Rupee and Dollar

ওয়েবডেস্ক: ডলারের তুলনায় টাকার দামে রেকর্ড পতন হল মঙ্গলবার। আবার এক দিনের নিরিখেও সর্বোচ্চ পতন ঘটল বিগত পাঁচ বছর পর। গত সোমবার যেখানে ডলারের তুলনায় টাকার দাম ছিল ৬৯.৯৩ টাকা, সেখানে মঙ্গলবারে তা ঠেকল ৭০.০৭ টাকায়। শেষ এক বছর সময়কালে এই পতনের হার ৭.২ শতাংশ। সব মিলিয়ে এ দেশের অর্থনীতির সামনে জটিল একটা সময়। কিন্তু বাস্তব পরিস্থিতি বলছে, দেশের অধিকাংশ মানুষ টাকা-ডলার বৈষম্যে বিপদে পড়লেও কারও কারও ভাঁড়ার আবার উপচে পড়তে পারে।

টাকার দাম পড়ে যাওয়া মানে বিশ্ববাজার থেকে কেনা জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে যাওয়া। আবার জ্বালানি তেল এমন এক অতি আবশ্যক পণ্য, যার পরিমাণ কমানো সম্ভব নয়। ফলে চড়া দামে বিশ্ববাজার থেকে কেনা জ্বালানি তেল কিনতে বাধ্য হলে খরচ বেড়ে যাবে পরিবহণের। দাম বেড়ে যাবে শাকসবজি থেকে সমস্ত নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের। অন্য দিকে টাকার দামে পতন মানেই বিদেশে ঘুরতে যাওয়া থেকে শুরু করে উচ্চশিক্ষা লাভের ক্ষেত্রেও খরচের বহর প্রসারিত হতে থাকবে।

আরও পড়ুন: উদ্বেগ বাড়িয়ে সর্বকালের সর্বনিম্ন পতন টাকার দামের

কিন্তু এমন একটি ক্ষেত্র রয়েছে যেখানে আবার লাভের পরিমাণ যথেষ্ঠ বাড়বে। সেটা হল রফতানি বাজার। যে সব ব্যবসায়ী পণ্য রফতানিতে যুক্ত টাকার দাম পড়লে তাঁরা তো লাভবান হবেনই। শুধু পণ্য নয়, পরিষেবা ক্ষেত্রেও সংস্থাগুলি লাভবান হবে। যেমন ওষুধের পাশাপাশি তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থাগুলিও দুর্বল টাকার বাজারে আরও বেশি আয়ের সম্ভাবনা দেখবে বিদেশি ডলারের সৌজন্যে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন