Savings

ওয়েবডেস্ক: এ কথা তো অস্বীকার করার উপায় নেই, অর্থ উপার্জনে সাফল্য পেতে হলে আমাদের কঠোর পরিশ্রম করতে হয়। কিন্তু সেই কঠোর পরিশ্রমে অর্জিত অর্থের মাধ্যমে যদি ধনী হতে হয়, তা হলে অবশ্যই ওই অর্থের জন্যও কঠোর পরিশ্রম করতে হয়। বলেছেন ওয়ারেন বাফেট। অর্থ উপার্জনের জন্য দিন-রাত কী পরিশ্রমই না করে চলেছি, শুধু মাত্র এমন মানসিকতা পোষণ করলেই সম্পদশালী হয়ে ওঠা সম্ভব নয়। অর্জিত অর্থের সঠিক ব্য়বহারের মধ্যেই লুকিয়ে রয়েছে সাফল্যের চাবিকাঠি। তা হলে কী ভাবে হবে সেই অর্থের জন্য পরিশ্রম?

প্রথমেই স্থির সিদ্ধান্তে আসা দরকার। একটা নির্দিষ্ট ক্ষেত্রকে বেছে নেওয়ার কাজটা নির্ভর করে নিজস্ব জ্ঞান, অভিজ্ঞতা বা সুপরামর্শদাতার উপর। বর্তমানে সিস্টেমেটিক ইনভেস্টমেন্ট প্ল্যান বা এসআইপি-তে অর্থ বিনিয়োগের নতুন ট্রেন্ড চালু হয়েছে। নব্য উপার্জনকারীরা সে দিকেই ঝুঁকছেন। কিন্তু চোখ বন্ধ করে এজেন্টের কথায় ১০০ শতাংশ নির্ভর করাটা কোনো ক্ষেত্রেই সঠিক নয়। যাচাই করার কাজটা নিজেকেই করতে হয়। এসআইপি-র বিভিন্ন সুবিধার মধ্যে সব থেকে বড়ো সুবিধা অর্থ বিনিয়োগের নিয়ম-কানুন। প্রতি মাসে যে টাকা জমা করতেই হবে, এমন কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। ফলে এই সুযোগের সদ্ব্যবহার করতে ছাড়ছেন না অনেকেই।

মিউচুয়াল ফান্ড বা শেয়ার বাজারে বিনিয়োগের জন্য হাতের কাছে রয়েছে স্বীকৃত বেশ কয়েকটি বৃহদাকার বেসরকারি সংস্থা। কিন্তু সেখানে নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থের চেক দিয়ে দিলেই কাজ মিটে যায় না। বাফেটের কথায়, নিজেকে করতে হবে কঠোর পরিশ্রম। ব্রোকার চকিতে লাভদায়ক অনেক পরামর্শই দিতে চাইবে। তার মধ্যে কোনটাকে সঠিক বলে মনে হচ্ছে, তা বিচার করার জন্যই দরকার ওই পরিশ্রমের।

এ ব্যাপারে যে কথাটি না বললেই নয়, তা হল, তবিলদারির কাজ সামলানোর জন্য তো এখন হাতের কাছে রয়েছে হরেক রকমের যন্ত্র এবং পরামর্শদাতা। সেটা হতে পারে আপনার পাড়া-প্রতিবেশী, আত্মীয়-পরিজন আবার হতে পারে কোনো অর্থলগ্নি সংস্থার এজেন্ট বা শেয়ার মার্কেটের ব্রোকার। কেউ শুধুই নিতে চাইবে আবার কেউ-বা নেওয়ার বিনিময়ে আপনাকে অনেকটা বেশি ফিরিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেবে।

স্বাভাবিক ভাবেই নিছক প্রতিশ্রুতির উপর নির্ভর করে কঠোর পরিশ্রমে অর্জিত অর্থ বিনিয়োগের আগে আর একটা পরিশ্রম আপনাকে করতেই হবে। টাকা যেখানেই বিনিয়োগ করুন না কেন, আদতে সেটা সর্বাধিক কতটা নিশ্চিন্তে রাখতে পারছে। ব্যাঙ্কের সেভিংস বা ফিক্সড ডিপোজিট বাদে প্রায় সমস্ত বিনিয়োগই তো ঝুঁকি পূর্ণ। মাত্রার হেরফের থাকলেও ঝুঁকির বাজারে অর্থ বিনিয়োগের আগে তো ঘাম ঝরাতেই হবে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here