“বাবা-মা বলেছিলেন, ঘাস কাটা ছাড়া এর অন্য কাজ জুটবে না”, ছেলেবেলা হাতড়ালেন ওয়ো কর্ণধার

0
ritesh agarwal

ওয়েবডেস্ক: বছর ছয়েক আগেই হোটেল, গেস্ট হাউস, লজ-এর ঘর ভাড়ার ব্যবসার পর প্রযুক্তি ভিত্তিক হোটেল বুকিংয়ে ব্যবসা চুটিয়ে চালিয়ে যাচ্ছে ওয়ো। দিল্লি ও সন্নিহিত এলাকা (নয়ডা, গুরুগ্রাম) থেকে যাত্রা শুরু করে সারা বিশ্বেই পসার বিস্তার করেছে সংস্থা। এই সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা এবং সিইও রীতেশ আগরওয়াল নিজের শৈশবের স্মৃতি হাতড়ে বাবা-মায়ের বলা কথার পুনরাবৃত্তি করলেন।

মাত্র ১৯ বছর বয়সেই তিন মাসের ভারত সফরে বেরোন রীতেশ। দার্জিলিং, দিল্লি, গোয়া, কেরল এবং রাজস্থানে কী ভাবে স্বল্প খরচে ভ্রমণ করা যায়, তা নিয়েই খুঁটিনাটি অভিজ্ঞতা অর্জন করে নেন রীতেশ। তার পরেই একাধিক ঘাট পার হয়ে নিজের সংস্থার আত্মপ্রকাশ।

সাফল্য অর্জনের চাবিকাঠি নিয়ে রীতেশ বলেন, “প্রথমেই চলে আসে দক্ষ পরিচালনার কথা। ইউনিট পর্যায় থেকেই লাভজনক ছিল আমাদের ব্যবসা, যা এই প্রথম পর্যায়ে শোনা যায় না। আসলে অর্থনৈতিক মাপকাঠিগুলোকে সঠিক ভাবে নিরীক্ষণের মাধ্যমেই এই সাফল্য আসে। একই সঙ্গে বিনিয়োগের বহর ক্রমশ বাড়ানো, প্রযুক্তির প্রয়োগ, প্রতিভাবানদের নিয়োগ, গ্রুপ পর্যায়ে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা ইত্যাদি”।

ব্লুমবার্গের কাছে একটি সাক্ষাৎকারে রীতেশ বলেন, “আমার বাবা-মা একবার আমাকে বলেছিলেন, ‘ঘাস কাটা ছাড়া আর কোনো কাজ এর জুটবে না”।

একই সঙ্গে তিনি যোগ করেন, “আমার তিন দাদা ইঞ্জিনিয়ার, তাঁদের মধ্যে দুই জন এমবিএ। সেই জায়গায় আমি কলেজ-ছুট। আমার বাবা-মা ভাবতেন, তাঁদের তিন ছেলে কৃতী, আর আমি কালো ভেঁড়া”।

[ আরও পড়ুন: হাওয়া খারাপ! ফের জিডিপির লক্ষ্যমাত্রা কমাল রিজার্ভ ব্যাঙ্ক ]

উল্লেখ্য, সংস্থার বিরুদ্ধে বিভিন্ন মহল থেকে একাধিক অভিযোগ উঠলেও সংস্থাগত ভাবে ওয়োর মূল্য এখন ১০ বিলিয়ন ডলার।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন