ওয়েবডেস্ক: সদ্য শেষ হওয়া নভেম্বর মাসে ছোটো যাত্রীবাহী গাড়ি বিক্রির রিপোর্ট থেকে উঠে এল আরো এক চমকপ্রদ তথ্য। বিভিন্ন কারণে সারা বছর ধরে সংস্থার পরিচালনমণ্ডলীতে টানাপোড়েন চললেও এই দেশীয় গাড়ি নির্মাতা সংস্থাটি পিছনে ফেলে দিয়েছে মাহিন্দ্রা অ্যান্ড মাহিন্দ্রাকে।

গত নভেম্বরের গাড়ি বিক্রির সংখ্যা থেকেই স্পষ্ট হয়ে যাচ্ছে আগামী ২০১৯-এর মধ্যে সমস্ত লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করে উঠতে সক্ষম হবে টাটা মোটরস। সম্প্রতি প্রকাশিত সংস্থার রিপোর্ট থেকে দেখা গিয়েছে, তাদের তিনটি নতুন মডলের গাড়ি নিক্স, টিগর এবং টিয়াগো ক্রেতাদের আকর্ষণ করতে পেরেছে। এক মাসে মোট গাড়ি বিক্রি হয়েছে ১৭১৫৭টি। গত বছরের নভেম্বরের তুলনায় এই বিক্রির হার বৃদ্ধি পেয়েছে ৩৫ শতাংশ। কারণ গত বছরে ঠিক একই সময়ে এই গাড়ি বিক্রির পরিমাণ ছিল ১২৭৩৬টি।

অন্যদিকে মাহিন্দ্রার বৃদ্ধির হার ২১ শতাংশ বাড়াতে পারলেও মোট গাড়ি বিক্রি করতে পেরেছে ১৬০৩০টি। তবে ওয়াকিবহাল মহলের মতে, টাটার থেকে তারা খুব একটা পিছনে পড়ে নেই। তার উপর বিষয়টিকে শুধুমাত্র একটি মাসের নিরিখে দেখলে চলবে না। সামনে আরো অনেক সময় পড়ে রয়েছে। কারণ ঠিক একই ঘটনা দেখা গিয়েছিল গত বছরের নভেম্বরে, যখন টাটাকে সামান্য ব্যবধানে মাহিন্দ্রার থেকে এগিয়ে গিয়েছিল। টাটার এই এগিয়ে যাওয়ার মূলে রয়েছে গাড়ি বেশ কয়েকটি নতুন মডেলের আমদানি। বিশেষ করে এসইউভি গাড়ির ব্যাপারে অধিক মনোযোগ দিয়েছে টাটা, যা এখনকার ক্রেতারা বেশি পছন্দ করছেন।উল্টো দিকে মাহিন্দ্রা তেমন কোনও নতুন মডেলের গাড়ি বাজারে নিয়ে আসতে পারেনি।

এ ব্যাপারে টাটা মোটরসের প্যাসেঞ্জার ভেহিকল বিজনেস ইউনিটের প্রেসিডেন্ট মায়াঙ্ক পারিক জানিয়েছেন, ‘নতুন প্রজন্মের চাহিদা মতো আমরা বেশ কিছু মডেল বাজারে নিয়ে আসতে পেরেছি। যেগুলির বেশিরভাগই গত মাসের বিক্রিকে অনেকটা বাড়িয়ে দিয়েছে। সেই চাহিদার কথা মাথায় রেখেই আগামী দিনগুলিতে প্রায় ১০ হাজার নিক্সন প্রস্তুত করার কাজ চলছে।পাশাপাশি টিগর, টিয়াগো বা হেক্সার উৎপাদনও সমান ভাবে জারি থাকবে।’