Connect with us

শিল্প-বাণিজ্য

ঘর সাজানোর উপকরণ গ্রামে ছড়িয়ে দিতে যশ ইমপেক্স-এর ‘‌ফার্ন ডেকর–এডব্লু কালেকশন ২০১৯’‌

jash impex

ওয়েবডেস্ক: ডিজিটাল যুগে পৃথিবী হাতের মুঠোয় চলে এসেছে বললে অত্যুক্তি হয় না। বিভিন্ন তথ্য, খবর চোখের পলক ফেলতেই পৌঁছে যাচ্ছে দুনিয়ার এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে। সেই সূত্র ধরে এখন শহুরে এলাকার পাশাপাশি প্রত্যন্ত অঞ্চলেও হাজির আধুনিক জীবনযাপনের হরেক জিনিস। সুন্দর, আকর্ষণীয়, ঝকঝকে সেই সব পণ্যের আলাদা বাজারও তৈরি হয়েছে সে সব অঞ্চলে। নিজেদের সুস্থ, সতেজ রাখার পাশাপাশি ঘরবাড়ি সাজানোর ব্যাপারটাও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে মানুষের জীবনে। আর তাই ঘর সাজানোর জিনিসপত্রের চাহিদাও বাড়ছে।

কার কাছে নতুন কী পণ্য রয়েছে তা জানতে ও জানাতে বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছিল এই ব্যবসায় দেশের অন্যতম সেরা সংস্থা যশ ইমপেক্স। তারা কলকাতার হোটল হিন্দুস্থান ইন্টারন্যাশনালে আয়োজন করেছিল ‘‌ফার্ন ডেকর–এডব্লু কালেকশন ২০১৯। ২৬ আগস্ট আয়োজিত ওই অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন বিভিন্ন অংশের বিক্রেতারা।

আরও পড়ুন আরও সস্তা হচ্ছে সমস্ত বাড়ি-গাড়ি ঋণ, ঘোষণা কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর

যশ ইমপেক্সের সিইও বিকাশ দোকানিয়া বলেন, “দেশের আত্মা হল গ্রামাঞ্চল। স্টাইল অফ আরবান লিভিং (‌সোল)‌–কে দেশের আত্মায় ছড়িয়ে দেওয়ার লক্ষ্যেই এই স্টার্ট আপ তৈরি হয়েছে। ঘর সাজানোর ব্যবসায় দেশের পূর্বাঞ্চলে আমরা কাজ করলেও বাংলা হল আমাদের ঘর। বাংলা–সহ দেশের পূর্বাঞ্চলে আড়াইশোর বেশি ক্ষুদ্র এবং মাঝারি ব্যবসায়ীর সঙ্গে আমরা কাজ করছি।”

বিকাশ দোকানিয়া আরও জানান, তাঁদের কাছ থেকে বিভিন্ন রকমের পণ্য পাওয়া যায়। এর মধ্যে রয়েছে সেঞ্চুরি (‌তোশক, গদি)‌, স্পেসেস (‌খাট, কম্বল, বাথ)‌, মিকাসা (‌পর্দা, গৃহসজ্জার সামগ্রী), ন্যাচুরা লাইফ (কার্পেট, পাপোশ)‌‌, ফেদার লাইট (‌বালিশ)। এই সভা আয়োজনের উদ্দেশ্য হল এখানে অংশগ্রহণকারীদের নিত্যনতুন পণ্য সম্পর্কে আরও অবহিত করা, যাতে তাঁরা ক্রেতাকে সেগুলি পৌঁছে দিতে পারেন। গ্রামাঞ্চলের যে কোনো ক্রেতা যেন সহজেই শহরে বিক্রি হওয়া ঘর সাজানোর জিনিস সহজেই পেয়ে যান।

বিকাশবাবু বলেন, তাঁরা নতুন একটি স্টার্ট আপ। তবে এর মধ্যে তাঁরা বেশ ভালো সাড়া পেয়েছেন। এটা তাঁদের আরও বেশি করে কাজ করার ক্ষেত্রে উৎসাহ দিচ্ছে।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দ্য বেঙ্গল চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির ডিরেক্টর জেনারেল শুভদীপ ঘোষ।

Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

শিল্প-বাণিজ্য

জিএসটি-তে বড়োসড়ো স্বস্তি, কমল জরিমানা

যে সমস্ত করদাতা জিএসটি দাখিলের জন্য জিএসটিআর-৩বি ব্যবহার করেন, তাঁরাই এই সুবিধা পাবেন

gst

ওয়েবডেস্ক: জিএসটি করদাতাদের (GST taxpayer) জন্য বড়োসড়ো স্বস্তি। ২০১৭ সালের জুলাই মাস থেকে ২০২০ সালের জুলাই পর্যন্ত সময়কালের কর জমা দেওয়ার জন্য লেট ফি (Late fee)-র পরিমাণ ৫০০ টাকা নামিয়ে নিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। যে সমস্ত করদাতা জিএসটি দাখিলের জন্য জিএসটিআর-৩বি ফর্ম (Form GSTR-3B) ব্যবহার করেন, তাঁরাই এই সুবিধা পাবেন।

শুক্রবার কেন্দ্রীয় অপ্রত্যক্ষ কর এবং শুল্ক বোর্ড (CBIC) জানায়, আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে যদি ওই মেয়াদের জিএসটি জমা করা হয়, তা হলে করদাতা এবং লেট ফি ‌হ্রাসের সুবিধা পাবেন।

একটি বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, কর দায়বদ্ধতা না থাকলে কোনো লেট ফি দিতে হবে না। এর আগে ২০১৭-২০ সালের জুলাই মাসের বকেয়া জিএসটি পরিশোধের জন্য চলতি বছরের মে-জুলাই মাসের মেয়াদ নির্ধারিত হয়। কিন্তু বিভিন্ন মহলের তরফে রিটার্ন দাখিল করার সমস্যার কথা তুলে ধরায় সেই মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে।

করোনা লকডাউনে আরও ছাড়

প্রতীকী ছবি

করোনাভাইরাস লকডাউনে আর্থিক সংকটের পরিস্থিতি বিবেচনা করে জিএসটি দাখিলে আরও বেশ কিছু ছাড় আগেই দিয়েছে কেন্দ্র।

কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন কয়েক সপ্তাহ আগেই জানিয়েছেন, “যাঁদের কোনো করের দায় (Tax liabilities) নেই, তাঁরা যদি গত ২০১৭ সালের জুলাই মাস থেকে ২০২০ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত জিএসটি ফাইল না করেন, তা হলে কোনো আর্থিক জরিমানা করা হবে না”।

অন্য দিকে যে সম্স্ত ব্যবসায়ীর করের দায় রয়েছে, অথচ ওই সময়কালের মধ্যে জিএসটিআর-৩বি দাখিল করেননি, তাঁদের ক্ষেত্রে আর্থিক জরিমানার পরিমাণ নামিয়ে ৫০০ টাকা করা হচ্ছে। ২০১৭ সালের ১ জুলাই থেকে এ ধরনের সংস্থাগুলির ক্ষেত্রে বিলম্বিত রিটার্নের জন্য ১,০০০ টাকা জরিমানা করা হতো।

একই সঙ্গে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি, মার্চ এবং এপ্রিলে ৫ কোটি টাকা পর্যন্ত লেনদেনের যে সমস্ত ছোটো করদাতা রিটার্ন দাখিল করেনি, তাদের ক্ষেত্রে সুদের পরিমাণ ১৮ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৯ শতাংশ করা হয়েছে। তবে এ ক্ষেত্রে রিটার্ন দাখিলের সময়সীমা আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বেঁধে দেওয়া হয়েছে।

অর্থমন্ত্রী জানান, মে, জুন এবং জুলাই মাসের রিটার্ন যদি আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে জমা করা হয়, তা হলে লেট ফি এবং সুদ সম্পূর্ণ ভাবে মুকুব করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

Continue Reading

শিল্প-বাণিজ্য

এসবিআই এটিএমে টাকা তোলার নিয়ম বদলে গেল

চার্জবিহীন অসীম লেদদেনের সিদ্ধান্তটি ৩০ জুন পর্যন্ত কার্যকর ছিল। ফিরল পুরনো নিয়ম…

SBI ATM

ওয়েবডেস্ক: এসবিআই (SBI) এটিএম থেকে টাকা তোলার নিয়ম ফিরল মার্চ মাসে!

করোনাভাইরাস লকডাউনে গ্রাহককে স্বস্তি দিয়ে দেশের বৃহত্তম রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্ক ৩০ জুন পর্যন্ত যতবার প্রয়োজন ততবার এটিএম (ATM) লেনদেনে ছাড় দিয়েছিল। কিন্তু নির্ধারিত সীমার বেশি এটিএম লেনদেনে ফের সেই পুরনো নিয়মই ফিরে এল।

কী বলল এসবিআই?

গত ২৪ মার্চ, ২০২০ কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর ঘোষণাটি বিবেচনায় রেখে নিজের ব্যাঙ্কে অথবা অন্য কোনো ব্যাঙ্কে গ্রাহকের চার্জবিহীন এটিএম লেনদেনের সংখ্যার উপর থেকে নির্ধারিত সীমার শর্ত তুলে নেওয়া হয়। তবে ওই চার্জবিহীন অসীম লেদদেনের সিদ্ধান্তটি ৩০ জুন পর্যন্ত কার্যকর ছিল।

এসবিআইয়ের ওয়েবসাইটে জানানো হয়েছে, আপনি যদি এসবিআই গ্রাহক হন, তা হলে ১ জুলাই থেকে টাকা তোলার সীমা এবং এটিএম লেনদেনের পুরনো নিয়ম প্রযোজ্য হবে।

বদলে যাওয়া নিয়ম

২৫ হাজার পর্যন্ত অ্যাভারেজ মান্থলি ব্যালেন্সের গ্রাহকরা নিজের ব্যাঙ্কে পাঁচটি এবং অন্য ব্যাঙ্কের এটিএমে তিনটি বিনা চার্জের লেনদেন করতে পারবেন। এই নিয়ম নয়াদিল্লি, মুম্বই, কলকাতা, চেন্নাই, হায়দরাবাদ এবং বেঙ্গালুরুর মতো মেট্রো শহরের জন্য প্রযোজ্য। অর্থাৎ, এই মেট্রো শহরগুলিতে মাসে আটটি চার্জবিহীন লেনদেন করতে পারবেন ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত অ্যাভারেজ মান্থলি ব্যালেন্সের গ্রাহকরা।

অন্যান্য জায়গায় নিজের ব্যাঙ্কে পাঁচটি এবং অন্য ব্যাঙ্কের এটিএমে পাঁচটি মিলিয়ে মাসে ১০টি চার্জবিহীন লেনদেন করতে পারবেন।

২৫ হাজার থেকে ১ লক্ষ টাকা পর্যন্ত অ্যাভারেজ মান্থলি ব্যালেন্সের গ্রাহকরা নিজের ব্যাঙ্কের এটিএমে যতবার প্রয়োজন লেনদেন করতে পারবেন। অন্য ব্যাঙ্কের এটিএমে মেট্রো শহরে চার্জবিহীন লেনদেনের সংখ্যা তিনটি। অন্যান্য জায়গায় সংখ্যাটি পাঁচ।

১ লক্ষ টাকার উপরে অ্যাভারেজ মান্থলি ব্যালেন্সের গ্রাহকরা নিজের অথবা অন্য ব্যাঙ্কের এটিএমে অসীম লেনদেনের সুযোগ পাবেন।

সীমা পার হলে কী হবে?

ব্যাঙ্ক ওয়েবসাইটের ঘোষণা অনুযায়ী, উপরোক্ত লেনদেনের সীমা পার হলে এসবিআই গ্রাহককে নিজের ব্যাঙ্কে অতিরিক্ত একটি আর্থিক লেনদেনের জন্য ১০ টাকা (সঙ্গে জিএসটি) এবং অন্য ব্যাঙ্কের ক্ষেত্রে প্রতিটি অতিরিক্ত লেনদেনের জন্য ২০ টাকা (সঙ্গে জিএসটি) দিতে হবে।

আর্থিক নয়, এমন লেনদেনের জন্য এই চার্জ নিজের ব্যাঙ্কের এটিএমে ৫ টাকা (সঙ্গে জিএসটি) এবং অন্য ব্যাঙ্কের এটিএম ৮ টাকা (সঙ্গে জিএসটি) দিতে হবে।

এই জিএসটির হার ১৮ শতাংশ।

Continue Reading

শিল্প-বাণিজ্য

চিন-বিরোধী আবেগে স্যামসাং-এর বৃহস্পতি তুঙ্গে!

