sensex nifty

বিশেষ প্রতিনিধি: চলতি ফেব্রুয়ারিতে যে তিনটি কারণে এতটা অন্ধকার নেমে এসেছিল, মাস শেষ হওয়ার মুখে তা একবার ঝালিয়ে নেওয়ার দরকার রয়েছে বলেই মনে হয়। খবরঅনলাইনের যাঁরা সামান্য হলেও এই বিভাগটিতে নজর রাখেন, তাঁরা জানেন, এমন একটা সম্ভাবনা ছিলই যে নিফটির আরও পতন ঘটতেই পারে। লং টার্ম ক্যাপিট্যাল গেইন্স ট্য়াক্স অথবা রাজস্ব ঘাটতির যে ঘোষণা কেন্দ্র করেছিল তাতে আরও পড়ছে নিফটি-সেনসেক্স। আবার গত ৭ ফেব্রুয়ারি রয়েছে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের নীতি ঘোষণার দিন। রিজার্ভ ব্যাঙ্ক বাজেটের দিকে তাকিয়ে বা বাজেটের সঙ্গে সাজুয্য রাখতে ঠিক কী ধরনের নীতি নিতে চলেছে, তার প্রভাব পড়েছে শেয়ার বাজারে। নিফটির নিম্ন গমন পৌঁছে গিয়েছিল ১০৩০০-এরও নীচে। অর্থাৎ মাস শুরুর সময় যেখানে দাঁড়িয়ে ছিল তার থেকে আরও পাঁচশো পয়েন্ট নেমেছিল নিফটি তবে তা এক দিনে তো নয়-ই, এক টানাও নয়।

আরও পড়ুন:নীরব মোদী কাণ্ড যে স্টকটিতে বিন্দুমাত্র প্রভাব ফেলতে পারেনি, নজরে রাখুন

বাজেট ঘোষণার আগে থেকেই আশঙ্কায় পড়তে থাকা বাজার বাজেট ঘোষণার পরও খাদে গিয়ে পড়ল। কিন্তু পঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাঙ্কের আর্থিক তছরূপ (সৌজন্যে মোদী পদবিধারী) সেই খাদে আলো ঢোকাই বন্ধ করে দিল। শুরু হল অন্ধকার যুগ। তবে শেষ তিনটি ট্রেডিং ডে-তে সেই অন্ধকার কেটে সামান্য হলেও আলোর অনুপ্রবেশ ঘটতে দেখা যাচ্ছে। তার মানে কি ওই অন্ধকার যুগের অবসান হয়ে গেল ধরে নিতে হবে?

৭০ শতাংশ সম্ভাবনা রয়েছে ১০,৩০০-র নীচে ঘুরে আসা নিফটি নিজেকে বেঁধে ফেলতে চাইবে এই সীমার উপরেই। ফলে আর এক বার ১০,০০০-র নীচে নামার কোনো স্বাদ তার নেই বলেই মনে করা হচ্ছে। বহু আলোচ্য নিফটির গন্তব্য চুড়া ১২,০০০ ছুঁয়ে ফেলার খিদে কি এ বছরের মধ্যেই মিটবে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন