Income Tax Return
ছবি: জি বিজনেস থেকে

ওয়েবডস্ক: হাতে আর মাত্র একটা সপ্তাহ। তার মধ্যেই সেরে ফেলতে হবে ২০১৮-১৯ অ্য়াসেসমেন্ট ইয়ারের আয়কর রিটার্নের কাজ। নইলে কিন্তু সর্বোচ্চ ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানার মুখে পড়তে হতে পারে। বেশ কিছু নতুন নিয়মের আবির্ভাব হলেও অনেকটা সহজই হয়েছে অনলাইনে আয়কর জমার পদ্ধতি। তবে ফর্ম ভরার সময় এই সাধারণ কয়েকটি বিষয় মাথায় রেখে চললে আরও সরল হবে প্রক্রিয়া।

১. ব্যাঙ্কের পাসবইয়ের পাশাপাশি চেকবই হাতের কাছে রাখুন। অ্যাকাউন্ট নম্বর পাসবুকে থাকলেও আইএফএসসি কোড নাও থাকতে পারে সেখানে। তবে চেকবইয়ে তা অবশ্যই থাকবে। আবার ব্যাঙ্ক ডিটেলস আগে থেকে চিরকুটে লিখে রাখলে তো খুবই ভালো।

২. আয়কর আইনের ৮০ ধারায় দেদার কর ছাড়ের সুবিধা মেলে। সর্বোচ্চ দেড় লক্ষ টাকা পর্যন্ত করছাড়ের সুযোগ হাতছাড়া করা মোটেই বুদ্ধিমানের কাজ নয়। ফলে ৮০সি থেকে শুরু করে ৮০টিটিবি পর্যন্ত উপধারাগুলিতে ঠিক কী কী বিষয়ের উপর ছাড় রয়েছে, তা ভালো করে দেখে নিন। ক্লিক করুন এখানে ‘৮০’

আরও পড়ুন: পোস্ট অফিসে মাত্র ২০ টাকাতেই খোলা যায় সেভিংস অ্যাকাউন্ট! চাইলে পাবেন চেকবই, এটিএম সুবিধা

৩. সন্তানের শিক্ষার খরচে করছাড়ের সুযোগ রয়েছে। হ্যাঁ, মোটামুটি সবারই জানা কথা। কিন্তু এ বিষয়টাও মাথায় রাখা দরকার সর্বাধিক দুই সন্তানের জন্য এই ছাড় পাওয়া যাবে।

৪. ইন্টারনেটে গিয়ে ‘ইনকাম ট্যাক্স রিটার্ন’ টাইপ করলে অগুন্তি ওয়েবসাইট ভেসে উঠবে। কিন্তু সাবধান অন্য কোথাও নয়। একমাত্র আয়কর বিভাগের নিজস্ব ওয়েবসাইটে গিয়েই আয়কর দাখিল করুন। সাইটটি হল- IncomeTaxIndiaeFiling.gov.in 

আরও পড়ুন: স্বাস্থ্য বিমা করানোর আগে এই ৪টি টিপস জেনে রাখা ভালো

৫. প্রথমবার নিজের হাতে আয়কর দাখিল করতে গিয়ে অনেকরই মনে হয়, আয় তো জানাব, কিন্তু করের পরিমাণ কী ভাবে নির্ণয় করব? চিন্তা নেই, এই কাজটি হয়ে যাবে স্বয়ংক্রিয় ভাবেই।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here