চেন্নাই ও নয়াদিল্লি: শুধুমাত্র জল্লিকাট্টুর জন্য নয়, বরং অনেক দিন ধরে পুঞ্জিভুত ক্ষোভের বহিপ্রকাশ এই জল্লিকাট্টু বিক্ষোভ। এমনই দাবি করলেন অভিনেতা কমল হাসন।

মঙ্গলবার একটি সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি জানান, “দশকের পর দশক করে পুঞ্জিভুত ক্ষোভের ফল এই বিক্ষোভ। এটা হঠাৎ কোনো বহিপ্রকাশ নয়। বিক্ষোভটা এখন হচ্ছে কারণ, আমরা একটা কারণ পেয়েছি। আমরা সবসময় কারণ খোঁজার জন্য অপেক্ষা করি।” এর পাশাপাশি  বিক্ষোভ দমন করতে গিয়ে পুলিশের ভূমিকার তীব্র সমালোচনা করেন এই অভিনেতা।

উল্লেখ্য, সোমবারের অশান্ত হয়ে ওঠা বিক্ষোভ দমন করতে গিয়ে পুলিশের বিরুদ্ধে অগ্নিসংযোগ করার অভিযোগ উঠেছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া ভিডিওয় দেখা যাচ্ছে একটি অটোতে আগুন লাগিয়ে দিচ্ছে পুলিশ।

 অন্যদিকে কেন্দ্রের যে নির্দেশিকার ভিত্তিতে জল্লিকাট্টুর ওপর নিষেধাজ্ঞা তোলার ব্যাপারে রায় দেওয়ার কথা শীর্ষ আদালতের, সেই নির্দেশিকাই এ বার প্রত্যাহার করার চিন্তা ভাবনা করছে কেন্দ্র। প্রসঙ্গত ২০১৪ থেকে সুপ্রিম কোর্টের রায়ে নিষিদ্ধ জল্লিকাট্টু। সেই নিষেধাজ্ঞা তোলার জন্য এ বছর ৮ জানুয়ারি একটি নির্দেশিকা জারি করে শীর্ষ আদালতের দারস্থ হয় কেন্দ্র। সেই নির্দেশিকার ভিত্তিতে গত সপ্তাহে রায় দেওয়ার কথা ছিল সুপ্রিম কোর্টের। তবে তামিলনাড়ুতে অশান্তি আরও বাড়ার অজুহাত দিয়ে শীর্ষ আদালতকে সেই রায় পিছিয়ে দেওয়ার আবেদন করে কেন্দ্র। সোমবার তামিলনাড়ু বিধানসভায় জল্লিকাট্টু সংক্রান্ত আইন পাস হওয়ার পরেই, নিজেদের নির্দেশিকা প্রত্যাহার করার নিয়ে চিন্তাভাবনা শুরু করে কেন্দ্র।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here