Connect with us

শিল্প-বাণিজ্য

হাওয়া খারাপ! ফের জিডিপির লক্ষ্যমাত্রা কমাল রিজার্ভ ব্যাঙ্ক

RBI

ওয়েবডেস্ক: গত ৩ ডিসেম্বর থেকে তিন দিনের মুদ্রানীতি পর্যালোচনা বৈঠকে বসেছিল আরবিআই। ওই বৈঠকের শেষে বৃহস্পতিবার সুদের হার অপরিবর্তিত রাখার কথা ঘোষণা করল কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক। একই সঙ্গে জানানো হয়, জিডিপির লক্ষ্যমাত্রাও হ্রাস করা হচ্ছে।

গভর্নর শক্তিকান্ত দাসের নেতৃত্বাধীন আরবিআইয়ের অর্থনৈতিক নীতি কমিটি (এমপিসি) এ দিন ২০১৯-২০ অর্থবর্ষের পঞ্চম বৈঠকের পর ঘোষণা করে, রেপো রেট অপরিবর্তিত রাখা হবে। এর আগে টানা পাঁচবার রেপো রেট কমিয়েছিল আরবিআই। তবে এ দিন জানানো হয়, ৫.১৫ শতাংশেই স্থির থাকছে রেপো রেট।

অর্থনৈতিক বিশ্লেষকরা ধারণা করেছিলেন, জিডিপি বৃদ্ধির মন্দদশায় ব্যাঙ্কিং ব্যবস্থায় বাড়তি অক্সিজেন জোগাতে রেপো রেট কমাতে পারে কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক। তবে ন’বছরের সর্বনিম্ন ৫.১৫ শতাংশেই অনড় থাকল আরবিআই।

কিন্তু জিডিপির পূর্বাভাসে পিছু হঠতে বাধ্য হয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক। শেষ ত্রৈমাসিকে জিডিপি বৃদ্ধির হার ছ’বছরের সর্বনিম্ন স্তরে এসে ঠেকেছে। গত সপ্তাহে প্রকাশিত সরকারি তথ্যে প্রকাশিত হয়েছে, জুলাই-সেপ্টেম্বর ত্রৈমাসিকে ভারতের গ্রস ডোমেস্টিক প্রডাক্ট (জিডিপি) বৃদ্ধি ৪.৫ শতাংশে এসে ঠেকেছে। 

স্বাভাবিক ভাবেই চলতি অর্থবর্ষের জন্য নির্ধারিত ৬.১ শতাংশ জিডিপি বৃদ্ধির পূর্বাভাস থেকে কিছুটা অবনমন ঘটেছে। এ দিন আরবিআই জানায়, জিডিপি বৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা হিসাবে ৫ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছে। একাধিক বার রেপো রেট কমিয়েও অর্থনৈতিক মন্দায় তেমন কোনো পরিবর্তনা না আসাতেই সম্ভবত রেপো রেট অপরিবর্তিত রেখে জিডিপির লক্ষ্যমাত্রায় অবনমন ঘটাল আরবিআই!

একই সঙ্গে বৈঠকে আশা প্রকাশ করা হয়, আগামী কয়েকটি টার্মে মুদ্রাস্ফীতি অব্যাহত থাকলেও আগামী ২০২০-২১ অর্থবর্ষে এই পরিস্থিতির সমূহ বদল ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে।

শিল্প-বাণিজ্য

আক্রান্ত আড়াইশো! অস্থায়ী ভাবে বাজাজের একটি প্রকল্প বন্ধের দাবি কর্মী সংগঠনের

ওয়েবডেস্ক: বাজাজ অটোর (Bajaj Auto) একটি প্রকল্পেই প্রায় আড়াইশো জনের করোনাভাইরাস আক্রান্ত হওয়ার পর অস্থায়ী ভাবে কাজ বন্ধের দাবি তুলল কর্মী সংগঠন।

কোভিড-১৯ মহামারির (Covid-19 pandemic) জেরে লকডাউনের কারণে দীর্ঘ বন্ধ ছিল সংস্থার পশ্চিম মহারাষ্ট্রের প্লান্টটি। কিন্তু লকডাউনের কড়াকড়ি শিথিল হতে ফের উৎপাদন চালু হওয়ার পর একে একে কর্মীরা করোনা আক্রান্ত হতে শুরু করেন।

বাজাজ অটোর মুখ্য মানবসম্পদ আধিকারিক রবি রামস্বামী গত ২৬ জুন একটি অফিসিয়াল বিবৃতিতে জানান, “বলুজ প্লান্টে সংস্থার কর্মী এবং ঠিকাকর্মী মিলিয়ে সংখ্যাটা প্রায় ৮,১০০। এখনও পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ১৪০ জন। যা মোট কর্মী সংখ্যার ২ শতাংশেরও কম। উচ্চরক্তচাপ এবং ডায়াবেটিসে আক্রান্ত দুই কর্মী করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন”।

তিনি আরও জানান, “আক্রান্ত কর্মীদের সমস্ত রকমের সহযোগিতা করছে সংস্থা। চিকিৎসা সংক্রান্ত সহযোগিতাও করা হচ্ছে। একই সঙ্গে কোভিড-১৯ সুরক্ষাবিধি মেনে কাজও চালু রয়েছে। এখন যদি ‘নো ওয়ার্ক নো পে’ নীতি নিয়ে কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়, তা হলে তার নেতিবাচক প্রভাব পড়বে আমাদের কর্মীদের উপর। অন্য দিকে সরবরাহেও ঘাটতি দেখা দেবে”।

কী বলছে কর্মী সংগঠন?

তবে তার পর থেকে পরিস্থিতির কোনো উন্নতি হয়নি বলেই দাবি করছে কর্মী সংগঠন। তাদের দাবি, আক্রান্তের সংখ্যা আড়াইশোয় পৌঁছে গিয়েছে। বাজাজ অটো ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের প্রেসিডেন্ট থেঙ্গাদ বাজিরাও (Thengade Bajirao) জানান, “মানুষ আতঙ্কের মধ্যে কাজে আসছেন। কিছু কর্মী এখনও আসছেন, তবে অনেকেই ছুটিতে রয়েছেন”।

তিনি আরও বলেন, “আমরা সংক্রমণের চক্রটি ভেঙে দেওয়ার জন্য সংস্থাকে ১০-১৫ দিনের জন্য অস্থায়ী ভাবে প্রকল্পটি বন্ধ করার জন্য অনুরোধ করেছি। তবে তারা জানিয়েছে, কাজ বন্ধ থাকলেও কর্মীরা হয়তো বিভিন্ন সামাজিক কাজে বাইরেই থাকবেন, ফলে কোনো লাভ নেই।”

এক কর্মী জানিয়েছেন, “একাধিক কর্মী একটি মেশিন স্পর্শ করেন। আমরা স্বাস্থ্যসুরক্ষার ব্যবস্থা হিসাবে মাস্ক অথবা গ্লাভস ব্যবহার করছি। তা সত্ত্বেও আক্রান্ত হতে হচ্ছে”।

বাজাজের বার্তা

কর্মীরা কাজে যোগ না দিলে কী হতে পারে, তা স্পষ্ট ভাষায় জানিয়েছে সংস্থা। বলা হয়েছে, “কোনো কর্মচারী যদি কোম্পানির কাছে গরহাজিরার সঠিক কারণ না জানাতে পারেন … তা হলে ওই সময়কালে তাঁর বেতনের ১০০% কেটে নেওয়া হবে”।

Continue Reading

শিল্প-বাণিজ্য

কয়েক হাজার কর্মীকে ছাঁটাই করেছে কগনিজ্যান্ট, অভিযোগ ইউনিয়নের

কগনিজ্যান্ট বলেছে, তৃতীয় পক্ষ থেকে যে অভিযোগ করা হচ্ছে তা সঠিক নয়, তথ্যভিত্তিক নয় এবং কগনিজ্যান্ট এই ঘোষণা করেনি।

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ক্লায়েন্টদের প্রকল্পের সঙ্গে সরাসরি জড়িত নয়, এমন কয়েক হাজার ‘বেঞ্চ এমপ্লয়ি’কে ছাঁটাই করেছে (lay off) তথ্যপ্রযুক্তি শিল্পে অন্যতম অগ্রণী সংস্থা কগনিজ্যান্ট (Cognizant)। এই অভিযোগ কর্মী ইউনিয়নগুলির।

কর্নাটক ও চেন্নাইয়ের তথ্যপ্রযুক্তি কর্মী ইউনিয়নগুলি অভিযোগ করেছে, সারা ভারত জুড়ে প্রায় ১৮ হাজার কর্মীকে বেঞ্চে রেখে শেষ পর্যন্ত ছাঁটাই করেছে কগনিজ্যান্ট টেকনোলজি সল্যুশনস্‌ (Cognizant Technology Solutions)।

কগনিজ্যান্ট-এর পরিচালন কর্তৃপক্ষ যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তার “তীব্র নিন্দা করেছে” কর্নাটক স্টেট আইটি/আইটিইএস এমপ্লয়িজ ইউনিয়ন (কিটু, KITU)  

‘বেঞ্চ এমপ্লয়ি’ কারা

ক্লায়েন্টদের প্রকল্পের সঙ্গে যাঁরা সরাসরি জড়িত থাকেন না, তাঁদের বলা হয় ‘বেঞ্চ এমপ্লয়ি’ (Bench Employee)। এঁরা হচ্ছেন কোম্পানির ‘নন-বিলেবল’ সম্পদ। অর্থাৎ এঁদের জন্য যে খরচা হয় তার বিল কোনো ক্লায়েন্টের খাতে ধরা হয় না।

প্রশ্ন হল, এই ‘বেঞ্চ এমপ্লয়ি’দের কেন রাখা হয়? তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থাগুলি তাদের মোট কর্মীসম্পদের একটা ক্ষুদ্র অংশকে ‘বেঞ্চ এমপ্লয়ি’ হিসাবে রেখে দেয় যাতে তাঁরা কিছু প্রকল্পের কাজ দ্রুততার সঙ্গে সম্পন্ন করে দিতে পারেন।      

ইউনয়ন কী বলেছে

এক বিবৃতিতে কিটু বলেছে, “‘কর্মীসম্পদের ব্যবহার কার্যকর ভাবে পরিচালনার’ নামে বিশাল সংখ্যক কর্মীকে লে অফ করার খবর আসছে কগনিজ্যান্ট থেকে। সারা ভারত জুড়ে কয়েক হাজার কর্মী এর শিকার হচ্ছেন। এ রকম বেশ কিছু কর্মী কিটু-র দ্বারস্থ হয়েছে। এই অবৈধ কাজের জন্য কগনিজ্যান্ট পরিচালন কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে আইনি যুদ্ধ শুরু করেছে ইউনিয়ন।”

দ্য নিউ ডেমোক্র্যাটিক লেবার ফ্রন্ট (এনডিএলএফ, NDLF) নামে চেন্নাইয়ের তথ্যপ্রযুক্তি কর্মীদের একটি ইউনিয়নও অভিযোগ করে বলেছে, কগনিজ্যান্ট তার চেন্নাই অফিসের কর্মীদের বেঞ্চে পাঠাচ্ছে এবং ৪১ দিন পরে তাদের ইস্তফা দিতে বাধ্য করছে।

কগনিজ্যান্ট কী বলছে

টাটা কনসালট্যান্সির পরেই কগনিজ্যান্ট হল তথ্যপ্রযুক্তি শিল্পে দ্বিতীয় সর্ববৃহৎ সংস্থা। সারা বিশ্বে প্রায় ২ লক্ষ ৯০ হাজার কর্মী কাজ করে এই সংস্থায়। এর মধ্যে ভারতেই ২ লক্ষের বেশি, যার অধিকাংশই চেন্নাই অফিসে।

কগনিজ্যান্টের এক জন মুখপাত্র অবশ্য ঠারেঠোরে বলেছেন, কোনো লে অফ হয়ে থাকলে তা শুধুমাত্র পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে হয়ে থাকবে। তিনি বলেন, “তথ্যপ্রযুক্তি শিল্পে কগনিজ্যান্ট-সহ সব কোম্পানিতেই পারফরম্যান্স ম্যানেজমেন্ট একটা স্বাভাবিক প্রক্রিয়া।”

মুখপাত্র বলেন, “বাজারে কী গুজব ছড়াচ্ছে বা আলোচনা চলছে তা নিয়ে কগনিজ্যান্ট কোনো মন্তব্য করে না। আমরা এটুকু ব্যাখ্যা দিতে পারি যে, কার্য ক্ষেত্রে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে কিছু সংখ্যা নিয়ে তৃতীয় পক্ষ থেকে যে অভিযোগ করা হচ্ছে তা সঠিক নয়, তথ্যভিত্তিক নয় এবং কগনিজ্যান্ট এই ঘোষণা করেনি।”

Continue Reading

শিল্প-বাণিজ্য

আয়কর দাখিলের সময়সীমা বাড়ল

গত অর্থবর্ষের সমস্ত আয়কর এখন ৩০ নভেম্বর, ২০২০ পর্যন্ত জমা করা যাবে।

Income Tax

ওয়েবডেস্ক: করোনাভাইরাস মহামারির (Coronavirus pandemic) কারণে ২০১৯-২০ আর্থিক বছরের আয়কর দাখিলের (Income Tax return) সময়সীমা বাড়াল আয়কর দফতর।

আয়কর বিভাগের বিবৃতি অনুযায়ী, গত অর্থবর্ষের সমস্ত আয়কর এখন ৩০ নভেম্বর, ২০২০ পর্যন্ত জমা করা যাবে।

শনিবার টুইটারে আয়কর বিভাগ জানায়, “আমরা যে সময়ের মধ্যে যাচ্ছি, তা বিবেচনায় রেখে আয়কর দাখিলের সময়সীমা বাড়িয়েছি। এখন, ২০১৯-২০ অর্থবছরের আইটিআর (ITR) ফাইলিংয়ের মেয়াদ ৩০ নভেম্বর, ২০২০ পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। আমরা আশা করি এই সিদ্ধান্ত আপনাকে সহায়তা করবে।”

গত অর্থবর্ষের আয়কর রিটার্ন জমা দেওয়ার শেষ সময়সীমা প্রথমে ছিল ৩০ জুন থেকে ৩১ অক্টোবর। করোনাভাইরাস মহামারি এবং তার জেরে লকডাউন আবহে যা বর্ধিত করে ৩১ জুলাই করা হয়েছিল। তা আরও বাড়িয়ে ৩০ নভেম্বর করা হল। এর আগে ফর্ম-১৬ প্রাপ্তির সময়সীমা ১৬-৩০ জুন পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছিল। গত ৩১ মার্চের একটি অর্ডিন্যান্সে ওই ঘোষণা করা হয়।

মাস তিনেক আগেই কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন (Nirmala Sitharaman) এক সাংবাদিক সম্মেলনে মেয়াদ বাড়ানোর কথা ঘোষণা করেন। তিনি বলেন, ২০১৯-২০ সালের আয়কর দাখিলের পূর্বনির্ধারিত সময়সীমা ৩১ জুলাই-৩১ অক্টোবর বাড়িয়ে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত করা হয়েছে।

অন্য দিকে অ্যাসেসমেন্টের ক্ষেত্রে ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ তারিখটি এখন ৩০ ডিসেম্বর, ২০২০ পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে এবং ২০২১ সালের মার্চের সীমাটি ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২১ পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

কর অডিটের সময়সীমাও এক মাস বাড়ানো হয়েছে। ২০২০-এর ৩০ সেপ্টেম্বরের বদলে তা পিছিয়ে করা হয়েছে ২০২০-এর ৩১ অক্টোবর।

Continue Reading
Advertisement
দেশ2 mins ago

গালোয়ান থেকে সেনা সরাচ্ছে চিন

রাজ্য17 mins ago

আচমকা তৈরি হওয়া নিম্নচাপের প্রভাবে বৃষ্টি দক্ষিণবঙ্গে

রাজ্য50 mins ago

করোনা রুখতে পশ্চিমবঙ্গের ‘সেফ হোম’-এর ভূয়সী প্রশংসা কেন্দ্রের

coronavirus
রাজ্য2 hours ago

নমুনা পজিটিভ হওয়ার হারে পশ্চিমবঙ্গের অবস্থান বাকি দেশের তুলনায় কোন জায়গায়?

দেশ2 hours ago

ছয় রাজ্যে ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে নতুন করে সংক্রমিত ১৭,৬৪৭, বাকি দেশে ৬,৬০১

দেশ2 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ২৪২৪৮, সুস্থ ১৫৩৫০

কলকাতা3 hours ago

কলকাতায় এখন ১৮টি কনটেনমেন্ট জোন, ১৮৭২টি আইসোলেশন ইউনিট, ফারাকটা কোথায়?

দেশ4 hours ago

আগামী এক বছর কেরলে মানতে হবে করোনা সংক্রান্ত স্বাস্থ্যবিধি, অন্যথায় বিপুল অঙ্কের জরিমানা

দেশ2 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ২৪২৪৮, সুস্থ ১৫৩৫০

কলকাতা2 days ago

কলকাতায় অতিসংক্রমিত ১৬টি অঞ্চলকে পুরোপুরি সিল করে দেওয়ার প্রস্তুতি

wfh
ঘরদোর3 days ago

ওয়ার্ক ফ্রম হোম করছেন? কাজের গুণমান বাড়াতে এই পরামর্শ মেনে চলুন

fat
শরীরস্বাস্থ্য3 days ago

কোমরের পেছনের মেদ কমান এই ব্যায়ামগুলির সাহায্যে

thunderstorm
রাজ্য3 days ago

কলকাতা-সহ গোটা দক্ষিণবঙ্গে সন্ধ্যার মধ্যে বজ্রবিদ্যুৎ-সহ ঝড়বৃষ্টির সম্ভাবনা

রাজ্য2 days ago

করোনা-আক্রান্তের সংখ্যায় কলকাতাকে পেছনে ফেলে দিল হায়দরাবাদ, বেঙ্গালুরু

বিদেশ3 days ago

প্রধানমন্ত্রীর লাদাখ সফরের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই চিনের প্রতিক্রিয়া

দেশ2 days ago

পাঁচ রাজ্যে নতুন করে করোনা-আক্রান্ত ১৬,৭৯৯ বাকি দেশে ৫,৯৭২

কেনাকাটা

কেনাকাটা20 hours ago

হ্যান্ড স্যানিটাইজারে ৩১ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

অনলাইনে খুচরো বিক্রেতা অ্যামাজন ক্রেতার চাহিদার কথা মাথায় রেখে ঢেলে সাজিয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের সম্ভার।

DIY DIY
কেনাকাটা6 days ago

সময় কাটছে না? ঘরে বসে এই সমস্ত সামগ্রী দিয়ে করুন ডিআইওয়াই আইটেম

খবর অনলাইন ডেস্ক :  এক ঘেয়ে সময় কাটছে না? ঘরে বসে করতে পারেন ডিআইওয়াই অর্থাৎ ডু ইট ইওরসেলফ। বাড়িতে পড়ে...

smartphone smartphone
কেনাকাটা1 week ago

লকডাউনের মধ্যে ফোন খারাপ? রইল ৫ হাজারের মধ্যে স্মার্টফোনের হদিশ

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনা সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচতে ঘরে বসে যতটা কাজ সারা যায় ততটাই ভালো। তাই মোবাইল ফোন খারাপ...

কেনাকাটা1 week ago

১০টি ওয়াশেবল মাস্ক দেখে নিন

খবর অনলাইন ডেস্ক : বাইরে বেরোচ্ছেন। মাস্ক অবশ্যই ব্যবহার করুন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনাভাইরাসের হাত থেকে বাঁচতে তিন স্তর বিশিষ্ট মাস্ক...

নজরে