এ বার বৈদ্যুতিক মোটর বাইক নিয়ে আসছে রয়্যাল এনফিল্ড!

0
royal enfield
রয়্যাল এনফিল্ড। প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: রয়্যাল এনফিল্ড নিজস্ব বৈদ্যুতিক মোটরসাইকেল চালু করে হারলে ডেভিডসনকে চ্যালেঞ্জ জানাতে প্রস্তুত। সংস্থাটি বৈদ্যুতিক মোটরসাইকেল-সহ নতুন নতুন মডেল নিয়ে কাজ করছে। একটি সাক্ষাৎকারে রয়্যাল এনফিল্ডের সিইও বিনোদ দশারি একাধিক নতুন মডেলের ইঙ্গিত দিয়েছেন। তিনি বলেন, বর্তমান মন্দার ক্ষেত্রে সব থেকে খারাপ অবস্থার সমাপ্তি হয়েছে। একই সঙ্গে তিনি আশা করছেন, গাড়ি বিক্রির গতি আরও বাড়বে। তাঁর মতে, এই শিল্পে মন্দা দেখা দিলেও মূলধন বিনিয়োগে ভাঁটা পড়েনি। স্বাভাবিক ভাবেই এই শিল্প নিজের লক্ষ্যে এগিয়ে যাবে, শুধু যা সময় লাগবে।

তিনি বলেন, “শুধু মন্দা ছিল বলেই আমরা আমাদের বিনিয়োগে কাটছাঁট করিনি। আমি মনে করি না যে আমরা কোনো বড়ো সুবিধার জন্য আরও বেশি ব্যয় করব, আমাদের ওই বিনিয়োগের বেশিরভাগই সক্ষমতা বৃদ্ধি, নতুন পণ্য, বৈদ্যুতিক এবং অন্যান্য সামগ্রীতে যাবে। এবং বিশ্বজুড়ে অনেকগুলি ছোট ছোট অ্যাসেমব্লিং প্লান্টে যাবে”।

অন্য একটি সাক্ষাৎকারে, দশারি বৈদ্যুতিক মোটরসাইকেল তৈরির পরিকল্পনার কথা বিস্তারিত ভাবে জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ব্রিটেনে সংস্থার প্রযুক্তি কেন্দ্রটি নতুন পণ্য বিকাশের কাজকে সজ্জিত করেছে। যুক্তরাজ্যের প্রযুক্তি কেন্দ্রটি দু’টি নতুন পণ্য বিকাশের দায়িত্ব দেওয়া দু’টি গবেষণা ও উন্নয়ন কেন্দ্রগুলির মধ্যে একটি। দশারি আরও বলেন, ওই প্রযুক্তি কেন্দ্র একটি বর্তমান মডেলকে বৈদ্যুতিক পাওয়ার ট্রেন দিয়ে চালানোর পরীক্ষা করা হচ্ছে। এটাকেই তিনি ভবিষ্যতের প্রস্তুতির উপায় হিসাবে দেখছেন।

রয়্যাল এনফিল্ড । ফাইল ছবি

ভবিষ্যতের পণ্যগুলির সঙ্গে রয়্যাল এনফিল্ড শুধুমাত্র ভারতের ক্রমবর্ধমান বাজারের দিকে তাকিয়ে থাকবে না। সংস্থা এটাকে আন্তর্জাতিক বাজারে উপস্থিতি আরও জোরদার করার সুযোগ হিসাবেও দেখছে। যুক্তরাজ্য ছাড়াও রয়্যাল এনফিল্ডের চেন্নাইতে একটি গবেষণা ও উন্নয়ন কেন্দ্র রয়েছে। সংস্থা জানিয়েছে, তার ভবিষ্যতের পণ্য কৌশলটিতে বৈদ্যুতিক মোটরসাইকেল অন্তর্ভুক্ত থাকবে। তবে, সংস্থাটি ইলেকট্রিক পাওয়ার ট্রেন দিয়ে তার প্রথম মোটরসাইকেলটি চালু করতে কয়েক বছর সময় নিতে পারে। এই বছরের প্রথম দিকে থাইল্যান্ডে, ভারতের বাইরে এই সংস্থাটি প্রথম অ্যাসেম্বলি প্ল্যান্ট স্থাপন করেছিল।

[ আরও পড়ুন: ২০১৯-এর সব থেকে শক্তিশালী অন্যতম ৫টি মোটরবাইক ]

এমন সম্ভাবনা রয়েছে যে রয়্যাল এনফিল্ড তার একটি আধুনিক ক্লাসিক মডেলকে বৈদ্যুতিক পাওয়ার ট্রেন দিয়ে চালু করবে। হারলে ডেভিডসন ইতোমধ্যে বিশ্বব্যাপী লাইভওয়্যার নামে প্রথম বৈদ্যুতিক মোটরসাইকেল চালু করেছে। তবে, লঞ্চটি সংস্থার পক্ষে খুব একটা ভালো হয়নি। মডেলটির পুনর্বিবেচনা করা প্রয়োজন বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। রয়্যাল এনফিল্ডের পক্ষে চ্যালেঞ্জটি প্রাথমিক স্তরেই থাকবে। পরের কয়েক বছরে ভারত বিস্তৃত বাজার পাওয়ার পর রয়্যাল এনফিল্ড সেই সময়ের জন্য প্রথম বৈদ্যুতিক মোটরসাইকেলের সূচনা করতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.