Modi

ওয়েবডেস্ক: ২০১৪-র লোকসভা নির্বাচনের ফলাফলের পুনরাবৃত্তি হবে না। ২০১৯-এ বিরোধী ঐক্যই মুখ্য ভূমিকা নিতে চলেছে। ফলে  এ বারের ভোটে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে পুনরায় ক্ষমতায় আসতে হলে এনডিএ শরিকদের উপর আরও বেশি করে নির্ভর করতে হবে। অন্য দিকে বিরোধী জোটকে শক্তিশালী করে তুলতে কংগ্রেসকেও একক ভাবে ১৫০টি আসন দখল করতে হবে বলে জানাল হংকংয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান সিএলএসএ।

বিকল্প বিনিয়োগ, সম্পদ ব্যবস্থাপনা, কর্পোরেট ফিন্যান্স এবং ক্যাপিটাল মার্কেট, বিশ্বজুড়ে কর্পোরেট ও প্রাতিষ্ঠানিক ক্লায়েন্টদের জন্য সিকিউরিটিজ এবং সম্পদ পরিচালনার উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে এই সংস্থা। হংকংয়ে হেড কোয়ার্টার হলেও বিশ্বের সর্বত্র রয়েছে কার্যালয়। শেয়ার বাজারে জোরালো প্রভাব ফেলা সিএলএসএ-র মত বিনিয়োগকারীদের কাছে যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। সেই সংস্থাই আয়োজন করেছে ২১তম ইন্ডিয়া ইনভেস্টর কনফারেন্স। সেখানে সংস্থার তরফে আলোচনার একটি বড়ো অংশ দখল করে আগামী লোকসভা নির্বাচন।

সংস্থার মতে, আগামী ভোটে বিরোধীদের জোটের সরকার গঠনের সম্ভাবনা রয়েছে ২৫-৩০ শতাংশ। অন্য দিকে বিজেপি যদি শরিকদের সঙ্গে সম্পর্ক গাঢ় করে তা হলে তাদের সরকার গঠনের সম্ভাবনা ৫০-৫৫ শতাংশ। আবার শক্তিশালী জোট নিয়ে ইউপিএ জোটের ক্ষমতায় আসার সম্ভাবনা রয়েছে ৫-১০ শতাংশ। সে ক্ষেত্রে রাহুল গান্ধীর চাই ১৫০টি আসন।

CLSA

ইতি মধ্যেই রিজার্ভ ব্যাঙ্কের সঙ্গে কেন্দ্রীয় সরকারের সংঘাতে সিএলএসএর কর্তারা মোদীর পক্ষেই ব্যাট ধরেছেন। সরকার চাইলে কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের নীতি নির্ধারণে ভূমিকা নিতে পারে বলেই তাঁরা জানিয়েছেন। একই ভাবে বিজেপির সরকার গঠনের সম্ভাবনাকে ৫০ শতাংশের উপর নিয়ে গিয়ে তাঁরা যে আদাতে জনমনে প্রভাব ফেলতে চাইছেন, তেমনটাই মনে করছে কংগ্রেস।

একই সঙ্গে শেয়ার বাজারে বিনিয়োগকারীদের বুকে কাঁপন ধরিয়ে সিএলএসএর ওই কনফারেন্সে বলা হয়েছে, ২০১৯-এ যদি বিজেপি-বিরোধী জোট সরকার ক্ষমতায় আসে, তা হলে শেয়ার বাজার ১০-২০ শতাংশের সংশোধনের সম্মুখীন হতে পারে!

Sensex Modi

 তবে একই সঙ্গে সিএলএসএ বলেছে, ২০১৪ সালে কংগ্রেস মাত্র ৪৪টি আসনে জয় পেয়েছিল। সেই সম্ভাবনাও এ বার অনেক কম। কারণ, পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে কংগ্রেসের আসন এ বার যথেষ্ট বাড়তে চলেছে। উল্টো দিকে বিজেপির আসন কমার সম্ভাবনা থেকেই যায়।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here