Connect with us

শিল্প-বাণিজ্য

২০১৮-য় আয়করে সব থেকে বড়ো ৩টি বদল, জেনে নিন বিস্তারিত

Currency Tax

বিশেষ প্রতিনিধি: রবিবার ১ এপ্রিল, নতুন ২০১৮-১৯ আর্থিক বছরের শুরু। পাশাপাশি নতুন কর নির্ধারণের নতুন নিয়মও চালু হয়ে গেল আর্থিক বছরের প্রথম দিন থেকেই। আপাতত প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে এখানে পাঁচটি প্রধান পরিবর্তনের কথা তুলে ধরা হল যা জানা জরুরি।

৪০,০০০ টাকার বিশেষ ছাড়

কোনো করদাতার মোট আয় থেকে নতুন আইন বাদ দেবে ৪০ হাজার টাকা। যদিও প্রকৃত পক্ষে ছাড়ের পরিমাণ দাঁড়াবে মাত্র ৫,৮০০ টাকা। কারণ পরিবহণ খরচ বাবদ ১৯,২০০ এবং চিকিৎসা খরচ বাবদ ছাড় ১৫,০০০ টাকা এ বার থেকে আর কর মুক্ত থাকছে না। মোট আয় থেকে ৪০ হাজার টাকা ছাড়ের ঘোষণার মধ্যেই অন্তর্নিহিত রয়েছে আগের ওই দুই কর্ মুক্ত অর্থের পরিমাণ। ফলে পরিবহণ এবং চিকিৎসার জন্য আগের ছাড় ৩৪,২০০ টাকা যদি বাদ দেওয়া হয় তা হলে বাড়তি ছাড়ের পরিমাণ দাঁড়াল মাত্র ৫,৮০০ টাকা। নতুন আর্থিক বছরের শুরুতে নতুন এই নিয়ম আপনার জানা কতটা জরুরি, তা নিজেই স্থির করুন।

প্রবীণ ব্যক্তিদের জন্য কর ছাড়

২০১৮-১৯ আর্থিক বছরে প্রবীণ নাগরিকদের জন্য প্রাপ্ত সুদের পরিমাণ ৫০ হাজার টাকা হলে তবেই তিনি কর প্রদানের আওতায় পড়বেন। অর্থাৎ ওই নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ সুদ বাবদ আয় করলেও তা সম্পুর্ণ কর মুক্ত। এই পরিমাণ আগে ছিল মাত্র ১০ হাজার টাকা। অবসরকালীন জীবন উভভোগ করা মানুষের উপর থেকে করের বোঝা কমাতেই এই নতুন নিয়ম।

লং টার্ম ক্যাপিটাল গেইন্স ট্যাক্স

এক বছরের বেশি সময় ধরে কোনো শেয়ারে বিনিয়োগ করে রাখলে তার থেকে প্রাপ্ত লাভের উপর কেন্দ্র যে কর কাটবে সেটিকেই বলা হচ্ছে লং টার্ম ক্যাপিটাল গেইন্স ট্যাক্স বা সংক্ষেপে এলটিসিজি ট্যাক্স। দীর্ঘমেয়াদী মূলধনী লাভের ওপর নতুন এই কর চালু করা হয়েছে ২০১৮-র ১ এপ্রিল থেকে। তবে মনে রাখতে হবে, ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ থেকে লগ্নি করা মূলধনই এই করের আওতায় আসবে। আগে কেনা স্টক তার আগের মতোই কর-মুক্ত থাকবে। বিশদ পড়ুন: এলটিসিজি ট্যাক্স

শিল্প-বাণিজ্য

করোনায় প্রভাবিত পোশাক শিল্প, হাতে কাজ নেই সেলাই দিদিমণিদের

প্রতীকী ছবি।

ওয়েবডেস্ক: উত্তর কলকাতার বাসিন্দা শ্যামলী জানা। স্বামী দৈনিক চুক্তিতে অন্য একজনের অটো রিকশা চালাতেন। নিজে সেলাই করতেন চুড়িদার-ব্লাউজ, ইত্যাদি। করোনার থাবায় দু’টোকেই গ্রাস করেছে অস্বাভাবিকত্ব। শুধু শ্যামলী নন, তারই মতো পোশাক শিল্পে জড়িত ভারতের প্রায় ১.২ কোটি মানুষ প্রতিনিয়ত সংকট কাটিয়ে ওঠার

শ্যামলী সোদপুরের এক পোশাক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে চুড়িদার অথবা ব্লাউজের কাপড় (কাটিং করা) বাড়িতে নিয়ে এসে সেলাই করতেন। হপ্তায় পেমেন্ট। পাড়ার লোকের ছোটোখাটো প্রয়োজন মিটিয়েও খুচরো কিছু আয় হতো। বাজারে এখন নতুন পোশাকের চাহিদা ততটা নেই। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য়ের চাহিদা কিছুটা থাকলেও পোশাক-আশাক নিয়ে ততটা আগ্রহ দেখাচ্ছেন না কেউ। ফলে পুরনো স্টকেই কোনো রকম কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন পোশাক বিক্রেতারা।

১২ সপ্তাহ আগেই পোশাক শিল্পের জন্য করোনাভাইরাস লকডাউনের নিয়ম শিথিল করেছে সরকার। তবুও ছোটো-বড়ো পোশাক শিল্পগুলো এখনও সে ভাবে আগের অবস্থায় ফিরে আসেনি। কারণ এই একটাই। চাহিদা নেই। সে ক্ষেত্রে কারখানায় গিয়ে পোশাক শিল্পের কর্মীদের (বেশির ভাগই মহিলা) মতোই সংকটে পড়েছেন শ্যামলীর মতো বাড়িতে বসে সেলাইয়ের কাজ করা মহিলারাও।

শ্যামলী বলেন, “এখন কাজ নেই, সেটা যেমন সমস্যা, তেমনই আগামী দিনেও কী যে হবে, তা বুঝতে পারছি না। অন্য বছর এই সময়টা রাত ২-৩টে পর্যন্ত কাজ করি। পুজোর বাজারের জন্য হাতে প্রচুর চাপ থাকে। এ বার সে সবের বালাই নেই”।

বৃহৎ শিল্পেও বড়ো সংকট!

ভারতের কয়েক কোটি টাকার পোশাক শিল্প হাতে কাজ জোগায় কমপক্ষে ১.২ কোটি মানুষের। এই কাজে তুলনামূলক ভাবে কাজে দক্ষতা, একাগ্রতা এবং ধৈর্য্যের কারণে মহিলাদের অংশগ্রহণই অধিক। বাড়ির কাজ সামলেও একটা বড়ো অংশের মহিলা এই ক্ষেত্রের সঙ্গে যুক্ত। কিন্তু মহামারির প্রভাবে বিশ্বমানের ব্র্যান্ডের পোশাকের বিক্রি প্রায় বন্ধ। আর্থিক সংকটে পড়ে বাতিল হয়েছে আগের অর্ডার। এমন পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কারখানা খোলার অনুমতি মিললেও পুরোদমে কাজ শুরু করতে পারছেন না কর্তৃপক্ষ।

ভারত-সহ এশিয়ার বিভিন্ন দেশেই পোশাক শিল্পে একটা বড়ো অংশের অসংগঠিত ক্ষেত্রের কর্মী জড়িত। মহামারির সংকটে পড়ে নিয়োগকারীরাও এখন শ্রম আইনের ততটা ধার ধারতে চাইছেন না কোথাও কোথাও। কাজ থেকে ছাঁটাই অথবা পুরনো বকেয়া বেতন না মেটানোর ঘটনাও ঘটছে।

অন্য দিকে বাড়িতে শিশুসন্তান থাকায় অনেক মহিলা কাজে যোগ দিতে পারছেন না। আবার স্কুল বন্ধ থাকায় বাড়িতে থাকা সন্তানকে সময় দিতে হচ্ছে সর্বক্ষণ। অন্য দিকে শিল্পোদ্যোগীরাও বলছেন, যাঁরা কমপক্ষে তিন দশক এই শিল্পের সঙ্গে জড়িত রয়েছেন, এমন দুর্ভাগ্যজনক সময় তাঁরা একটি বারের জন্যও দেখেননি। অনেকে তো পরিস্থিতির চাপে পড়ে ব্যবসায় ঝাঁপ ফেলে দেওয়ার কথা ভাবছেন!

