Amul Dairy
ছবি: ইন্ডিয়া টিভি থেকে

ওয়েবডেস্ক: দেশের বৃহত্তম দুগ্ধ ও দুগ্ধজাত দ্রব্য বিপণন ও প্রস্তুতকারক সংস্থা আমুল সহজ শর্তে ব্যক্তিগত উদ্যোগীদের বড়োসড়ো আয়ের সুযোগ করে দিচ্ছে। সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে, ফ্ৰ্যাঞ্চাইজি ভিত্তিতে আমুলের পণ্য বিক্রির মাধ্যমে মাসিক ২-৬ লক্ষ টাকা পর্যন্ত আয়ের দরজা খুলে দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

সংস্থার তরফে সম্প্রতি বিজ্ঞপ্তি আকারে জানানো হয়েছে, ঝুঁকি নিতে প্রস্তুত এমন যে কোনো ব্যবসায়ীকে ফ্ৰ্যাঞ্চাইজি হিসাবে কাজ করতে পারবেন। এর জন্য দরকার খুব সামান্য পরিমাণ অর্থ লগ্নি এবং কার্যকরী মূলধন।

ব্যবসার ধরন

নিজের সাধ্য মতোই আমুলের পণ্য বিক্রি করতে পারবেন আগ্রহীরা। এর জন্য নির্দিষ্ট কোনো লভ্যাংশ বা রয়ালটি দিতে হবে না আমুলকে। হোলসেল ব্যবসায়ীরা আমুলের সরবরাহ করা পণ্য খুচরো বিক্রেতাকে জোগান দেবেন। ফলে কার্যকরী মূলধন নির্ভর করবে, কে কতটা পণ্য নিচ্ছেন তার উপর। তবে মাসিক টার্নওভারের পরিমাণ ন্যূনতম ৫ লক্ষ থেকে ১০ লক্ষ টাকার মধ্যে রাখার চেষ্টা করতে হবে।

বিনিয়োগের পরিমাণ

বিভিন্ন ধরনের দোকানের জন্য পৃথক বিনিয়োগ নির্ধারিত হবে। প্রাথমিক ভাবে স্থির হয়েছে আমুল রেলওয়ে পার্লার বা আমুল কিয়স্কের জন্য ২ লক্ষ টাকা পর্যন্ত খরচ করতে হবে। ২৫ হাজার টাকা জমা রাখতে হবে ব্র্যান্ডের সিকিউরিটি ডিপোজিট হিসাবে। দোকানের সংস্কার কাজের জন্য ১ লক্ষ এবং আনুষঙ্গিক উপকরণের জন্য ৭৫ হাজার টাকা ব্যয় করতে হবে।

আরও পড়ুন: ব্যবসার জন্য টাকার দরকার? নজরে রাখতে পারেন এই ৫টি টিপস

আবার আমুলের আইসক্রিম দোকানের জন্য লগ্নি করতে হবে ৫ লক্ষ টাকা। সে ক্ষেত্রে ব্র্যান্ড সিকিউরিটি ৫০ হাজার, সংস্কারের জন্য ৪ লক্ষ এবং আনুষঙ্গিক উপকরণের জন্য দেড় লক্ষ টাকা খরচ করতে হবে।

আয়ের পরিমাণ

আমুল বলেছে, ব্যবসার স্থানের উপর অনেকটাই নির্ভর করবে আয়ের পরিমাণ। তবে ২-৬ লক্ষ টাকা মাসিক আয় করা খুব একটা কষ্টকর ব্যাপার নয়।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here