প্রতিনিধিত্বমূলক ছবি

ওয়েবডেস্ক: পেট্রল ও ডিজেলের উপর শুল্ক বাড়ানোর সিদ্ধান্ত কার্যকর করেছে কেন্দ্র। গত শুক্রবার সাধারণ বাজেট ২০১৯ পেশের পর পেট্রল-ডিজেলের দামে ওই বাড়তি শুল্ক লাগু হয়েছে। এর জেরে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্যবৃদ্ধির আশঙ্কা গাঢ় হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া (আরবিআই) মূদ্রাস্ফীতি রোধে নড়েচড়ে বসল।

নির্মল ব্যাঙ ইক্যুইটিস লিমিটেডের অর্থনীতিবিদ তেরেসা জনের মতে, অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন যে হারে এক লিটার জ্বালানি তেলের উপর বাড়তি শুল্ক আরোপ করেছেন, তার ফলে মুদ্রাস্ফীতির উপর ১০ বেসিস পয়েন্টের কম প্রভাব পড়বে। কিন্তু অর্থনীতির অন্যান্য অংশে উচ্চতর পরিবহন খরচ চাপার দরুণ দ্বিতীয় রাউন্ডের প্রভাবগুলি মুদ্রাস্ফীতির হারে ১০ বেসিস পয়েন্টের থেকেও বেশি প্রভাব ফেলতে পারে।

এই সিদ্ধান্তটি প্রকৃতপক্ষে মুদ্রাস্ফীতির সুচককে সরাতে পারবে না। কারণ জন বলেন, প্রথম রাউন্ডে ৬-৭ বেসিস পয়েন্টের প্রভাব ফেলতে পারে প্রভাব দেখেছেন। যে কারণে গড় মুদ্রাস্ফীতির হার ৩.৮-৩.৯ শতাংশের মধ্যেই থাকতে পারে।
প্রসঙ্গত, এই অভিক্ষেপটি আরবিআইয়ের মধ্যমেয়াদি মুদ্রাস্ফীতি লক্ষ্যমাত্রার নীচে। কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের মুদ্রাস্ফীতির লক্ষ্যমাত্রা ৪ শতাংশ। যা সেপ্টেম্বরে ২০১৯-২০ আর্থিক বছরের প্রথমার্ধে ৩-৩.১ শতাংশ এবং দ্বিতীয়ার্ধে ৩.৪-৩.৭ শতাংশের পূর্বাভাস দিয়ে রেখেছে আরবিআই।

আরবিআই ইতিমধ্যে এ বছরে তিনবার সুদের হার হ্রাস করেছে এবং বাজার ধারণা করছে আগামী মাসে আরও সহজতর হবে। নইলে তলানিতে এসে ঠেকা জিডিপির হারকে লক্ষ্যমাত্রায় নিয়ে যাওয়া সাধ্যের বাইরে চলে যেতে পারে ধারণা করছেন অর্থনৈতিক বিশ্লেষকরা।

[ আরও পড়ুন: মিশন ৫ ট্রিলিয়ন! বাজেট পেশের পর বাজারে ধস পাহাড়প্রমাণ ]

তাঁদের মতে, অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম বিশ্বব্যাপী হ্রাস পেয়েছে। এমন জায়গা থেকে এ দেশে তার উপর অতিরিক্ত শুল্ক চাপানোয় দেশের অর্থনীতি আর বিশ্বঅর্থনীতির সঙ্গে সমান্তরাল ভাবে এগোতে পারে না।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন