aircel

ওয়েবডেস্ক: অনেক গ্রাহকই দাবি করছেন- এয়ারসেল এ বার সংস্থার ঝাঁপ ফেলল বলে! যে ভাবে নেটওয়ার্ক পাওয়া নিয়ে সমস্যা হচ্ছে দিনের পর দিন, এমনকি অনির্দিষ্ট কালের জন্য কারও কারও ফোনে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে পরিষেবা- তার থেকে এমন একটা আতঙ্কের খবর তৈরি হওয়া অস্বাভাবিক কিছু নয়।

পাশাপাশি এই খবরটাও ছড়িয়ে পড়েছে যে- অনাদায়ী ঋণের মামলায় খুব তাড়াতাড়িই আদালতে হাজির দিতে হবে সংস্থাকে। যা স্পয্ট ভাবেই ইঙ্গিত দিচ্ছে- এই মুহূর্তে এয়ারসেল-এর আর্থিক অবস্থা শোচনীয়। খবর এসেছে- সংস্থা তার কর্মীদের চূড়ান্ত দুঃসংবাদটির জন্য প্রস্তুত থাকার অনুরোধও জানিয়েছে।

সব দিক বিবেচনা করে দেখলে এয়ারসেল বন্ধ হয়ে যাচ্ছে- এমনটাই ভেবে নেওয়া স্বাভাবিক! কিন্তু সংস্থা নিজে কী বলছে এ ব্যাপারে তার গ্রাহকদের?

সংস্থা বন্ধ হবে না!

এটা ঠিক যে রিলায়েন্স জিও টেলেকম দুনিয়ায় পা রাখার পর ভীষণ ভাবেই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এয়ারসেল। সংস্থা পাল্লা দিতে পারছে না প্রতিযোগীদের সঙ্গে নিত্য নতুন ডেটা ও কল অফার বাজারে এনে। এ-ও ঠিক, সংস্থার কর্মীদের বেতনও রয়েছে বকেয়া। কিন্তু তার পরেও এয়ারসেল লড়াই চালিয়ে যাবে বলে ঠিক করেছে। তাই গ্রাহকদের জানাচ্ছে সংস্থা- তাঁরা যেন কয়েকটা দিন একটু কষ্ট স্বীকার করেন, সংস্থাকে সময় দেন। এই খারাপ সময় থেকে সংস্থা নিজেকে টেনে বের করবেই! আর যদি একান্তই বন্ধ করে দিতে হয়, তবে খবরটা সংস্থাই এসএমএস মারফত সব গ্রাহককে জানাবে- তার জন্য সংবাদমাধ্যমের মুখ চাওয়ার প্রয়োজন হবে না।

তা হলে ভারতের নানা শহরে অনির্দিষ্ট কালের জন্য কেন নেটওয়ার্ক পরিষেবা বন্ধ হয়ে গিয়েছে?

এয়ারসেল-এর এই বিপত্তির কারণ অন্য আরেকটি টেলেকম সংস্থার সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধা। সেই সংস্থা এয়ারসেল-এর কাছে কিছু টাকা পায়, যা এয়ারসেল আপাতত মেটাতে পারছে না। তার জেরে সেই সংস্থার টাওয়ার থেকে এয়ারসেল-এর যে নেটওয়ার্ক পেতেন গ্রাহকরা, তা বন্ধ হয়ে গিয়েছে। এই জন্যই রাজস্থান, কলকাতা, চেন্নাই, ওড়িশা আর দিল্লির বেশ কিছু জায়গায় বহু সংখ্যক মানুষ আর নেটওয়ার্ক পাচ্ছেন না।

অথচ ভারতের কয়েকটি শহরে ইতিমধ্যে পরিষেবা বন্ধ হয়ে গিয়েছে এয়ারসেল-এর!

৩০ জানুয়ারির পরে দেশের গুজরাত, হরিয়ানা, হিমাচলপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র, মধ্যপ্রদেশ আর উত্তরপ্রদেশের পশ্চিমাংশে পরিষেবা বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়েছে সংস্থা। তা হলে এয়ারসেল-এর ভবিষ্যৎ কতটা উজ্জ্বল হতে পারে?

যাই হোক, সংস্থা তো জানিয়েছে যে বন্ধ হওয়ার হলে তারা গ্রাহকদের তা আগেভাগেই জানিয়ে দেবে। বাকিটা গ্রাহক হিসাবে আপনার মর্জি- নম্বরটা পোর্ট করিয়ে নেবেন না কি অন্য একটা ফোন কানেকশন নেবেন!

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন