জীবন বিমার পেনশন পলিসিতে কী ভাবে বদলেছে নিয়ম?

0
Currency
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: সমসাময়িক জীবনধারণের চাহিদা মেনেই লাইফ ইন্স্যুরেন্স বা জীবন বিমা পলিসিগুলি বড়ো ধরনের পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে চলেছে। কী ভাবে পলিসির গ্রাহককে আরও বেশি সুবিধা দেওয়া যায়, সে সব নিয়েই চলছে চিন্তাভাবনা। এ ব্যাপারে ইন্স্যুরেন্স রেগুলেটরি অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট অথরিটি অব ইন্ডিয়া (আইআরডিএ) সম্প্রতি মেয়াদ, এনডাওমেন্ট, ইউলিপস এবং পেনশন পরিকল্পনার চূড়ান্ত পণ্য বিধিমালা প্রকাশ করেছে। এগুলির মধ্যে অন্যতম পেনশন পরিকল্পনাগুলিতে সর্বোচ্চ পরিমাণে টাকা তোলার অনুমতি।

পেনশন পরিকল্পনার আওতায় ম্যাচুরিটির সময় সর্বোচ্চ পরিমাণ টাকা তোলার অনুমোদন এক তৃতীয়াংশ থেকে বাড়িয়ে ৬০% করা হয়েছে। তবে এটি ন্যাশনাল পেনশন সিস্টেমের (এনপিএস) সমতুল্য বিমা পেনশন পরিকল্পনার মতো নয়। এনপিএসে ম্যাচুরিটির সময়ে অনুমোদিত ৬০% তোলা টাকা করমুক্ত। জীবন বিমার পেনশন পলিসি ম্যাচুরিটির সময়
৬০% অর্থ তুলে নেওয়ার অনুমোদন থাকলেও ওই অর্থের মাত্র এক তৃতীয়াংশ করমুক্ত।

এ প্রসঙ্গে আদিত্য বিড়লা সান লাইফ ইন্স্যুরেন্সের চিফ অ্যাকুয়ারিয়াল অফিসার অনিলকুমার সিং বলেন, “পেনশন পলিসির এক তৃতীয়াংশ পর্যন্ত প্রত্যাহার করমুক্ত হবে, তবে এর পরের বাড়তি টাকা করযোগ্য”।

ম্যাচুরিটির আগে টাকা তোলা নিয়েও নিয়ম অনেকটাই সহজ এবং সুবিধাজনক করা হয়েছে। যেমন পাঁচ বছরের লক-ইন শেষ হয়ে গেলে, পলিসিধারীরা আংশিক ভাবে তহবিল মূল্যের ২৫% অবধি  টাকা তুলে নিতে পারেন। তবে এ ভাবে মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার আগে টাকা তোলার সংখ্যা সর্বাধিক তিন বার পর্যন্ত হতে পারে, তার বেশি নয়। একই সঙ্গে এই ধরনের প্রত্যাহার কেবল তখনই অনুমোদিত হবে যদি নির্দিষ্ট লক্ষ্যগুলির জন্য গ্রাহকের টাকার প্রয়োজন হয়। যেমন – উচ্চশিক্ষা, সন্তানের বিবাহ, বাড়ি কেনা বা নির্মাণ এবং স্বামী বা স্ত্রীর গুরুতর অসুস্থতার চিকিৎসা ইত্যাদি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.