sbi atm

ওয়েবডেস্ক: ডেবিট কার্ড ব্যবহারকারীদের জন্য যে কোনো ব্যাঙ্কেরই নির্দেশ থাকে, অ্যাকাউন্ট হোল্ডার ছাড়া অন্য কেউ যেন সেটি ব্যবহার না করেন। আত্মীয়-পরিজনের কাছেও যেন নিজের কার্ড এবং পিন নম্বর না প্রকাশ করা হয়। কিন্তু পরিস্থিতির চাপে পড়ে অনেক সময়েই এর ব্যতিক্রম ঘটে থাকে। সে ক্ষেত্রের ব্যাঙ্কের যান্ত্রিক ত্রুটির সম্মুখীন হওয়ার পর আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়লেও কোনো দায় নেবে না ব্যাঙ্ক। ২০১৩ সালের ১৪ নভেম্বর ঘটা এমনই একটি ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে এসবিআইয়ের মত মেনে নিল আদালত।

উল্লেখিত দিন বেঙ্গালুরুর বাসিন্দা বন্দনা নামে এক মহিলা সন্তান প্রসবজনিত কারণে এটিএম-এ যেতে অক্ষম ছিলেন। তিনি স্বামী রাজেশ কুমারকে নিজের এটিএম কার্ড দিয়েছিলেন ২৫ হাজার টাকা তোলার জন্য। রাজেশ এটিএমে গিয়ে যথারীতি কার্ড সোয়াইপ করেন, কিন্তু হাতে টাকা পাননি। বিষয়টি ব্যাঙ্কের নজরে নিয়ে আসা হয়। সিসিটিভি ক্যামেরাতেও দেখা যায়, তিনি কার্ড সোয়াইপ করার পর কোনো টাকা হাতে পাননি। তবুও ব্যাঙ্ক সেই টাকা ফেরাতে অস্বীকার করে। যদিও অ্যাকাউন্ট থেকে সমপরিমাণ টাকা ডেবিট হয়ে যায়। অ্যাকাউন্ট হোল্ডার টাকা পেয়ে গিয়েছেন, সেই মোতাবেক এসবিআই আবেদনটি বাতিল করে দেয়।

কিন্তু বন্দনা আরটিআইয়ের মারফত জানতে পারেন, ওই দিন নির্দিষ্ট এটিএম-টিতে হিসাব বহির্ভূত ২৫ হাজার টাকা বাড়তি ছিল।এই তথ্যকে হাতিয়ার করে বন্দনা ক্রেতা সুরক্ষা আদালতে যান। কিন্তু সেখানে ব্যাঙ্কের তরফে এটিএম পিন নম্বর দ্বিতীয় ব্যক্তির কাছে প্রকাশ করার আইনে বন্দনার অভিযোগ ধোপে টেকেনি।

২৯ মে, ২০১৮ আদালত জানায়, বন্দনার প্রতিবন্ধকতা থাকলে তিনি একটি সেলফ চেক লিখে স্বামীকে ব্যাঙ্কে পাঠাতে পারতেন। কিন্তু তার পরিবর্তে নিজের এটিএম কার্ডের গোপন নম্বর অন্যের কাছে প্রকাশ করে আইন ভেঙেছেন। যা ব্যাঙ্কের নিয়মানুযায়ী ‘অপরাধ’। ওই দিনই আদালত বন্দনার মামলাটি খারিজ করে দেয়।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here