sensex

বিশেষ প্রতিনিধি: সত্যিই অবিশ্বাস্য। অভূতপূর্ব তো বটেই।

এত তাড়াতাড়ি ভারতীয় শেয়ার বাজারের সমস্ত সূচক যে ২০১৮-এর টার্গেট ছুঁয়ে ফেলবে, তা কল্পনাতীত। গত বছরের নভেম্বর মাসেই এই সমস্ত সূচকগুলির রেখচিত্র দেখে মোটামুটি আন্দাজ করা গিয়েছিল তাদের ভবিষ্যৎ। ২০১৮-এর মধ্যে নিফটি ১১৫০০ পয়েন্ট ছুঁতে পারে বলে প্রাথমিক ভাবে মনে করা হচ্ছিল। কারণ গত সেপ্টেম্বরেই সে ১০০০০-এর গণ্ডি পার হয়েছে। সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে এক বছরের মধ্যে নিফটির প্রায় দেড় হাজার পয়েন্টের উত্থান কতটা আশ্চর্যজনক হয়ে উঠতে পারে, তা ভুক্তভোগীরা জানেন। শুধু অঙ্ক কষে সেই হিসাব পেশ করলে অনুভূতিটাই হারিয়ে যাবে।

বছরের প্রথম মাস সবে অর্ধেক পথ অতিক্রম করেছে, তারই মধ্যে গত বৃহস্পতিবার নিফটি ছুঁয়ে ফেলল ১০৮৮৭ পয়েন্ট। তা হলে লক্ষ্য ছুঁতে আর বাকি রইল কত? ৭০০ পয়েন্টেরও কম। আবারও বলা যেতে পারে, অঙ্ক কষলে অনুভূতি হারিয়ে যাবে। বিরুদ্ধ মত বলছে, এ বার শুধুই যন্ত্রণা অপেক্ষা করে রয়েছে। থাকতে পারে। তাই বলে বিনিযোগকারীর সঙ্গে ছেলেখেলা করবে না ২০১৮-এর শেয়ার বাজার।

কোন পাঁচটি স্টক এ বছরে কম পক্ষে ৩০ শতাংশ রিটার্ন দিতে পারে, এ বার সে বিষয়ে ফেরা যাক। প্রথমেই বলে রাখা ভালো, ওই স্টকগুলি সম্পর্কে এতটা জোরের সঙ্গে লক্ষ্য নির্দিষ্ট করার কারণ শুধুই গত এক বছরের তাঁদের রেখচিত্র নয়। উল্টে ওই সংস্থাগুলির বর্তমান বাজারে লগ্নির পরিমাণ বৃদ্ধি, চাহিদার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে তাদের উৎপাদিত পণ্যের পরিমাণ বৃদ্ধি। এবং সর্বোপরি ২০১৭-‘১৮ অর্থবের্ষের শেষ চক্রে ঢুকে পড়ার আগের ত্রৈমাসিক রিপোর্টে ওই সংস্থাগুলির উজ্জ্বলতর ফলাফল-যা হাতেনাতে মিলবে আগামী ১১ মাস ১০ দিন অর্থাৎ ২০১৮ সালের শেষ দিনের মধ্যেই।

এ কথা ঠিক, শেয়ার বাজার কোনো ভবিষ্যদ্বাণীর জন্য অপেক্ষা করে থাকে না। তবুও অঙ্ক, যুক্তি ও তথ্য বলছে ওই নির্দিষ্ট সময়কালের ভিতরেই আদানি এন্টার প্রাইজেস লিমিটেড, জিন্দাল স্টিল অ্যান্ড পাওয়ার লিমিটেড, কোল ইন্ডিয়া লিমিটেড, সিন্ডিকেট ব্যাঙ্ক এবং প্রিজম সিমেন্ট লিমিটেড আপনাকে ৩০ শতাংশের উপর লাভ দিতেই পারে। এগুলির বর্তমান বাজার দরে কিনে নিশ্চিন্তে থাকাটা খুব একটা মন্দ হবে না।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন