আমেরিকা-চিন বাণিজ্যযুদ্ধে বাড়তি সুযোগ ভারতের

0
india china us
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: চিন-আমেরিকা বাণিজ্যযুদ্ধের ফলে বাড়তি সুযোগ হাতেনাতে পাচ্ছে ভারত। এ দেশের রফতানিকারী সংস্থাগুলির সংগঠনের তরফে তেমনটাই পরিসংখ্যান তুলে ধরা হল।

চিনের একাধিক রফতানিকৃত পণ্যের উপর বাড়তি হারে শুল্ক আরোপ করেছে আমেরিকা। যে কারণে ক্রীড়াসামগ্রী, খেলনা, বিভিন্ন রকমের স্টেশনারি দ্রব্য, তার এবং ইলেকট্রনিক্স যন্ত্রাংশের আমেরিকার আমদানিকারকরা ক্রমশ চিন-বিমুখ হয়ে পড়ছেন। সেই শূন্যস্থান পূরণে উঠে আসছে ভারতের রফতানি বাজার।

এ মুহূর্তে আরও সাতটি গুরুত্বপূর্ণ চিনা পণ্যের জায়গায় ভারতীয় পণ্যের অন্তর্ভু্ক্তির কাজ চলছে। যার মধ্যে রয়েছে রাবার, জুতো এবং রান্নাঘরের উপকরণ। সংশ্লিষ্ট এক আধিকারিক জানান, আমেরিকার চিন-বিমুখতায় যে শূন্যস্থানের সৃষ্টি হয়েছে, তা ভিয়েতনাম এবং কম্বোডিয়া ধরে ফেলার আগেই, ভারতের হাতে তা পূরণ করার জন্য পাঁচ-ছ’মাস সময় রয়েছে।

ফেডারেশন অব ইন্ডিয়ান এক্সপোর্ট অর্গানাইজেশনের সভাপতি শরদকুমার সরাফ জানান, বর্তমানে আমেরিকার বাজারে আমদানিকৃত চিনাপণ্যগুলি নিয়ে বিশদ তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। সেখানে আমাদের দেশ থেকে রফতানিকৃত ওই সমস্ত পণ্যের পরিমাণ ২৫ শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধি ঘটার সুযোগ এবং সম্ভাবনা রয়েছে।

তিনি জানিয়েছেন, আমেরিকা চিনা রফতানির উপর ২৫ শতাংশ শুল্ক চাপানোর পর থেকেই তথ্য সংগ্রহের কাজ শুরু করেছে ভারতীয় রফতানিকারক সংস্থাগুলি। এখনও পর্যন্ত উঠে আসা তথ্যে জানা গিয়েছে, আমেরিকার আমদানিকারকরা প্রতিবছর ১০ লক্ষ জোড়া জুতো কিনতে চায়। এটা যে ভারতের জুতো প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলির সাধ্যের বাইরে সেটাও জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট এক ব্যবসায়ী।

সরাফও জানিয়েছেন, চিনের ছেড়ে যাওয়া বাজার দখলে আমেরিকার চাহিদা মেটাতে গেলে এ দেশের শিল্পকে কমপক্ষে ২০ শতাংশ উৎপাদন বাড়াতে হবে।

তবে ও দিকে একেবারে হাত গুটিয়ে বসে নেই চিন। তারাও বিভিন্ন পণ্যের উপর ৩-৪ শতাংশ দাম কমিয়ে দিয়ে আমেরিকার বাজার মুঠোয় রাখার চেষ্টা জারি রেখেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.