চোরাশিকারিদের হাতে গন্ডার হত্যা রুখতে লাটাগুড়িতে কর্মশালা

‘জু আউটরিচ অর্গানাজেশন’-এর উদ্যোগে এবং ন্যাফের সহযোগিতায় বুধবার শুরু হয় এই কর্মশালা। তিনদিন ব্যাপী এই কর্মশালার উদ্দেশ্য এই চোরাশিকারিদের রুখতে সাধারণ মানুষকে যুক্ত করে নেওয়া।

0
rhinoceros
ছবি : ক্রল ডট ইন

লাটাগুড়ি : গরুমারা ও জলদাপাড়ায় গন্ডার সংরক্ষণ কপালে ভাঁজ ফেলেছে বন দফতরের। গত কয়েক বছরে এই অঞ্চলে চোরাশিকারিদের হাতে একাধিক গন্ডারের মৃত্যু হয়েছে। গন্ডার সংরক্ষণে এক বিশেষ কর্মশালা হল জলপাইগুড়ির লাটাগুড়িতে।

‘জু আউটরিচ অর্গানাজেশন’-এর উদ্যোগে এবং ন্যাফের সহযোগিতায় বুধবার শুরু হয় এই কর্মশালা। তিন দিনব্যাপী এই কর্মশালার উদ্দেশ্য ছিল, চোরাশিকারিদের রুখতে সাধারণ মানুষকে যুক্ত করে নেওয়া।

‘জু আউটরিচ অর্গানাজেশন’-এর চেয়ারম্যান বাস্কেল আইয়াচেমি ডেনিয়েল জানান, বন সংলগ্ন এলাকার বাসিন্দাদের সাহায্য ছাড়া চোরাশিকারিরা গন্ডার বা হাতি মারতে পারে না। নিজেদের অজান্তেই চোরাশিকারিদের সাহায্য করে ফেলছেন তারা।

বনবস্তিবাসী মানুষদের সচেতন করতেই এই কর্মশালার আয়োজন করা হয়েছে বলে তিনি জানান। কর্মশালায় নানা পেশার মানুষজনের পাশাপাশি উপস্থিত ছিলেন জলপাগুড়ির বিভিন্ন পরিবেশপ্রেমী এবং স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্যরা।

তিন দিনের এই কর্মশালার শেষে প্রশিক্ষণপ্রাপ্তরা গরুমারা জঙ্গল লাগোয়া কোনো এলাকা বা স্কুলে কর্মশালা করে শেখা বিষয়গুলি বোঝাবেন।

এই কর্মশালার উদ্বোধন করেন উত্তরবঙ্গের মুখ্য বনপাল গঙ্গাপ্রসাদ ছেত্রী। ন্যাফের কোঅর্ডিনেটর অনিমেষ বসু জানিছেন, গরুমারা এবং জলদাপাড়াকে কেন্দ্রে করে আরও তিনটি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হবে। আগামী ২৯-৩১ জুলাই জলদাপাড়ায় এই কর্মশালা অনুষ্ঠিত হবে। ৩ থেকে ৫ আগস্ট গরুমারা সংলগ্ন এলাকায় অপর একটি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হবে।

আরও পড়ুন : স্বাভাবিকের থেকে অনেক দ্রুত গতিতে গলছে আর্কটিক মহাসাগরের বরফ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here