tree
গাছ বাঁচাও কর্মসূচিতে উদ্যোগ যুবকযুবতীদের

অভি ভট্টাচার্য, হুগলি: হুগলির তারকেশ্বর থেকে বৈদ্যবাটী অবধি ১২ নম্বর রোড ধরে গাছ বাঁচাতে গাছ গোনার কর্মসূচি নিল এলাকার যুবক যুবতীরা। সাইকেল দিবসে সাইকেলে চড়ে চার দফায় গাছ গোনার কাজ করা হল। প্রথম দফা হল তারকেশ্বরের জয়কেষ্ট বাজার থেকে হরিপালের গোপীনগর পর্যন্ত। দ্বিতীয় দফা গোপীনগর থেকে মালিয়া পেট্রোল পাম্প পর্যন্ত। তৃতীয় দফায় মালিয়া থেকে নালিকুল এবং চতুর্থ দফায় নালিকুল থেকে বৈদ্যবাটী দিল্লি রোড মোড় পর্যন্ত।

এই কর্মসূচিতে রয়েছে প্রায় ৪০ কিলোমিটার এলাকা। ১২ নম্বর রোডের গায়ে সাত হাজার চারশো ৬৬টি গাছ গোনা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে প্রচুর বট, অশত্থ, আকাশমণি, নারকেল, সজনে, বেল, রাধাচূড়ার মতো গাছ।

১২ নম্বর রাস্তার গাছ বাঁচানোর চেষ্টায় রত মানুষজন

যুবক যুবতীরা জানান, যে তাঁদের এই কাজের উদ্দেশ্য হল রাস্তার গায়ের এত রকম প্রজাতির প্রায় হাজার আষ্টেক গাছ কে বাঁচানো। তাঁদের কথায়, ‘রাস্তা চওড়া হোক না হোক, অটুট থাকবে বৃক্ষলোক’।

উল্লেখ্য ১২ নম্বর রোড আরও চওড়া হলে নানা প্রজাতির প্রচুর গাছ কাটা পড়ার আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী। ইতিমধ্যেই দিল্লি রোডের মোড় থেকে জিটি রোড চৌমাথা পেরিয়ে গঙ্গা পর্যন্ত রাস্তা চওড়া হওয়ার কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে৷ এই কাজে এরই মধ্যে প্রায় চল্লিশটি গাছ কাটাও পড়েছে।

১২ নম্বর রাস্তার ধারে গাছ

এ ছাড়াও সম্প্রতি কদম, কৃষ্ণচূড়া, নারকেল, পলাশ ইত্যাদি মিলিয়ে গোটা দশেক গাছ বসিয়েছেন এলাকার মানুষজন। তাঁদের মধ্যে ছিলেন নালিকুলের কিছু যুবক যুবতী, শিক্ষক, মার্বেল মিস্ত্রি, ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে গ্রামবাসীররা। তাঁরা সকলে শপথ নিয়েছেন, ১২ নম্বর রোডের পাশে থাকা একটি গাছও কাটতে দেবেন না। পাশাপাশি ওই দিন একটি নাটকও অনুষ্ঠিত হয় নালিকুলে। নাটকের নাম ‘গাছেদের প্রাণ মানুষের হাতে!’ এ ছাড়াও লিফলেট ও ‘পরিবেশ ও প্রকৃতি সংকট’ নামক পুস্তিকাও বিলি করা হয়।

এর পর সাধারণ মানুষ, ছাত্রছাত্রীদের কাছে পরিবেশ রক্ষার বার্তা পৌঁছে দিতে আগামী দিনে প্রতিটি গাছের আইডি বানানো হবে। পথের পাশে দোকানদার, খরিদ্দার, পথচারী মানুষদের সঙ্গে নিয়ে বৃহত্তর প্রচার চালানো হবে। একই সঙ্গে বহু মানুষের সই-সংগ্রহ, গাছের ধারে পোস্টারিং ইত্যাদিও করা হবে বলে জানান তাঁরা।

আরও পড়ুন – ছিঁড়ছে জাল, জমছে আবর্জনা! হারিয়ে যাবে না তো?

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here