এপ্রিল-জুন ত্রৈমাসিকে স্যামসাং দ্বিতীয় স্থানে উঠে আসতেই পারে!

ওয়েবডেস্ক: চিনের ক্ষতি তো দক্ষিণ কোরিয়ার লাভ! অন্তত ভারতের স্মার্টফোন বাজারের মতিগতি দেখে তেমনটাই মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এ দেশের স্মার্টফোন বাজারে স্যামসাং (Samsung) সম্ভবত ভিভোকে নিজের জায়গা থেকে সরিয়ে দিতে চলেছে। ফলে ফের দু’নম্বর স্থান দখল করতে চলেছে স্যামসাং। মূলত চিন-বিরোধী আবেগের জেরেই জুন ত্রৈমাসিকে সম্ভব না হলেও আগামী সেপ্টেম্বরের শেষ নাগাদ ফের স্বমহিমায় ফিরতে চলেছে স্যামসংয়ের বিক্রিবাট্টা।

বাজার কী বলছে?

লকডাউনের কারণে টানা কয়েক মাস দোকান বন্ধ ছিল। অনলাইনে বিক্রি হওয়ার পর এখন দোকানগুলিও খুলছে। ফলে এত দিন জমে থাকা স্টক প্রায় নি:শেষ। বিক্রেতারা জানাচ্ছেন, হোক না চিনা ফোন, তবুও হু-হু করে বিকিয়েছে ওপো, ভিভো, রিয়েলমি, শাওমি অথবা ওয়ান প্লাস। কিন্তু এর পর?

জোগানে ভাটা পড়ার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে। ফলে চাহিদা থাকলেও চিনা মোবাইল প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলি জোগান দেবেন কি ভাবে, সেটাই দেখার।

সেই শূন্যস্থান পূরণ করতে উঠেপড়ে লাগতে পারে স্যামসাং। বাজারের পরিসংখ্যান বলছে, এখনই এই স্মার্টফোনের বিক্রি আগের থেকে বেড়েছে। সে দিক তাকিয়েই বিশেষজ্ঞদের দাবি, এপ্রিল-জুন ত্রৈমাসিকে স্যামসাং দ্বিতীয় স্থানে উঠে আসতেই পারে!

বাজারে এখন দখলদারি

স্মার্টফোনের বাজারে ক্রেতার পছন্দের তালিকার শীর্ষে রয়েছে শাওমি। দুইয়ে ভিভো, আর তিনে স্যামসাং।

একটি সমীক্ষক সংস্থার মতে, স্মার্টফোন বাজারে শাওমি (Xiaomi), ভিভো (Vivo)এবং স্যামসাংয়ের অংশীদারিত্ব যথাক্রমে ৩০%, ১৭% এবং ১৬%।

এমনিতে ভারতের স্মার্টফোন বাজারে চিনা সংস্থাগুলি ৮১ শতাংশ জায়গা দখল করে রয়েছে। তার উপর অনলাইন প্ল্যাটফর্মের বিক্রিতে চিনা ফোনের বিক্রি আরও বেশি, ৮৫ শতাংশের বেশি (প্রথম ত্রৈমাসিকের হিসাব অনুযায়ী)। স্বাভাবিক ভাবেই অনলাইনে আরও বেশি করে আগ্রাসী হওয়ার প্রস্তুতি নিতে পারে স্যামসাং।

দক্ষিণ কোরিয়ায় স্যামসাং টাউন। ছবি: উইকিপিডিয়া থেকে

পরিস্থিতির দিকে নজর রেখে ১০ দিনের মেয়াদে স্যামসাং চারটি নতুন মডেল বাজারে নিয়ে এসেছে। যেগুলির দাম ১০-২০ হাজারের মধ্যে। বিক্রেতারা জানাচ্ছেন, বহুদিন আগে বাজারে আসা স্যামসাংয়ের মডেলগুলিও ভালোই বিকোচ্ছে।