সামগ্রিক ক্ষেত্র

এশিয়ার মধ্যে পোশাক শিল্পে সব থেকে বেশি প্রভাব পড়েছে বাংলাদেশ, ভিয়েতনাম এবং মায়ানমারের মতো দেশগুলিতে। কারণ, শেষ কয়েক মাসে মহামারি সংকটে পড়ে শ্রমিকরা নিজেদের গ্রামে ফিরে গিয়েছেন, খাদ্যের সন্ধানে হন্যে হয়ে দৌড়চ্ছেন তাঁরা। কাজ হারিয়ে বেঁচে থাকার জন্য টাকাও ধার করেছেন।

তবে অতি মন্থরগতিতে হলেও হাল কিছুটা ফিরছে। করোনার প্রাদুর্ভাব কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে পোশাক শিল্প। ধাক্কা কাটিয়ে আশায় বুক বাঁধছেন সংশ্লিষ্টরা।

ফিরে আসা যাক শ্যামলীর কথায়। স্বামী অটো চালাতেন সিঁথি মোড় থেকে। মালিককে দেওয়ার মতোই ভাড়া রোজগার হয় না। অন্য দিকে রয়েছে করোনার আতঙ্ক। ফলে চাকা বন্ধ। আর শ্যামলী? স্বপ্ন দেখছেন, এ বারের পুজোর ‘ইনকাম’ মাটি হলেও শীত এলে অন্তত হাল কিছুটা ফিরবে!

Continue Reading

শিল্প-বাণিজ্য

সোনার বিনিময়ে ‘গোল্ড লোন’ নেওয়ার আগে যা জেনে রাখা ভালো

সোনার বিনিময়ে ঋণ নেওয়ার আগে বেশ কয়েকটি বিষয় অবশ্যই জেনে রাখা ভালো।

ছবি: প্রতিনিধিত্বমূলক

ওয়েবডেস্ক: আপদকালীন সময়ে জরুরি ভিত্তিতে টাকার দরকার পড়তে পারে যে কোনো মানুষের। এই চাহিদা পূরণের জন্য বেশ কয়েকটি সম্ভাব্য বিকল্পও খোলা থাকে কারও কারও সামনে। যেমন ব্যক্তিগত ঋণ, প্রভিডেন্ট ফান্ড, ফিক্সড ডিপোজিট, মিউচুয়াল ফান্ড অথবা এই ধরনের আর্থিক সঞ্চয়গুলি থেকে টাকা তুলে পরিস্থিতি সামাল দেওয়া যেতে পারে।

ব্যাঙ্ক অথবা ব্যাঙ্ক নয় এমন কোনো আর্থিক প্রতিষ্ঠান (NBFC) থেকে ব্যক্তিগত ঋণ নেওয়ার ক্ষেত্রে বিকল্প হিসেবে বেছে নেওয়া যেতে পারে এই সোনা বন্ধকী ঋণ অথবা গোল্ড লোন (Gold loan)। তবে যদি আপনি সোনার বিনিময়ে ঋণ নেওয়ার পরিকল্পনা করে থাকেন, তা হলে বেশ কয়েকটি বিষয় অবশ্যই জেনে রাখা ভালো।

গোল্ড লোন কী?

গোল্ড লোন হল সোনার বিনিময়ে ঋণ। এটিকে একটি সুরক্ষিত ঋণ হিসেবেই বিবেচনা করা হয়। যেখানে সোনার জিনিস যেমন, সোনার গহনা বা অলঙ্কার ঋণপ্রদানকারী ব্যাঙ্ক / এনবিএফসির কাছে জামানত হিসাবে জমা দিতে হয়। জামানত হিসাবে এই সোনার বিরুদ্ধে ঋণগ্রহীতাকে ঋণ দেওয়া হয়।

গোল্ড লোন কোথায় পাবেন?

এসবিআই, আইসিআইসিআই ব্যাঙ্ক, এইচডিএফসি ব্যাঙ্ক-সহ অন্যান্য ব্যাঙ্ক এবং নন-ব্যাঙ্কিং ফিনান্স সংস্থাগুলি সোনার বিনিময়ে ঋণ দেয়। এনবিএফসিগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য মুথুট ফিনান্স, মনপ্পুরাম ফিনান্স ইত্যাদি।

ঋণের সর্বোচ্চ এবং সর্বনিম্ন পরিমাণ

জমা রাখা সোনার পরিমাণের উপর এবং ঋণপ্রদানকারী সংস্থার নিজস্ব নীতির উপর নির্ভর করে ঋণের সর্বোচ্চ এবং সর্বনিম্ন পরিমাণ। যেমন, সোনার পরিমাণের উপর নির্ভর করে এসবিআই (SBI) ২০ হাজার টাকা থেকে ২০ লক্ষ টাকা এবং আইসিআইসিআই ব্যাঙ্ক (ICICI Bank) ১০ হাজার থেকে এক কোটি টাকা পর্যন্ত ঋণ দেয়।

গোল্ড লোনের মেয়াদ

ঋণপ্রদানকারী সংস্থার নীতির উপর নির্ভর করে এই মেয়াদ। যেমন এসবিআইয়ের গোল্ড লোন পরিশোধের সর্বোচ্চ সীমা ৩৬ মাস, এইচডিএফসি (HDFC)-র ক্ষেত্রে ৩-২৪ মাস পর্যন্ত, ইত্যাদি। অন্য দিকে মুথুট ফিনান্সের বিভিন্ন রকমের গোল্ড লোন স্কিমের মেয়াদ ভিন্ন।

কোন কোন নথি প্রয়োজন?

গোল্ড লোনের জন্য ঋণপ্রদানকারী সংস্থা একাধিক নথি চাইতে পারে। যেমন পরিচয়পত্র হিসেবে প্যান, আধার কার্ড ইত্যাদি। ঠিকানার প্রমাণ হিসেবে আধার, পাসপোর্ট, ভোটার আই-ডি কার্ড ইত্যাদি। এ ছাড়া লাগবে পাসপোর্ট ছবি-সহ ইত্যাদি।

চার্জ কত?

গৃহঋণ অথবা গাড়ি ঋণের মতোই গোল্ড লোনের ক্ষেত্রেও প্রসেসিং চার্জ/ফি লাগে। এ ছাড়া সোনার মূল্য নির্ধারণে কোল্যাটারাল হিসাবেও ফি ধার্য্য হতে পারে। বিভিন্ন সংস্থার এই চার্জ/ফি-র পরিমাণ ভিন্ন।

সুদের হার

বিভিন্ন ব্যাঙ্ক অথবা এনবিএফসি-র গোল্ড লোনের সুদের হার ভিন্ন। যেমন এসবিআইয়ের গোল্ড লোনের সুদের হার ৭.০০ থেকে ৭.৫০ শতাংশ (সঙ্গে .৫০ শতাংশ জিএসটি)। অন্য দিকে মুথুট ফিনান্সে (Muthoot Finance) এই সুদের হার ১২ থেকে ২৭ শতাংশ।

*যে কোনো ধরনের ঋণ নেওয়ার আগে শর্তাবলি সঠিক ভাবে বুঝে নিন।

Continue Reading

শিল্প-বাণিজ্য

ঋণ পুনর্গঠনের মাপকাঠি নির্ধারণে পাঁচ সদস্যের কমিটি গড়ল আরবিআই

কমিটির সুপারিশ মতোই পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবে কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক।

কেভি কামাথ এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ফাইল ছবি

মুম্বই: আইসিআইসিআই ব্যাঙ্কের (ICICI Bank) প্রাক্তন সিইও কেভি কামাথের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের একটি কমিটি গড়ল ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক (RBI)। কোভিড-১৯ মহামারির (Covid-19) প্রভাবিত ঋণে পরিশোধের বিষয়ে সেগুলির পুনর্গঠনের মাপকাঠি নির্ধারণ করবে পাঁচ সদস্যের কমিটি। কমিটির সুপারিশ মতোই পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবে কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক।

এর আগে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন জানান, “মূলত ঋণ পুনর্গঠনের দিকেই আমরা আলোকপাত করছি। অর্থ মন্ত্রক এ বিষয়ে আরবিআইয়ের সঙ্গে সক্রিয় ভাবে কাজ করছে। সাধারণত পুনর্গঠনের এই ধারণা দক্ষতার সঙ্গে কার্যকর করা দরকার”।

আরবিআই গঠিত কমিটি

কমিটির চেয়ারম্যান করা হয়েছে কামাথকে। তিনি ছাড়াও কমিটিতে রয়েছেন স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়ার (SBI) প্রাক্তন এগজিকিউটিভ দিবাকর গুপ্তা, কানাড়া ব্যাঙ্কের বর্তমান চেয়ারম্যান টিএন মনোহরণ, কনসালট্যান্ট অশ্বিন পারেখ এবং ইন্ডিয়ান ব্যাঙ্ক’স অ্যাসোসিয়েশনের সিইও সুনীল মেহতা। কমিটির সচিব করা হয়েছে মেহতাকে।

আরবিআই এ দিন জানায়, প্রয়োজন হলে ভবিষ্যতে কমিটিতে আরও কয়েকজন সদস্যকে অন্তর্ভুক্ত করা হতে পারে।

মোরাটোরিয়ামের বদলে ঋণ পুনর্গঠন

গত বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের দ্বিমাসিক আর্থিক নীতি ঘোষণার সময় গভর্নর শক্তিকান্ত দাস জানান, এই কমিটি দেড় হাজার কোটি টাকার উপর ঋণের পুনর্গঠন প্রস্তাব জমা করবে। বিশেষজ্ঞদের মতে, এর ফলে দেশের ছোটো ও মাঝারি সংস্থাগুলি বিশেষ সুবিধা পাবে। অন্য দিকে রিয়েল এস্টেট ক্ষেত্রের জন্যেও একটি বিশেষ কমিটি তৈরি করা হবে বলে জানিয়েছেন আরবিআই গভর্নর।

অন্য দিকে সমস্ত শ্রেণীর ঋণগ্রহীতাদের জন্যও এককালীন ঋণ পুনর্গঠনের সুবিধা দেওয়ার কথা জানায় আরবিআই। করোনা মহামারিতে ছ’মাসের ইএমআই মোরাটোরিয়ামের মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগস্টে। সেই মেয়াদ আর বাড়ছে না, পরিবর্তে ঋণগ্রহীতাদের জন্য ঋণ পুনর্গঠনের সুবিধার কথা ঘোষণা করে। গত ১ মার্চ পর্যন্ত যাঁদের ঋণ পরিশোধে কোনও ছেদ পড়েনি তাঁরাই ওই সুবিধা পাবেন। ঋণ পুনর্গঠনের অর্থ ঋণ পরিশোধের মেয়াদ বৃদ্ধি এবং অনেক সময় সুদের হারও ব্যাঙ্ক কমিয়ে দেয়। এ ধরনের পুনর্গঠনের বিষয়গুলি সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষই নির্ধারণ করবেন বলে জানা গিয়েছে।

Continue Reading
Advertisement
Advertisement
দেশ4 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৬২০৬৪, সুস্থ ৫৪৮৫৯

দেশ2 days ago

বিমান দুর্ঘটনা লাইভ: উদ্ধার ব্ল্যাক বক্স, উদ্ধারকারীদের কোয়ারান্টাইনে যাওয়ার নির্দেশ শৈলজার

কলকাতা2 days ago

ঢাকায় পথদুর্ঘটনায় নিহত পর্বতারোহী, শোকস্তব্ধ কলকাতার পাহাড়প্রেমীরা

দেশ2 days ago

“দুর্ঘটনা নয়, পরিকল্পিত খুন”, কোড়িকোড়ের ঘটনা নিয়ে চাঞ্চল্যকর অভিযোগ এয়ার সেফটি এক্সপার্টের

খেলাধুলো3 days ago

জাতীয় দলের অধিনায়ক-সহ পাঁচ ভারতীয় হকি খেলোয়াড় করোনা পজিটিভ

রাজ্য3 days ago

১১-১২ বছর ধরে ভাত খান না বিমান বসু, তা হলে কী খান?

বিনোদন2 days ago

২৮ দিন পর করোনা মুক্ত অভিষেক বচ্চন

দেশ3 days ago

কোড়িকোড়ে ১৯১ জন যাত্রী নিয়ে পিছলে গিয়ে দু’টুকরো এয়ার ইন্ডিয়া এক্সপ্রেসের বিমান, মৃত পাইলট-সহ ১১

রবিবারের খবর অনলাইন

কেনাকাটা

কেনাকাটা4 days ago

ঘর ও রান্নাঘরের সরঞ্জাম কিনতে চান? অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ৫০% পর্যন্ত ছাড়

খবরঅনলাইন ডেস্ক : অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ঘর আর রান্না ঘরের একাধিক সামগ্রিতে প্রচুর ছাড়। এই সেলে পাওয়া যাচ্ছে ওয়াটার...

কেনাকাটা4 days ago

এই ১০টির মধ্যে আপনার প্রয়োজনীয় প্রোডাক্টটি প্রাইম ডে সেলে কিনতে পারেন

খবরঅনলাইন ডেস্ক : চলছে অ্যামাজনের প্রাইমডে সেল। প্রচুর সামগ্রীর ওপর রয়েছে অনেক ছাড়। ৬ ও ৭  তারিখ চলবে এই সেল।...

কেনাকাটা5 days ago

শুরু হল অ্যামাজন প্রাইম ডে সেল, জেনে নিন কোন জিনিসে কত ছাড়

খবরঅনলাইন ডেস্: শুরু হল অ্যামাজন প্রাইম ডে সেল। চলবে ২ দিন। চলতি মাসের ৬ ও ৭ তারিখ থাকছে এই অফার।...

things things
কেনাকাটা1 week ago

করোনা আতঙ্ক? ঘরে বাইরে এই ১০টি জিনিস আপনাকে সুবিধে দেবেই দেবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনা পরিস্থিতিতে ঘরে এবং বাইরে নানাবিধ সাবধানতা অবলম্বন করতেই হচ্ছে। আগামী বেশ কয়েক মাস এই নিয়মই অব্যাহত...

কেনাকাটা2 weeks ago

মশার জ্বালায় জেরবার? এই ১৪টি যন্ত্র রুখে দিতে পারে মশাকে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: একে করোনা তায় আবার ডেঙ্গুর প্রকোপ শুরু হয়েছে। এই সময় প্রতি বারই মশার উৎপাত খুবই বাড়ে। এই বারেও...

rakhi rakhi
কেনাকাটা2 weeks ago

লকডাউন! রাখির দারুণ এই উপহারগুলি কিন্তু বাড়ি বসেই কিনতে পারেন

সামনেই রাখি। কিন্তু লকডাউনের মধ্যে মনের মতো উপহার কেনা একটা বড়ো ঝক্কি। কিন্তু সেই সমস্যা সমাধান করতে পারে অ্যামাজন। অ্যামাজনের...

কেনাকাটা3 weeks ago

অনলাইনে পড়াশুনা চলছে? ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ৪০ হাজার টাকার নীচে ৬টি ল্যাপটপ

ইনটেল প্রসেসর সহ কোন ল্যাপটপ আপনার অনলাইন পড়াশুনার কাজে লাগবে জেনে নিন।

কেনাকাটা3 weeks ago

করোনা-কালে ঘরে রাখতে পারেন ডিজিটাল অক্সিমিটার, এই ১০টির মধ্যে থেকে একটি বেছে নিতে পারেন

শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা বুঝতে সাহায্য করে এই অক্সিমিটার।

কেনাকাটা4 weeks ago

লকডাউনে সামনেই রাখি, কোথা থেকে কিনবেন? অ্যামাজন দিচ্ছে দারুণ গিফট কম্বো অফার

খবরঅনলাইন ডেস্ক : সামনেই রাখি। কিন্তু লকডাউনের মধ্যে দোকানে গিয়ে রাখি, উপহার কেনা খুবই সমস্যার কথা। কিন্তু তা হলে উপায়...

laptop laptop
কেনাকাটা4 weeks ago

ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ২৫ হাজার টাকার মধ্যে এই ৫টি ল্যাপটপ

খবরঅনলাইন ডেস্ক : কোভিভ ১৯ অতিমারির প্রকোপে বিশ্ব জুড়ে চলছে লকডাউন ও ওয়ার্ক ফ্রম হোম। অনেকেই অফিস থেকে ল্যাপটপ পেয়েছেন।...

নজরে

Click To Expand