Share market sensex

ওয়েবডেস্ক: ‘বাজারের কারসাজি’র প্রথম পর্বেই উল্লেখ করা হয়েছিল কী ভাবে শেয়ার বাজারের সূচক হু-হু করে উপরের দিকে উঠতে থাকলেও রাষ্ট্রায়ত্ত ইস্পাত উৎপাদক সংস্থা সেলের শেয়ার দর নীচের দিকে গোঁত্তা খেয়েছে। তার মানে কি সমস্ত শেয়ারের দামই পড়ে গেছে এই ক’মাসে? মোটেই তা নয়, সময়ের বিচারে যে ক্ষেত্রগুলি উপরের দিকে ওঠার কথা সেগুলি এগোচ্ছে তাল রেখেই। যেমন আইটি বা গাড়ি শিল্পের স্টকের দাম বাড়ছে। আবার বেশ কয়েকটি ব্যাঙ্কের শেয়ারও বেশ বেড়েছে। কিন্তু এসবিআইয়ের মতো এশিয়ার বৃহত্তম সরকারি ব্যাঙ্ক নিয়ে দুশ্চিন্তা আরও গ্রাস করেছে বিনিয়োগকারীদের। এখন প্রশ্ন কোন বিনিয়োগকারীদের বিপদে ফেলেছে সূচকের রেকর্ড উত্থান?

Share

বাজারের শ্রেণি বিভাগ অনুযায়ী ব্যক্তিগত বিনিয়োগকারীদের (আর্থিক প্রতিষ্ঠানের বাইরে) তিনটি শ্রেণিতে ফেলা হয় বিনিয়োগের ধরন থেকে। দীর্ঘমেয়াদি, স্বল্পমেয়াদি এবং এক দিবসীয়। যাঁরা নিজের ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত, সেটা পেশাদার বা চাকরিজাবী উভয়ের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য, তাঁরা তুলনামূলক ভাবে নিরাপদ। আয়ের উদ্বৃত্ত টাকার নির্দিষ্ট অংশ দীর্ঘ সময়ের জন্য শেয়ারে বাজারে ছেড়ে রাখেন। কিন্তু যাঁরা নিজেদের কর্মক্ষেত্রের তুলনায় শেয়ার বাজারেও বেশ ভালো সময় দিয়ে থাকেন তাঁরা স্বল্প মেয়াদে বিশ্বাসী। সব থেকে মার খেয়েছেন তাঁরাই। আর এক দিবসীয় (ইন্ট্রা ডে) তো কিছুটা ওয়ান ডে আর কিছুটা ফাটকাবাজির মতো। তাঁদের পিছনে থাকে ব্রোকার হাউজগুলো। ঠিকঠাক উপদেশ মতো বিনিয়োগে বিনিয়োগের ভারসাম্য বজায় রাখতে অধিকাংশই সফল হন। কিন্তু স্বল্প মেয়াদি বিনিয়োগকারীদের মাথায় হাত ফেলেছে এই সূচকের রেকর্ড উত্থান।

মাত্র ৬ মাস আগে এরোস ইন্টারন্যাশনালে স্টক কিনেছিলেন স্বল্পমেয়াদি বিনিয়োগকারী এক বন্ধু। তখন দাম ছিল স্টক প্রতি প্রায় ২০০ টাকা। বাজার চড়চড়িয়ে বেড়েছে। এখন দাম কত?

মাত্র ১০৫-১০৯ টাকা প্রতি স্টক। অর্থাৎ প্রায় ৫০ শতাংশ দাম পড়ে গেছে এই ক’মাসে। অথচ সেনসেক্স বা নিফটির দিকে তাকান। রক্ত গরম করা উত্থান। ও দিকে হাড় হিম হয়ে যাচ্ছে এরোসের বিনিয়োগকারীদের। অথচ ট্রেড পণ্ডিতরা তো বলেছিলেন, বাজার যেমন চড়বে তেমনই ভরবে আপনার লক্ষ্মীভাণ্ডার। তা হলে ফতুর হয়ে যেতে বসার অশুভ লক্ষণ কেন? শুধু এরোস নয়, এরকম অগুন্তি শেয়ারের নাম চলে এসেছে অবনমনের তালিকায়, কেন? কী এমন ঘটছে এগুলির সঙ্গে? নেপথ্যে রয়েছে এমন কী কারণ? চোখ রাখুন www.khaboronline-এ। সতর্ক থাকুন নিজের কষ্টার্জিত অর্থের সংরক্ষণে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন