sensex,Nikkei 225,Dow Jones Industrial Average

একটা স্টকের মাত্র ১৬ দিনে ১৬ শতাংশ দাম বেড়ে গেল। আমরা কি খেয়াল রেখেছি? না কি খেয়াল রাখলেও শুধুই দর্শকের ভূমিকায় আমরা দর্শনে তৃপ্ত হয়েছি। যদি তাই হয়, তবে আর অপেক্ষা নয়।
এখনও সময় রয়ছে। গত ১৪ ডিসেম্বর খবর অনলাইনের শিল্প বাণিজ্য বিভাগে পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল টরেন্ট পাওয়ার কেনার। তখন এর দাম চলছিল ২৫৮ টাকার মতো। বলা হয়েছিল, এই দরের আশেপাশে কিনে ফেললে ওই দিনই চার টাকা প্রতি স্টকে লাভ করা যেতে পারে। কিন্তু বাজার খোলার পর সামান্য উপরের দিকে উঠলেও পারে তা ধপাস করে পড়ে যায়। শেয়ার বাজারে লগ্নিকারীদের এত সহজে ভুলে যাওয়ার কথা নয়। ওই দিন ছিল গুজরাত নির্বাচনের দ্বিতীয় পর্ব। বাজার সেন্টিমেন্টে চলে। সে দিন কোনো এক সেন্টিমেন্ট এমন জোরাল নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছিল যে, বাজার ৩০০ পয়েন্ট পড়ে যায়। টরেন্ট পাওয়ার চলে যায় ২৫২ টাকায়। ২৫৮-তে কিনে চার টাকা লাভের কথা বলা হয়েছিল। আর বাস্তবে দেখা যাচ্ছে, কেনা দরের থেকেও ছটাকা নীচে নেমে গিয়েছে। কিন্তু সূর্য মধ্যগগন পার করার পরপরই দেখা গেল উল্টো ছবি। চার টাকা নয়, সে দিন টরেন্ট পাওয়ারের ইন্ট্রা ডে খেলুড়েরা ছটাকা লাভ করেছিলেন প্রতি স্টকে।

সকাল সকাল পুরনো কাসুন্দি। কারণ ভুক্তভোগী মাত্রই জানেন, সবুরে মেওয়া ফলে। আচারকে জমতে সময় দিতে হবে। এই মুহূর্তে কেন্দ্রীয় সরকারের উন্নয়ন খাতে বিনিয়োগ দেশের বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রকে আশার আলো দেখাচ্ছে। যার মধ্যে অন্যতম বিদ্যুৎ ক্ষেত্র। উন্নয়ন মানেই প্রচুর কলকারখানা। এর কলকারখানার জন্য প্রয়োজন বিদ্যুৎশক্তি তা না মিললে কারখানার যন্ত্রপাতি তো অকেজো।

যাই হোক, ও সব কথা থাক। আসা যাক কাজের কথায়, আবার কিনতে পারেন টরেন্ট পাওয়ার। গত ১৬ দিনে প্রায় ১৬ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে এই স্টকটি ছুঁয়ে ফেলেছে ২৯৩টাকা। যাঁরা ২৬০ টাকার নীচে কিনেছিলেন, তাঁরা কি এবার প্রফিট বুকিংয়ের পথে হাঁটবেন। মোটেই না। অন্তত বাজারের মতিগতি এবং টরেন্ট পাওয়ারে বর্তমান পরিস্থিতি তাই বলছে। যথেষ্ট সংশোধনের সুযোগ পেয়ে নিজেকে সংকোচন করেছে সর্বাধিক। এর পর সেখান থেকে রাতারাতি উপরে না উঠে, নিজের মসৃণ গতিতেই বাড়ছে এই লাভদায়ী তরুলতা। আগামী এক বছরের জন্য কিনে ফেলে রাখলে ২৮৫টাকার টরেন্ট পাওয়ার খুব সহজেই যে ৩৫০ ছুঁয়ে ফেলতে পারবে, তা বলছে এর অতীত এবং বর্তমান। গত ২০১৬ সালের ২৭ ডিসেম্বর এই স্টকটির কত দাম ছিল জানেন। মাত্র ১৭০ টাকা ১০ পয়সা। আর আজ ২৮৫ টাকা। ফলে আপনার বিনিয়োগের ভবিষ্যৎ কার হাতে, সেটা আর ব্যাখ্যার প্রয়োজন নেই বলেই মনে হয়।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন