PNB Fraude

বিশেষ প্রতিনিধি: একটা দুর্নীতি যে কোনো একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের কাছে এতটা বিপদ ডেকে নিয়ে আসতে পারে, তা বোধহয় সাম্প্রতিক অতীতে খুব কমই দেখা গিয়েছে। পঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাঙ্কের ১১৫০০ কোটি টাকা জালিয়াতি কাণ্ডে ইতিমধ্যেই অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা তুলে নিয়ে নিশ্চিন্ত হতে চাইছেন সাধারণ গ্রাহকরা। তাঁদের আতঙ্ক এমন জায়গায় পৌঁছে গিয়েছ যে, প্রয়োজন না থাকা সত্ত্বেও দীর্ঘক্ষণ লাইন দাঁড়িয়ে থেকে টাকা তুলে নিচ্ছেন। তাঁদের এই আতঙ্ক আর গাঢ় হতে পারে ভারতীয় শেয়ার বাজারের সূচক নিফটি থেকে পিএনবি-কে সরিয়ে ফেলার সিদ্ধান্ত।

আরও পড়ুন: বিনিয়োগকারীদের বিশ্বাস শুষে নিয়ে শেয়ার বাজার সম্পর্কে অনীহা বাড়াল পিএনবি-কাণ্ড

গত বুধবার ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জের শাখা ইন্ডিয়া ইনডেক্স সার্ভিসেস অ্যান্ড প্রডাক্টস লিমিটেড বৈঠকে বসে স্থির করেছে স্টক এক্সচেঞ্জ সূচক নিফটি মিডক্য়াপ ১০০ অথবা নিফটি ফ্রি ফ্লোট মিডক্যাপ ১০০ থেকে হটিয়ে ফেলা হবে পিএনবি-কে। আগামী ২৮ মার্চ, ২০১৮ পর্যন্ত এই তালিকায় থাকার পর ২ এপ্রিল,২০১৮ থেকে তার আর কোনো অস্তিত্ব থাকবে না ওই তালিকায়।

আরও পড়ুন: পিএনবি-কাণ্ড: হিরে ব্যবসায়ী ও শেয়ার বাজারের দালালদের মধ্যে ছিল গোপন আঁতাঁত!

ধারণা করা যেতেই পারে, এ ভাবে তালিকা থেকে অপসারণের কারণ সম্পর্কে প্রত্যেকেই কম-বেশি ওয়াকিবহাল। গত ১২ ফেব্রুয়ারিতেও পিএনবি-র স্টকের দর ছিল ১৬২ টাকার আশেপাশে। জালিয়াতি মামলা প্রকাশ্যে আসার পর তা ১২০-এর অনেকটাই নীচে। এই ক-দিনে প্রায় ৩০ শতাংশ দর পড়ে গিয়েছে এই রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের।

আরও পড়ুন: পিএনবি-কাণ্ডে ১৪০০ কোটি টাকার ধাক্কা খেল এলআইসি

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন