Pradhan Mantri Awas Yojana (PMAY) - Credit Linked Subsidy Scheme ( CLSS)

নয়াদিল্লি: ক্রেডিট-লিঙ্কড ইন্টারেস্ট সাবসিডি স্কিম (সিএলএসএস) বা সুদ ভর্তুকিযুক্ত ঋণ তহবিলে বরাদ্দ বাড়াতে চলেছে কেন্দ্র। আসন্ন প্রায় ২০১৮-১৯ অর্থবর্ষের বাজেটে তা ঘোষণা করা হতে পারে বলে জানা গিয়েছে। গত ২০১৫ সালে প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার অন্তর্গত এই প্রকল্প চালু করে কেন্দ্র। এই তহবিল থেকে মনোনীত ব্যাঙ্কের মাধ্যমে ঋণ নেওয়া অর্থের উপর বিশেষ ছাড়া পেয়ে থাকেন গ্রহীতারা। মূলত বাড়ি কেনা, তৈরি করা, সম্প্রসারণ বা সংস্কারের জন্য এই ঋণ প্রদান করা হয়।

অর্থনীতি বিশেষজ্ঞদের মতে, সরকার সিএলএসএস-এ বরাদ্দ বাড়ানোর দ্বিমুখী কার্যকারিতা রয়েছে। এর ফলে যেমন এক দিকে আরও বেশি সংখ্যক মানুষের চাহিদা মেটানো সম্ভব হবে তেমনই আবাসন প্রকল্পগুলি ফের চাঙ্গা হয়ে উঠবে। গত প্রায় এক বছর ধরে রিয়াল এস্টেট ব্যবসা যে ভাবে একের পর এক ধাক্কা খেয়ে দুর্বল হয়ে পড়েছে, তাতে নতুন করে অক্সিজেন জোগাবে কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্ত।

সরকারি রিপোর্টে দেখা গিয়েছে, সিএলএসএস-এর মধ্যম আয়ের গোষ্ঠী বা এমআইজি-র জন্য প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনা (শহর)-র শুরু হয়েছে খুবই হতাশা জনক ভাবে। সেখানে ৯৯৪৪ জন ঋণগ্রহীতা মাত্র ২০৪.৬ কোটি টাকা ঋণ নিয়েছেন। কিন্তু গত ২০১৭-১৮ অর্থবর্ষে ওই বরাদ্দ প্রায় এক হাজার কোটি টাকায় নিয়ে গিয়েছিল অর্থ মন্ত্রক।

অন্য দিকে অর্থনৈতিক ভাবে দুর্বল (ইডব্লিউএস) অংশ এবং নিম্ন আয়ের গোষ্ঠী (এলআইজি)-র ঋণগ্রহণ যথেষ্ট আশার সঞ্চার করেছে। জানা গিয়েছে, গত বছর এই দুই অংশের ৫৩,০০০ গ্রহীতার হাতে ৪০০ কোটি টাকা তুলে দেওয়া সম্ভব হয়েছে। উল্লেখ্য, গত ২০১৬-১৭ অর্থবর্ষে ৪৭৫ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হলেও গত বছর তা কমিয়ে ৪০০ কোটিতে নিয়ে এসেছিল কেন্দ্র।

পরিস্থিতি বিবেচনা করে সরকার এ বারের বাজাটে এমআইজি-র বরাদ্দ কিছুটা কমাতে পারে। কিন্তু আর্থিক ভাবে দুর্বল ও নিম্ন আয়ের গ্রহীতার জন্য তহবিলে এক লাফে বরাদ্দ অনেকটাই বাড়ানো হতে পারে। সূত্রের খবর, এই দুই অংশের ঋণ গ্রহীতার জন্য বরাদ্দ হতে পারে ১৩০০ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন: সুদ কমল এসবিআইয়ের গৃহঋণে, কীভাবে ঘুরে দাঁড়াবে রিয়েল এস্টেট?

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here