বাড়তি খরচ কমাতে অন্তর্বাস কেনায় অনীহা এ দেশের পুরুষদের!

0

ওয়েবডেস্ক: হতে পারে বিষয়টি একটু খটমটে, তবুও আর্থ-সামাজিক পরিস্থিতির প্রতিফলন অনেকটাই স্পষ্ট। অ্যালেন গ্রিনস্প্যানের একটি পর্যবেক্ষণের সঙ্গে গত জুন ত্রৈমাসিকে এ দেশের অন্তর্বাস প্রস্তুতকারী সংস্থাগুলির ব্যবসার নিম্নমুখিনতার তুলনা অর্থনীতির ‘ফাঁপা’ দিকটিকেই স্পষ্ট করে দিচ্ছে।

ওয়াকিবহাল মহলের মতে, চলতি কথায় মেন’স আন্ডারওয়ার ইনডেক্স এক ধাক্কায় গোঁত্তা খেয়ে অনেকটাই নীচের দিকে ধাবমান। ভারতীয় পুরুষদের বিবেচনাধীন খরচের তালিকা থেকেই অনেক ক্ষেত্রেই বাদ পড়েছে অন্তর্বাস কেনার বিষয়টি। যে কারণে ওই সূচকও নেমে গিয়েছে অনেকটাই। তবে এটা কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। কোনো দেশের অর্থনৈতিক অবস্থার সঙ্গে ওতপ্রোত ভাবে জড়িয়ে রয়েছে এর গতিবিধি।

অ্যালেন গ্রিনস্প্যান গত শতাব্দীর সাতের দশকে আমেরিকার কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক ফেডারেল রিজার্ভের বোর্ড চেয়ারম্যান ছিলেন। তাঁরই প্রচলিত এই আন্ডারওয়ার ইনডেক্স বহুমুখী উদ্দেশ্য সাধিত করে। যেমন, কোনো দেশের পুরুষদের অন্তর্বাস কেনা কমে যাওয়ার অর্থ সেই দেশের অর্থনীতির দরিদ্র দিকটিকে তুলে ধরে বলে মনে করে এই ইনডেক্স। আবার উল্টো ক্ষেত্রে বিপরীত উদ্দেশ্য সাধিত করে।

এ দেশের অন্তর্বাস প্রস্তুতকারী সংস্থাগুলির পরিসংখ্যানেও দেখা গিয়েছে, গত জুন ত্রৈমাসিকে অন্তর্বাস বিক্রির হার গত এক দশকের তালিকায় সব থেকে দুর্বল পারফরম্যান্স হিসাবে চিহ্নিত হয়েছে।

জকি ব্র্যান্ডের অন্তর্বাস প্রস্তুতকারক পেজ ইন্ডাস্ট্রিজের বিক্রি বেড়েছে মাত্র ২ শতাংশ। যা গত ২০০৮ সালের পর থেকে প্রায় দশ বছরে সর্বনিম্ন। অন্য দিকে ডলার ইন্ডাস্ট্রিজের বিক্রি কমেছে ৪ শতাংশ, সেখানে ভিআইপির বিক্রি কমে গিয়েছে ২০ শতাংশ। পাশাপাশি লাক্স ইন্ডাস্ট্রিজের বিক্রি কোনো ভাবে একই রকম। গত জুন ত্রৈমাসিকের এই পরিসংখ্যানকেই অ্যালেন গ্রিনস্প্যানের তত্ত্বের ভিত্তিতে বিচার করা হচ্ছে।

উল্লেখিত প্রতিটি সংস্থার উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তারাই জানিয়েছে, দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে গুরুত্বপূর্ণ বেশ কয়েকটি বিষয়ের জন্যই অন্তর্বাস বিক্রিতে মন্দার ঢল নেমেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.