Share

ওয়েবডেস্ক: একে একে ধাপ ভাঙছে ভারতীয় শেয়ার বাজার। তবে একবার উপরে ওঠার আর তার পর নীচে নামার। ওঠার সময় যেমন আরও উঠবে মানসিকতা নিয়ে বিনিয়োগের বহর বাড়তে থাকে তেমন নামার সময় আরও নামবে চিন্তাকে আঁকড়ে ধরে অপেক্ষার (হা-হুতাশেরও) প্রহর গোনা। যদিও শেয়ার বাজারের অভিজ্ বিনিয়োগকারীদের কাছে এ সব কোনো ব্য়াপারই নয়। সূচক উঠুক বা নামুক, তাতে কিস্যুটি যায়-আসে না তাঁদের। ঠিক কী কারণে?

এমন প্রশ্নের উত্তরে প্রথমেই চলে আসে বিনিয়োগের কৌশল। ধাপে ধাপে বাড়ে-কমে, তেমনই বিনিয়োগেও সেই ধাপগুলিকে অনুসরণ করা হলে অনেকটাই ঝক্কি কমে। অর্থাৎ, বাজার আপনার মনের মতো করে না চললেও আপনি চলুন বাজারের মতো করে। এ ক্ষেত্রে বলে রাখা ভালো ইন্ট্রা ডে বিনিয়োগকারীর এই গোত্রের অন্তর্ভুক্ত নন। তাঁরা ওয়ানডে ক্রিকেট বাতিল করে টি-টুয়েন্টি খেলছেন। ফলে স্বল্প মেয়াদি বা দীর্ঘ মেয়াদি বিনিয়োগকারীদের কাছে এই ধাপে ধাপে বিনিয়োগ একটা বড়োসড়ো রক্ষাকবচ।

এ বার যাওয়া যাক, এই ভয়াবহ-বাজারে বিনিয়োগের সন্ধানে। হাতের সামনে যা রয়েছে, সেগুলির বেশির ভাগ স্টকের মাথায় লালবাতি। তাই বলে বিনিয়োগ থেমে থাকতে পারে না। কিন্তু কী কিনবেন?


আরও পড়ুন: শেয়ার বাজারে বড়োসড়ো ধস, নিফটি ১১ হাজারের নীচে, সেনসেক্সে পতন সাড়ে পাঁচশো

মন সায় দিলে কিনতে পারেন ক্রম্পটন গ্রেভস কনজিউমার ইলেক্ট্রিকলস লিমিটেড। খুব বেশি দাম নয়। স্টকপিছু মাত্র ২২০ টাকা। শেষ ৩০ দিনে সর্বোচ্চ দাম ছিল ২৬৭ টাকা। পড়তে পড়তে এখন এই অবস্থানে। শুধু শেয়ার বাজারের সূচকের নিরিখে নয়, সংস্থার অভ্যন্তরীণ কর্মকাণ্ডেই স্টকের দাম দ্রুত গতিতে ঊর্ধ্বমুখী হওয়ার জন্য শক্তি সংগ্রহ করছে। স্বল্প মেয়াদি বিনিয়োগের ফল হাতেনাতে মিলতে পারে, পকেটে ঢুকতে পারে স্টক প্রতি ৩০০ টাকা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন