Bandhan Bank

ওয়েবডেস্ক:  বন্ধন ব্যাঙ্কের সঙ্গে মিশে যাচ্ছে গৃহঋণ সংস্থা গ্রুহ ফিনান্স। দুই সংস্থার কর্তৃপক্ষের সহমতের ভিত্তিতেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও এখনও প্রয়োজন আরবিআই-সহ সংশ্লিষ্ট সংস্থার ছাড়পত্র। তবে পরিস্থিতি যা, সে সব আদায় করা খুব একটা কঠিন নয়। কিন্তু একাধিক উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে বন্ধন ব্য়াঙ্কের এই নতুন পদক্ষেপকে যে বিনিয়োগকারীদের একাংশ মোটেই ভালো চোখে দেখছেন না, তা স্পষ্ট হয়ে গেল সিদ্ধান্তগ্রহণের দিন শেয়ারবাজারের প্রতিফলনেই। যদিও বৃহত্তর অংশের মতে, এই সিদ্ধান্ত সুদূরপ্রসারী ফল দেবে।

মঙ্গলবার ঘোষণা করা হয় গৃহঋণ সংস্থা গ্রুহ ফিনান্স মিশে যাচ্ছে বন্ধন ব্যাঙ্কের সঙ্গে। শেয়ার বিনিময়ের মাধ্যমে বাস্তবায়িত হচ্ছে এই সিদ্ধান্ত। তবে এইচডিএফসি লিমিটেডের শাখা গ্রুহ ফিনান্সকে বন্ধনের অধিগ্রহণের মধ্যে আপাতত তেমন কোনো সদর্থক ফলাফল দেখছেন না একাংশর বিনিয়োগকারীরা।

গত মঙ্গলবার বন্ধন ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ ঘোষণা করেন, অধিগ্রহণ পর্ব মিটে গেলেই প্রোমোটারের অংশীদারি নেমে আসবে ৬১ শতাংশে। অন্য দিকে আরবিআইয়ের নিয়মানুযায়ী, এর পরেও আরও ২১% শেয়ার প্রোমোটারদের ছাড়তে হবে। যাবতীয় ছাড়পত্র মিলে যাওয়ার পর কম সুদে গৃহঋণ দেওয়া ওই সংস্থা চলে আসবে বন্ধন ব্যাঙ্কের হাতে।

এমন সিদ্ধান্ত আপাতত আশ্বস্থ নন বিনিয়োগকারীরা। যে কারণে বন্ধনের সঙ্গে গ্রুহ ফিনান্স মিশে যাওয়ার খবর আসার পর শেয়ার বাজারে বন্ধন ব্যাঙ্কের স্টকে পতন হয় ১৬.৩৯ শতাংশ। বিনিয়োগকারীদের মনে হয়, এই ধরনের সিদ্ধান্ত ভুল পদক্ষেপ। যে কারণে বন্ধন ব্য়াঙ্কের শেয়ার বিক্রির হিড়িক পড়ে যায়।

তবে এই অধিগ্রহণ সুদূরপ্রসারী ফল দিতে পারে বলেই মনে করছেন অর্থনীতি বিশেষজ্ঞরা। এর ফলে যেমন বন্ধন ব্যাঙ্কের শাখা অথবা এটিএমের সংখ্যা বাড়বে তেমনই সম্মিলিত আর্থিক মূল্যয়নের পরিমাণও এক ধাক্কায় অনেকটাই বেড়ে যাবে। ফলে আপাতত নজরে থাকুক বন্ধন ব্যাঙ্ক।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here