স্মিতা দাস

কলকাতা : ‘‘জব সিকার নয়, হতে হবে জব ক্রিয়েটর’’। আর এই ‘জব ক্রিয়েট’ করবেন নতুন উদ্যোগপতিরা। কেমন ভাবে করতে পারবেন সেই কাজ? সেই পথ দেখাতেই, নতুন উদ্যোগপতিদের এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে স্টার্ট ফেড একটি বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিল মঙ্গলবার। স্টার্ট ফেড-এর সঙ্গে সহযোগিতায় ছিল জেআইএস গ্রুপ, বেঙ্গল চেম্বার অফ কমার্স (বিসিসিআই)।

অনুষ্ঠানের মূল উদ্দেশ্য পশ্চিমবঙ্গের নতুন প্রজন্মের উদ্যোগপতিদের উৎসাহ ও তথ্য দেওয়া। পশ্চিমবঙ্গ সরকার, অন্যান্য রাজ্য সরকার তথা ভারত সরকার কী ধরনের ব্যবস্থা বা সুযোগসুবিধে দিচ্ছে নতুন উদ্যোগপতিদের জন্য, সেই বিষয়টির ওপর আলোকপাত করাই এই আয়োজনের মূল লক্ষ্য, জানালেন বেঙ্গল চেম্বারের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ও স্টার্ট আপ ফেডের ফাউন্ডার কল্লোল দত্ত।

কল্লোল দত্ত।

তিনি বলেন, পশ্চিমবঙ্গে ভালো চিন্তাভাবনা, ম্যানপাওয়ার, কাজের পরিবেশ, সুযোগ, প্রযুক্তি, অর্থনৈতিক সক্ষমতা সবই আছে। কিন্তু রয়েছে সঠিক দিশার অভাব। এই ছন্নছাড়া ব্যাপারটাকেই সাজিয়ে নিতে হবে। তার জন্যই এই উদ্যোগ। এ দিনের অনুষ্ঠানে ছিলেন বিহার সরকারের প্রযুক্তি বিভাগের রবীন্দ্র প্রসাদ ও ওড়িশার অতি ক্ষুদ্র, ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোগ বিভাগের প্রিন্সিপ্যাল সেক্রেটারি এল এন গুপ্তা-সহ অনেকে।

এখন শুধু নিজের চেষ্টা নয়, পাশে থাকবে সরকারি ও বেসরকারি নানা সংস্থার সাহায্য। কোনো রকম নতুন চিন্তাভাবনা বা ভালো উদ্যোগপতি যাতে রাজ্যছাড়া বা দেশছাড়া না হয়, সেই দিকে বেড়া দিতেই স্টার্ট আপ ইন্ডিয়ার উদ্যোগে এমন আলোচনাসভার আয়োজন করা হয়েছে। যাতে উদ্যোগপতিদের কাছে সরকারের চিন্তাভাবনা ও প্রচেষ্টা পৌঁছে দেওয়া যায়। কোন পথে এগোলে নিজের পরিকল্পনা বা প্রকল্পকে ঠিক ভাবে রূপায়িত করা যাবে সেই উপায় বাতলালেন বিহার ও ওড়িশা সরকারের প্রতিনিধিরা। পশ্চিমবঙ্গের উদ্যোগপতিদের পেছনে শুধু রাজ্য সরকার নয়, আছে প্রতিবেশী রাজ্যের সরকার ও কেন্দ্রীয় সরকারও, জানালেন এল এন গুপ্তা। তিনি বলেন, পাশে রয়েছে বিভিন্ন আইআইটি ইণ্ডাস্ট্রিও। নতুন এই উদ্যোগপতিদের জন্য সব থেকে বড়ো ইনভেস্টার হলেন কাস্টমার বা গ্রাহক। তাঁদের ‘নিড’ বা প্রয়োজন বুঝতে হবে এই উদ্যোগপতিদের। সেটাই উৎসাহ দেবে এগিয়ে যেতে। তিনি বলেন, ব্যর্থতা নিয়ে ভয় পেলে চলবে না। সকলেই ব্যর্থ হয়। কিন্তু এক বারের সাফল্যই মোড় ঘুরিয়ে দেয়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত শ্রোতারা।

এই মোড় ঘোরানোর জন্যই রয়েছে মেন্টার, ইনকিউবেটর, ইনভেস্টার ও সরকারের নানান ‘ইনসেনটিভস’। এই সব কিছুর ব্যাপারে জানেন না বহু মানুষই। তাঁদের কাছে নতুন নতুন ‘আইডিয়া’ আছে, কিন্তু কোন পথে চলতে হবে? তা কী ভাবে ‘মডিফাই’ করতে হবে জানেন না তাঁরা। ফলে ব্যর্থ হন। স্টার্ট আপ বা বেঙ্গল চেম্বার সেই ফাঁক পূরণের কাজ করছে। খাপ ছাড়া প্রচেষ্টাকে নির্দিষ্ট পথে পরিণত রূপ দিতে শুধু নয়, উপযুক্ত বাজার খুঁজে দিতে সাহায্য করবে এই ‘স্টার্ট আপ’। তার জন্য যোগাযোগ করতে হবে, জানান পশ্চিমবঙ্গ সরকারের শিল্প, বাণিজ্য ও উদ্যোগের ভারপ্রাপ্ত সচিব সুমন মুখোপাধ্যায়।

এই বিষয়ে রেজিস্ট্রেশন বা যাবতীয় বিষয়ে বিস্তারিত জানতে দেখবে হবে উদ্যোগ আধার পোর্টাল। পোর্টালটি হল  https://udyogaadhaar.gov.in

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here