sensex nifty

বিশেষ প্রতিনিধি: সাতটা ট্রেডিং ডে পার হয়ে গেল, অনেক ছোটোখাটো আঘাত-প্রত্যাঘাতেরই সৃষ্টি হল এ দেশের শেয়ার বাজারে, কিন্তু নিফটি ১০,৫০০ পয়েন্টর উপর নিজেকে ধরে রাখতে চূড়ান্ত সফল হয়েছে। চলতি ২০১৯ সালের একেবারে শুরুর দিকটা চমকপ্রদ উত্থানের পর শুরু হয়েছিল ভাঁটার টান। সেই জায়গা থেকে দীর্ঘ মেয়াদি সংকোচনের মধ্যে দিয়ে ভারতীয় শেয়ার বাজারের প্রায় প্রতিটি সূচক যে যথেষ্ট শক্তি সঞ্চয় করেছে, তা এই ঘটনাতেই স্পষ্ট। তা হলে বিনিয়োগ কি এখন অনেকটাই নিশ্চিত লাভের মুখ দেখাতে পারবে?

গত সোমবার বাজার শুরু প্রথমার্ধে নিফটি ১০,৫১৪ পয়ন্টে গিয়ে ঠেকার পর ধারণা করা হচ্ছিল এ বার বোধহয় সে ১০,৫০০ পয়েন্টের সিঁড়ি দিয়ে নীচের দিকে নামতেই থাকবে। কিন্তু তা না হওয়ার মূল কারণ ফ্রেশ বিনিয়োগকারীর আবির্ভাব। ফেব্রুয়ারির শুরু থেকে যে ভাবে বাজার সংশোধনীর পথ ধরেছিল তার কঠিন প্রভাব দেখা যাচ্ছে এখন। শত চেষ্টা করেও বাজারকে আচমকা নীচের দিকে টেনে নামানো অসম্ভব হয়ে যাচ্ছে। যেটা সিরিয়ায় কেমিক্যাল অ্যাটাকের ঘটনার পরই হাতেনাতে প্রমাণ হয়েছে। অপরিশোধিত জ্বালানি তেল নিয়ে চরম উত্তেজনার মধ্যেও এ দেশের শেয়ার বাজার যথেষ্ট সহনশীলতা দেখিয়েছে। আবার রাষ্ট্রায়ত্ত বৃহৎ তেল সরবরাহকারী সংস্থাগুলিকে লিটার প্রতি এক টাকা লাভ কমানোর সরকারি নির্দেশের ফলে নির্দিষ্ট ওই সংস্থাগুলি ৭-৮ শতাংশ পতনের সম্মুখীন হলেও সামগ্রিক ভাবে বাজার তার উত্তার এড়িয়ে চলেছে।

শেয়ার বাজারের এই অবস্থাকে বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, ক্লাসিক কনসলিডেশন।  যা বেশ কয়েক বছরে হাতে গোনা কয়েকবারই দেখা যায়। বাজার থিতু হয়ে, এমন বার্তায় ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের মনে সব থেকে বেশি আশ্বস্থতা আসে। স্বল্প পুঁজির ক্ষেত্রে এমন একটা অবস্থা শুভলক্ষণ তো বটেই।

সেই লক্ষণ আরও গাঢ় হবে যদি দেখা যায়, মঙ্গলবারের বাজারে নিফটি ১০,৬১০ থেকে ১০,৬৪০ পয়েন্ট ছুঁয়ে এল অথবা যত প্রতিবন্ধকতাই আসুক না কেন নিফটি ১০,৫৪০ থেকে ১০,৫১০-এর মধ্যে নিজেকে বেঁঁধে রাখল। এই সাপোর্ট-রেজিস্ট্য়ান্সে নিফটি মঙ্গলবার বাঁধা পড়লে বিনিয়োগ করুন নিশ্চিন্তে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here