ফ্রেব্রুয়ারির পর এই প্রথম মাসিক জিএসটি সংগ্রহ ১ লক্ষ কোটি ছাড়াল!

0
gst
প্রতীকী ছবি

খবর অনলাইন ডেস্ক: করোনা লকডাউনে মুষড়ে পড়া অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতে ভাঁটা পড়েছিল পণ্য ও পরিষেবা কর (GST) সংগ্রহে। রবিবার অর্থমন্ত্রক জানাল, ফ্রেব্রুয়ারির পর এই প্রথম মাসিক জিএসটি সংগ্রহ ১ লক্ষ কোটি ছাড়িয়েছে।

অর্থমন্ত্রক জানায়, সদ্য সমাপ্ত অক্টোবর মাসে সংগৃহীত মোট জিএসটি রাজস্বের পরিমাণ পৌঁছেছে ১,০৫,১৫৫ কোটি টাকায়। ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত মোট জিএসটিআর-৩বি রিটার্ন (GSTR-3B return) দাখিলের সংখ্যা ৮০ লক্ষ।

একটি বিবৃতিতে মন্ত্রক বলে, অক্টোবরে যে ১,০৫,১৫৫ কোটি টাকা সংগৃহীত হয়েছে, তার মধ্যে সিজিএসটি বাবদ ১৯,১৯৩ কোটি, এসজিএসটি বাবদ ৫,৪১১ কোটি, আইজিএসটি বাবদ ৫২,৫৪০ কোটি (পণ্য আমদানির উপর ২৩,৩৭৫ কোটি-সহ) এবং সেস বাবদ আয় হয়েছে ৮,০১১ কোটি (পণ্য আমদানির উপর ৯৩২ কোটি-সহ) টাকা।

এক দিকে যেমন ফেব্রুয়ারির পর থেকে সর্বোচ্চ মাসিক জিএসটি সংগ্রহ হয়েছে, তেমনই গত বছরের অক্টোবর মাসের তুলনায় এ বছর একই সময়ে রাজস্ব আয়ের হারে ১০ শতাংশ বৃদ্ধি ঘটেছে।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালে জিএসটি প্রচলনের সময় কেন্দ্রীয় সরকার প্রতিমাসের সংগৃহীত রাজস্বের পরিমাণ কমপক্ষে ১ লক্ষ কোটি টাকা হিসেবে ধার্য করে। এই ধারাবাহিকতা বজায় থাকলেও করোনাভাইরাস মহামারি এবং লকডাউনের কারণে তা হোঁচট খায়।

অর্থনীতি বিশেষজ্ঞদের কথায়, জিএসটি আয়ের পরিমাণ বাড়ায় কেন্দ্রের তরফে রাজ্য সরকারগুলিকে তাদের বকেয়া পরিশোধের পথ সহজ করতে পারে। এমনিতেই জিএসটি ঘাটতির ক্ষতিপূরণ মেটাতে ঋণের টাকায় রাজ্যগুলিকে ধার দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়েছে কেন্দ্র। অর্থমন্ত্রক জানায়, সেই পরিকল্পনার প্রথম পর্যায়ে ১৬টি রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের পক্ষে ৬,০০০ কোটি টাকা ধার নিয়ে সেই টাকা ঋণ হিসাবেই দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়তে পারেন: জিএসটি ক্ষতিপূরণ: প্রথম পর্যায়ে ৬,০০০ কোটি টাকার ঋণ নিয়ে ১৬টি রাজ্যকে দিল কেন্দ্র

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন