মালাপুরম (কেরল): তাঁর নিজের দল দেশের বিভিন্ন রাজ্যে গরু হত্যা এবং গরুর মাংস খাওয়ায় বিধিনিষেধ আরোপের নানা রকম চেষ্টা করছে। কিন্তু তিনি বলছেন তাঁকে যদি নির্বাচিত করা হয়, তা হলে নিজের এলাকায় ভালো মানের গরুর মাংস সরবরাহের চেষ্টা করবেন।

বক্তা, আসন্ন লোকসভা উপনির্বাচনে মালাপুরম লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী এন শ্রীপ্রকাশ। এক সাংবাদিক সম্মেলনে শ্রীপ্রকাশ বলেন, “আমাকে যদি নির্বাচিত করা হয় তা হলে পরিষ্কার কসাইখানা থেকে ভালো মানের গরুর মাংস যাতে সরবরাহ করা হয়, সেটা আমি নিশ্চিত করব।” কিন্তু কয়েক দিন ধরেই যখন বিজেপি-শাসিত বিভিন্ন রাজ্য গরুর মাংসের ব্যাপারে নানা রকম বিধিনিষেধ আরোপ করছে। যখন গুজরাত বিধানসভা গোহত্যায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আইন আনছে, যখন ছত্তীশগড়ের বিজেপি মুখ্যমন্ত্রী রমন সিংহ বলছেন গরু মারলে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে দেওয়া হবে তখন শ্রীপ্রকাশ এ রকম মন্তব্য কেন করলেন? সাংবাদিকদের এই প্রশ্নের জবাবে এই বিজেপি পদপ্রার্থী বলেছেন, “যে রাজ্যে গোহত্যা আইনত নিষিদ্ধ সেখানে গরুকে মারা বা তার মাংস খাওয়া বেআইনি। কিন্তু কেরলে তো গোহত্যা নিষিদ্ধ নয়।”

শ্রীপ্রকাশের অবশ্য দাবি ক্ষমতায় থাকাকালীন অনেক রাজ্যের গোহত্যা বন্ধ করেছে কংগ্রেস সরকারই। উল্লেখ্য, গোটা দেশের মধ্যে শুধুমাত্র কেরল, পশ্চিমবঙ্গ, সিকিম, অরুণাচল, মেঘালয়, নাগাল্যান্ড, মিজোরাম এবং ত্রিপুরায় গোহত্যা নিষিদ্ধ নয়। এর মধ্যে অরুণাচলে শাসক দল বিজেপি। তবে উত্তরপূর্বের রাজ্যগুলিতে ক্ষমতায় এলে যে গরুর মাংস নিষিদ্ধ হবে না সেটা আগেই বুঝয়ে দিয়েছে বিজেপি। গোমাংস নিয়ে বিজেপির এই দু-মুখো নীতি নিয়ে আকবরুদ্দিন ওয়াইসির সহাস্য উক্তি, “বিজেপির নীতি হচ্ছে উত্তরপ্রদেশে গরু হল ‘মাম্মি’ (মা) আর উত্তরপূর্বে গরু হল ‘ইয়াম্মি’ (সুস্বাদু)”

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here