sensex,nifty,share bazar

বিনিয়োগকারীদের মাথায় ঘুরেফিরে আসছে সেই একটাই প্রশ্ন। প্রতিদিনই যদি এ ভাবে বাড়তে থাকে শেয়ার বাজারের সমস্ত সূচক, তা এর শেষ কোথায়? না কি আচমকা বজ্রপতন ঘটতে পারে বিনিয়োগের ভাণ্ডারে। ফলে একটা চাপা আতঙ্ক কাজ করছে দেশীয় স্বল্প বিনিয়োগকারীদের মনে।

বাস্তব পরিস্থিতিই এমন প্রশ্নের জন্ম দিচ্ছে। তবে বাজার বিশেষজ্ঞরা যে কথা শোনাচ্ছেন তা মোটেই নতুন কোনো মত নয়। বিনিয়োগকারীদের ভাবনা মতোই তাঁরাও আশঙ্কা করছেন কোনো একটা কিছু ঘটনার। যেটা সুখের হতে পারে আবার দুখেরও। সেনসেক্স ৩৪৫০০ পয়েন্টে দাঁড়িয়ে আছে, সে সমস্ত শক্তি দিয়ে চেষ্টা করবে ওই অবস্থান বজায় রাখতে। কারণ তার লক্ষ্য রয়েছে ৩৫০০০-এর উপরে পাড়ি দেওয়ার। যতটা সহজ এ কথা বলা, মোটেই ততটা সহজ নয়, এই অবস্থান ধরে রেখে ওই উত্তরণ। সামনে বাজেট। বিদেশি বাজারে জ্বালানি তেলের দাম নিয়ে নিত্যদিন টালমাটাল অবস্থা ইত্যাদি কারণে যে কোনো সময় উল্টো কিছু ঘটে গেলে নিজের দায় নিজেকেই বহন করতে হবে। একই ভাবে নিফটিও ১০৬০০-এর ঘাট পার হয়ে গিয়ে নতুন ঘাটে নোঙর করতে চাইছে। ২০১৮-এর যে কোনো একটা সময় তার ১১৫০০ পয়েন্টের স্বাদ চেখে দেখার পরিসংখ্য়ানগত তথ্য আগেই উল্লেখ করা হয়েছে।

পরিস্থিতির সঙ্গে তাল মেলাতে স্বল্প বিনিয়োগকারীদের সে কারণেই সতর্ক হতে বলা হচ্ছে।  অন্তত সেনসেক্স এবং নিফটি গত বৃহস্পতিবার যে অবস্থানে ছিল, ওদের ওখানেই স্থায়ী হতে দিন। অর্থাৎ ওরা এখন যে যেখানে দাঁড়িয়ে রয়েছে, তার থেকে নীচে নামতে শুরু করলে বুঝতে হবে বিপদ সংকেত। ফলে ওদের দম দিতে দিন। আর আপনিও এই কদিন ধীরে চলো নীতি নিয়ে সময়ের অপেক্ষা করতে থাকুন। অর্থাৎ তাড়াহুড়ো না করে রয়েসয়ে বিনিয়োগ করুন। কারণ, কর্পোরেট সংস্থাগুলির ত্রৈমাসিক হিসাব বাজারের জন্য ইতিবাচক আবহ বয়ে নিয়ে আসতে শুরু করেছে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন