GST

ওয়েবডেস্ক: জিএসটির এক বছর পূরণ হওয়ার পর বেশ স্বস্তিদায়ক কর আদায়ের চিত্রই উঠে এল।  এই সাফল্য হয়তো কেন্দ্রীয় সরকারকে নিজের রাজস্ব ঘাটতি পুষিয়ে বাজেট অনুমোদনের সঙ্গে সামঞ্জস্য রাখার দিকে  কয়েক ধাপ এগিয়ে দিল।  কিন্তু আগামী ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনের দিকে তাকিয়ে সরকার জিএসটি হার পরিবর্তনে যে ধরনের সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে, তা ফলে কর আদায়ের এই ক্রমবৃদ্ধি যে অনেকটাই হ্রাস পাবে, তা প্রায় নিশ্চিত।

সদ্য শেষ হওয়া জুন মাসে মোট জিএসটি আদায়ের পরিমাণ ৯৫.৬ হাজার কোটি টাকা, যা পূর্ববর্তী মে মাসে ছিল ৯৪ হাজার কোটি টাকা। একই ভাবে সরকারি পরিসংখ্যান বলছে সিজিএসটি, এসজিএসটি এবং আইজিএসটি-তে আদায়ের পরিমাণ যথাক্রমে ১৬, ২২ এবং ৪৯.৫ হাজার কোটি টাকা, যেখানে গত মে মাসে এই তিনটি খাতে আদায়ের পরিমণ ছিল যথাক্রমে ১৫.৯, ২১.৭ এবং ৪৯.১ হাজার কোটি টাকা।

অর্থাৎ, সামগ্রিক ভাবে তো বটেই ক্ষেত্র বিশেষেও প্রতিটি বিভাগে বেড়েছে কর আদায়ের পরিমাণ। কিন্তু সরকারের চোখে রয়েছে সাধারণ নির্বাচন। তার আগে মানুষের কাছে সরকারের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করে তোলার স্বার্থে শাসক দল নিয়ে থাকে বিভিন্ন ধরনের পরিকল্পনা। গত সপ্তাহেই জানা গিয়েছে, নিকট ভবিষ্যতে কেন্দ্রীয় সরকার ফের জিএসটি হারের রদবদল করতে চলেছে। যেখানে সর্বোচ্চ স্তরের অর্থাৎ ২৮ শতাংশ করযুক্ত ২৯ টি পণ্য এবং ৫৩ টি পরিষেবাকে রেহাই দেওয়া হতে পারে। এমনটাও জানা গিয়েছে, ওই পণ্য ও পরিষেবাগুলিকে নিয়ে আসা হতে পারে ১২-১৮ শতাংশ করের আওতায়। স্বাভাবিক ভাবেই, তা যদি সত্যিই বাস্তবায়িত হয়, তবে জিএসটি আদায়ের পরিমাণ এক ধাক্কায় অনেকটাই কমতে বাধ্য।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here