নয়াদিল্লি: সড়ক দুর্ঘটনা কমানোর জন্য জাতীয় সড়কের ধারে মদের দোকান বন্ধ ও হোটেল-রেস্তোরাঁয় মদ সরবরাহ বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে শীর্ষ আদালত। এই নির্দেশের ফলে কার্যত মুখ থুবড়ে পড়তে চলেছে দেশের হোটেল ব্যবসা। মদ সরবরাহ বন্ধ হওয়ার ফলে মোট বার্ষিক আয়ের প্রায় অর্ধেক হারাতে পারে হোটেলগুলি।

দেশের হোটেল এবং রেস্তোরাঁর যৌথ সংস্থা, ফেডারেশন অফ হোটেল অ্যান্ড রেস্টুরেন্ট অ্যাসোসিয়েশন অফ ইন্ডিয়ার প্রকাশিত একটি তথ্যে জানা গিয়েছে, সুপ্রিম কোর্টের এই নির্দেশের ফলে বছরে ১.৯ লক্ষ কোটি টাকা আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হবে দেশের হোটেল এবং রেস্তোরাঁগুলি। 

উল্লেখ্য, গত ডিসেম্বরে শীর্ষ আদালত জানিয়েছিল জাতীয় সড়কের ধারে মদের দোকান বন্ধ করতে হবে। সেই নির্দেশের সঙ্গেই কয়েক দিন আগে তারা জানায় শুধুমাত্র মদের দোকানই নয়, জাতীয় সড়কের ধারের হোটেল এবং রেস্তোরাঁও মদ সরবরাহ করতে পারবে না। এই প্রসঙ্গে ওবেরয় হোটেল গ্রুপের প্রেসিডেন্ট কপিল চোপড়া জানান, “শীর্ষ আদালত যে রায় দিয়েছে সেটা হয়তো দরকার ছিল, কিন্তু এ ক্ষেত্রে কিছু গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টও তাদের খেয়াল রাখা উচিত ছিল। একটা ছোট্টো মদের দোকান হয়তো জাতীয় সড়কের ধার থেকে অনত্র সরিয়ে নিয়ে যেতে পারবে, কিন্তু বড়ো হোটেল বা রেস্তোরাঁ, যেখানে কোটি কোটি টাকা বিনিয়োগ করা রয়েছে, তারা তো নিজেদের এ রকম ভাবে সরাতে পারে না।”

শুধু কি হোটেল ব্যবসার ক্ষতি? এই নির্দেশের ফলে কেন্দ্র এবং রাজ্য সরকারও আর্থিক ক্ষতির মুখোমুখি হবে। এমনই মত ন্যাশনাল কমিটি অন ট্যুরিজম ফর কনফেডারেশন অফ ইন্ডিয়ান ইন্ডাস্ট্রির চেয়ারম্যান অর্জুন শর্মার। তিনি জানান, মদের জন্য লাইসেন্স দেওয়া থেকে আয়, বিক্রয় কর এবং প্রমোদ কর পাবে না সরকার। এর ফলে বছরে এক লক্ষ কোটি টাকা ক্ষতি হবে কেন্দ্র-রাজ্য উভয় সরকারেরই।

অনেকের মতে, এই নির্দেশের ফলে বিদেশিদের ভারতে আসা কমতে পারে, যার ফলে বিরাট ধাক্কা খেতে পারে দেশের পর্যটন ব্যবসা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here