ইস্তানবুল: নতুন বছরের শুরুতে ফের রক্তাক্ত হল তুরস্ক। বর্ষবরণের রাতে ইস্তানবুলের একটি নাইট ক্লাবে ঢুকে হামলা চালালো দুষ্কৃতীরা। ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারালেন ৩৯ জন। বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ জানিয়েছেন, নাইট ক্লাবে মৃতদের মধ্যে দু’জন ভারতীয় রয়েছে। এদের একজনের নাম আবিস রিজভি। যিনি প্রাক্তন রাজ্যসভা সাংসদের ছেলে, অন্যজন গুজরাতের বাসিন্দা খুশি সাহ।

রেইনা নাইট ক্লাবে তখন নতুন বছরের পার্টি চলছিল। সেই সময় সান্তার পোশাকে ঢুকে দু’জন দুষ্কৃতী এলোপাথারি গুলি চালাতে আরম্ভ করে। নিহতদের মধ্যে ১৪ জন বিদেশি। আহত ৬৯ জনকে স্থানীয় হাসপাতালগুলিতে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আততায়ীরা গুলি চালাতে শুরু আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি হয় নাইট ক্লাবে। হুড়োহুড়ি পড়ে যায়। অনকে প্রাণ বাঁচাতে পাশের নদীতে ঝাপ দেন। দুষ্কৃতীরা আরবি ভাষাতে নিজেদের মধ্যে কথা বলছিল বলে এক প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছে।

প্রাদেশিক সরকার এই ঘটনাকে সন্ত্রাসবাদী হামলা বলেই জানিয়েছে। ঘটনার সময় নাইট ক্লাবে সেই সময় ছিল ৫০০ জন। প্রাদেশিক গভর্নর জানিয়েছেন, ‘ক্লাবের ঢোকার আগে দুষ্কৃতীরা এক পুলিশ কর্মী ও সাধারণ নাগরিককে হত্যা করে। তাদের সঙ্গে ছিল ল্যং-ব্যারল বন্দুক। রাত ২টো নাগাদ তারা হামলা চালায়। দুষ্কৃতী ওই নাইট ক্লাবের মধ্যেই লুকিয়ে রয়েছে বলে জানানো হয়েছে। ঘটনার পর নিরাপত্তাকর্মীরা গোটা এলাকা ঘিরে ফেলে। দুষ্কৃতীদের ধরতে অভিযানও শুরু করেছে তারা। এই অভিযানের সময় সমস্ত মিডিয়া ‘ব্ল্যাক আউট’ ঘোষণা করেছে তরস্ক সরকার। 

২০১৬-তে  ইস্তানবুল ও আঙ্কারায় আইএস জঙ্গি বা কুর্দিস বিদ্রোহীদের একাধিক হামলায় ১৮০ জনের মৃত্যু হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here