বৃহস্পতিবার প্রভিডেন্ট ফান্ডে সুদের হার ঘোষণা করতে পারে ইপিএফও

0

খবর অনলাইন ডেস্ক: অবসরকালীন তহবিল সংস্থা কর্মচারী প্রভিডেন্ট ফান্ড অর্গানাইজেশন (ইপিএফও) আজ ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রভিডেন্ট ফান্ডের সুদের হার ঘোষণা করতে পারে।

কী বলছেন ট্রাস্টি সদস্য

আজ শ্রীনগরে বৈঠকে বসছে ইপিএফওর প্রধান সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী সংস্থা কেন্দ্রীয় ট্রাস্টি বোর্ড (সিবিটি)। সূত্রের খবর, ২০২০-২১ আর্থিক বছরের সুদের হার ঘোষণার প্রস্তাব আজকের সভায় উঠে আসতে পারে।

ইপিএফও-র এক ট্রাস্টি কেই রঘুনাথন সংবাদ সংস্থা প্রেস পিটিআই-কে বলেছেন, তিনি সোমবার জেনেছেন যে, ৪ মার্চ শ্রীনগরে সিবিটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। তবে একই সঙ্গে তিনি বলেন, ওই চিঠিতে সভার আলোচ্যসূচির কোনো উল্লেখ করা হয়নি।

কমার আশঙ্কা!

আশঙ্কা করা হচ্ছে, কোভিড-১৯ মহামারির কারণে সামগ্রিক অর্থনীতির পরিস্থিতি বিবেচনা করে এ বার প্রায় ৬ কোটি গ্রাহকের ইপিএফে সুদের হার কমানো হতে পারে। গত বারে তেমন আশঙ্কা থাকলেও পূর্ব নির্ধারিত হারেই সুদ পেয়েছেন সংস্থার সদস্যরা।

গত শনিবার প্রকাশিত পে-রোলের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯ সালের একই সময়ের তুলনায় ২০২০ সালের ডিসেম্বরে ইপিএফও-তে নতুন তালিকাভুক্তি ২৪% বৃদ্ধি পেয়ে ১২.৫৪ লক্ষ হয়েছে। শ্রমমন্ত্রক একটি বিবৃতিতে বলেছে, ইপিএফওর অস্থায়ী বেতনভিত্তিক তথ্যের জন্য একটি ইতিবাচক প্রবণতা তুলে ধরেছে নেট গ্রাহক বেস বৃদ্ধি।

তথ্য থেকে জানা গিয়েছে, কোভিড-১৯ মহামারি সত্ত্বেও, ইপিএফও চলতি অর্থবছরের প্রথম ন’মাসে প্রায় ৫৩.৭০ লক্ষ গ্রাহককে যুক্ত করেছে।

এর আগে কত ছিল?

২০১৯-২০ অর্থবর্ষে এই সুদের হার ছিল ৮.৫ শতাংশ। তার আগে অবশ্য এই হার আরও বেশ কিছুটা উপরেই ছিল। ২০১৬-১৭ সালেও ইপিএফে সুদের হার ছিল ৮.৬৫ শতাংশ। তার আগে ২০১৫-১৬ সালে এই সুদের হার ছিল ৮.৮ শতাংশ। তারও আগে ২০১৩-১৪ সালে এবং ২০১৪-১৫ সালে এই সুদের হার ছিল ৮.৭৫ শতাংশ। স্বাভাবিক ভাবেই ২০১৬-১৭ সাল থেকে ক্রমশ নীচের দিকে নেমেছে ইপিএফে সুদের হার। শেষবার .১ শতাংশ বাড়ানো হলেও পুরনো জায়গায় ফেরেনি সুদের হার। একই সঙ্গে ২০২০ অর্থবর্ষে ফের একবার সুদের হার কমানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সূত্রের খবর, এ দিনই ইপিএফের সুদের হার ঘোষণা করা হতে পারে। সুদের হার আগের বারের থেকে হ্রাস পাবে না কি বাড়বে, দীর্ঘ প্রতীক্ষিত সেই প্রশ্নের উত্তর মিলতে পারে এ দিন।

আরও পড়তে পারেন: পেট্রোল, ডিজেল সাড়ে ৮ টাকা সস্তা হতে পারে! কী ভাবে

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন