রোন ব্যবহার করে অবৈধ খনন ও চুরি সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহের পরিকল্পনা করা হয়েছে, তবে ওই প্রকল্পটি বর্তমানে পাইলট পর্যায়ে রয়েছে।

কোল ইন্ডিয়ার অণ্বেষক সংস্থা সেন্ট্রাল মাইন প্ল্যানিং অ্যান্ড ডিজাইন ইনস্টিটিউট সম্প্রতি ড্রোন প্রযুক্তির জন্য চেন্নাইয়ের আন্না বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর অ্যারোস্পেস রিসার্চের সঙ্গে চুক্তি করেছে।

সংস্থার এক আধিকারিক জানিয়েছেন, “কোল ইন্ডিয়ার সহায়ক সংস্থা, সেন্ট্রাল কোলফিল্ডের টোপা খনিতে একটি পাইলট প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছিল, যেখানে ড্রোন ব্যবহার করে অবৈধ খনির স্থানগুলিকে সফল ভাবে ট্র্যাক করা হয়েছে। একই সঙ্গে চুরি করে কয়লা তোলার জন্য যাতায়াতের পথও চিহ্নিত হয়েছে”।

তিনি জানান, “সিএমপিডিআই আধিকারিকদের সঙ্গে কয়লা সচিবের সাম্প্রতিক বৈঠকে অবৈধ খনিজ কর্মকাণ্ড রোধ, জমি পুনরুদ্ধার পর্যবেক্ষণ তদারকির লক্ষ্যে ভারতের ৩৫টি শীর্ষস্তরের কয়লা উৎপাদনকারী খনিতে ড্রোন প্রযুক্তি বাস্তবায়ন নির্দেশিত হয়। ড্রোন প্রযুক্তির জন্য অন্যান্য প্রযোজ্য ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করার ব্যাপারেও জোর দেওয়া হয়”।

জানা গিয়েছে, এমন অনেক খনিতে অবৈধ কয়লা খনন অথবা চুরি চলছে, যেগুলি অতীতে খনি থেকে কয়লা তোলার জন্য বরাদ্দ করা হয়েছিল। কিন্তু পরে সরকার তা ফিরিয়ে নেয়। এক আধিকারিক জানান, “সেখানে অবৈধ ভাবে কয়লা তোলার জন্য ডাম্পার, শভেল এবং পে-লোডার প্রচুর পরিমাণে ব্যবহার করা হচ্ছে”।

[ আরও পড়ুন: তিন বেসরকারি সংস্থার পর মাশুল বাড়াচ্ছে বিএসএনএল ]

তবে অবৈধ খনির বিষয়ে কোনো বিস্তৃত তথ্য নেই। কিন্তু ২০০০ সালে দিল্লিভিত্তিক দ্য এনার্জি অ্যান্ড রিসোর্সেস ইনস্টিটিউট (টেরি)-এর একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে, ইটভাটাতে ২২ মিলিয়ন টন কয়লা ব্যবহার করা হয়েছিল। যেখানে কয়লা ইন্ডিয়া শুধুমাত্র ২ মিলিয়ন টন সরবরাহ করেছিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.