ভিন্ন কারণ

লাদাখে ভারত-চিন সীমান্ত উত্তেজনার রেশ ধরে সরকারের চিনা বিনিয়োগ এবং পণ্য বর্জনের সিদ্ধান্তের বাইরেও চিনা স্মার্টফোনের বিক্রি কমার ভিন্ন কারণও রয়েছে।

একটি মহলের দাবি, একটা অংশ আবেগবশত চিনা স্মার্টফোনে (Smartphone) আগ্রহ না দেখালেও অন্য একটা বড়ো অংশ দাম এবং গুণমানের জন্য আকৃষ্ট। ফলে ওই অংশটি চিনা স্মার্টফোনের দিকেই যাবে। কিন্তু চিনা স্মার্টফোন অথবা যন্ত্রাংশের উৎপাদনে ভাটা পড়েছে। ফলে চাহিদা থাকলেও জোগান কী ভাবে অব্যাহত থাকবে, সেটাই দেখার।

অন্য দিকে স্যামসাং দক্ষিণ কোরিয়ার সংস্থা হলেও চিনে বেশ কিছু সংস্থার সঙ্গে তাদের অংশীদারিত্ব রয়েছে। সংস্থার অংশীদারিত্ব এক শতাংশের নীচে নেমে যাওয়ার পরে গত বছর চিনে তার উৎপাদন প্রকল্প বন্ধ করে দিয়েছে স্যামসাং। তবে কিছু মূল নকশা প্রস্তুতকারকের সঙ্গে এখনও অংশীদারিত্ব ধরে রেখেছে।

Continue Reading
Advertisement
দেশ22 mins ago

‘বিস্তারবাদ’ অতীত, বিশ্বে এখন ‘বিকাশবাদ’ প্রাসঙ্গিক, লাদাখে বললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

gst
শিল্প-বাণিজ্য1 hour ago

জিএসটি-তে বড়োসড়ো স্বস্তি, কমল জরিমানা

দেশ1 hour ago

এক মাসে ভারত-বাংলাদেশ পণ্যবাহী শতাধিক ট্রেন চলেছে

thunderstorm
রাজ্য2 hours ago

কলকাতা-সহ গোটা দক্ষিণবঙ্গে সন্ধ্যার মধ্যে বজ্রবিদ্যুৎ-সহ ঝড়বৃষ্টির সম্ভাবনা

বিদেশ2 hours ago

প্রধানমন্ত্রীর লাদাখ সফরের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই চিনের প্রতিক্রিয়া

দেশ3 hours ago

কোভিড-১৯: হোম আইসোলেশনের নতুন নিয়ম জারি করল স্বাস্থ্যমন্ত্রক

দেশ4 hours ago

চ্যাংরাবান্ধা দিয়ে শুরু হল ভারত-বাংলাদেশ বাণিজ্য

দেশ5 hours ago

আচমকা লাদাখ সফরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, সেনার সঙ্গে বৈঠক

দেশ7 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ২০,৯০৩, সুস্থ ২০,০৩২

ক্রিকেট2 days ago

আইসিসির চেয়ারম্যানের পদ থেকে সরে দাঁড়ালেন শশাঙ্ক মনোহর, এ বার কি সৌরভ?

DIY
ঘরদোর3 days ago

সময় কাটছে না? ঘরে বসে এই সমস্ত সামগ্রী দিয়ে করুন ডিআইওয়াই আইটেম

ক্রিকেট3 days ago

বর্ণবিদ্বেষের বিরুদ্ধে গর্জে উঠতে আসন্ন টেস্ট সিরিজে ওয়েস্ট ইন্ডিজের জার্সিতে থাকছে ‘ব্ল্যাক লাইভ্‌স ম্যাটার’

বিজ্ঞান2 days ago

কোভাক্সিন কী? জেনে নিন বিস্তারিত

LPG
শিল্প-বাণিজ্য2 days ago

পর পর দু’মাস বাড়ল রান্নার গ্যাসের দাম

দেশ2 days ago

ভারতে রোগীবৃদ্ধির হার কমল অনেকটাই, সুস্থতার হার ৬০ শতাংশের কাছাকাছি

ক্রিকেট2 days ago

২০১১ বিশ্বকাপ কাণ্ড: ফাইনালে খেলা ক্রিকেটারকে জিজ্ঞাসাবাদ শ্রীলঙ্কা পুলিশের

নজরে